আমার সমস্যা টা আরেকটু যতটা খুলে বলা যায়, চেষ্টা করছি।  সমস্যা হচ্ছে আমি প্রচুর কনফিউশনে ভুগি। তারপর প্রচুর এবং অহেতুক খুতখুতে স্বভাব যে কোনো ব্যপারে। ফলে প্রায়ই সময়ের কাজ সময়ে হয় না, সারাদিন নিজেকে অনেক ব্যস্তই মনে হয়, কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয় না হাইলাইট করে দেখা যায়। বলে রাখছি, আমি একটু অন্তর্মূখী স্বভাবের, তবে অসামাজিক নই। সবার সাথেই মিশি, কিন্তু নির্দিষ্ট ফ্রেন্ড সার্কেল নাই। কোনো রিলেশনেও জড়াই নি। তবুও লাইফ hell!  লাইফস্টাইলই জটিল হয়ে উঠেছে আমার। গোসল, খাওয়া দাওয়া এরকম অনেক কাজে টাইম নিয়ে ফেলি প্রচুর। ফ্লুয়েন্সি নাই। এটা সব সময়ই হয় না, তবে যখন পেয়ে বসে, বের হতে পারি না। অগোছালো হয়ে যাই, সার্বিকভাবে depression এ চলে যাই, যেটা আমাকে পর্ন দেখা, হস্তমৈথুন এসব কাজে উদ্ভুদ্য করে! নামাজ কালাম নিয়মিত পড়ার চেষ্টা করে যাচ্ছি, সেটাও রেগুলার না। লাইফের উদ্যাম, গতি সব চলে গেছে। এবং ইন্টারনেট থেকে জানতে পারি, এটা এক প্রকার মানসিক সমস্যা। সাইকোলজিস্ট দেখানো বা ট্রিটমেন্ট এসব করার সিচুয়েশানে নাই এখন, পারব না। একটা ন্যাচারাল বা ঘরোয়া কোনো টিপস দিন, এসব থেকে কিভাবে বের হয়ে আসতে পারি। বহুদিন ধরে এটা আমার মধ্যে কাজ করছে, আমি দিব্যি সুস্থ চলি কিন্তু কাউকে বুঝতে দেই না যে, আমি নিজের সাথে এভাবে ফাইট করে চলেছি। এবং এটা আমার কাজকর্ম,  পড়াশোনা সবকিছুকে বিষিয়ে তুলে। একটা প্রপার ঘরোয়া সমাধান দিন,  Help me plz, এর চেয়ে আর খুলে বলতে পারলাম না।  আমার বয়স ২৪, ভার্সিটিতে পড়ি।

প্রিয় গ্রাহক,জানানোর জন্য ধন্যবাদ। আপনি সবকিছু মিলিয়ে বিষণ্ণতায়ে আছেন বলে মনে হচ্ছে। আমি কিছুটা হলেও বুঝতে পারছি আপনার অবস্থাটা।গ্রাহক, কবে থেকে আপনার এই সমস্যাটি? কি কারনে কাউকে বুঝতে দেন নি বা বলেন নি? কি চিন্তা করে বলেন নি ? সেটা কি আমার সাথে শেয়ার করা যায়? তাহলে আরও ভালো ভাবে আপনাকে হেল্প করতে পারব। আপনার কথা থেকে বুঝতে পারছি কাজ করার ক্ষেত্রে যে ভুল গুলো করছেন বা দেরি হচ্ছে  সেটা আপনি মেনে নিতে পারছেন না।  আপনার মধ্যে তৃপ্তি আসছে না কোন কাজেই। এবং আপনার মধ্যে নেতিবাচক চিন্তা বেশি কাজ করে। তাইকি?বিষণ্ণতা এমন একটি বিসয় যা আস্তে আস্তে আমাদের কে গ্রাশ করে। হঠাত একদিন মনে হবে কোন কিছুই ভালো লাগছে না, কোন কিছু থেকেও নেই, কোন কাজে শান্তি নেই। তবে আপনি যে বিষয়টি র্নিণয় করতে পেরেছেন এর মাদ্ধমেই আপনি সমাধান ও করতে পারবেন। আপনি কি অনেক কাজে নিজেকে জরিয়ে ফেলেছেন? নিজের জন্য আপনি কি সময় দেন? যেমন- ঘুরতে যাওয়া, পছন্দের কোন কাজ করা। যখন আমরা মানসিক ভাবে অতিরিক্ত কোন কিছুতে জরিয়ে যাই তখন এমনটা হতে পারে। তাই আপনি শত কাজের মদ্ধেও নিজেকে সময় দিতে পারেন। এতে আপনার ব্রেইন রেলাক্স হবে। আপনি সহজেই যেকোনো কাজে মনোযোগ দিতে পারবেন। এছারাও কাছের কারও সাথে আপনার অনুভূতি গুলো বলতে পারেন। তাহলে আপনি হাল্কা অনুভব করবেন। কাউকে বলতে না চাইলে ডাইরিতে লিখে রাখত পারেন। আশা করি আপনি উপকৃত হয়েছেন। নিজেকে একা ভাব্বেন না, মায়া আপা আপনার সাথেই আছে। 

পরিচয় গোপন রেখে ফ্রিতে শারীরিক, মানসিক এবং লাইফস্টাইল বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করতে পারেন Maya অ্যাপ থেকে। অ্যাপের ডাউনলোড লিঙ্কঃ http://bit.ly/38Mq0qn


প্রশ্ন করুন আপনিও