ওজন বেশি বেড়ে অনেক সমস্যা দেখা দিতে পারে-১. কোষ্ঠকাঠিন্যওজন বেশি বেড়ে যাওয়ার ফলে কোষ্ঠাকাঠিন্যের মতো সমস্যা দেখা দেয়। কারণ শরীরে অতিরিক্ত চর্বি জমা হলে তা অন্ত্রে জমা হওয়া পায়খানাকে শক্ত করে ফেলে। ফলে পায়খানা করার সময় সমস্যা হয়।২. স্মৃতি শক্তি নষ্ট হওয়াদেহে অতিরিক্ত চর্বি জমা হওয়ার ফলে কোলেস্টেরলের মাত্রাও বেড়ে যায়। আর কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে গেলে মস্তিষ্কের কোষেও ক্ষয় দেখা দিতে পারে। যার ফলে স্মৃতিশক্তি নষ্ট হওয়া এবং ডিমেনশিয়া বা স্মৃতিভ্রংশ ও অ্যালঝেইমার রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে।৩. পিত্তথলিতে পাথরপিত্তথলিতে পিত্তরস, চর্বি এবং কোলেস্টেরল জমা হয়ে পাথর তৈরি হয়। ওজন বেড়ে যাওয়ার ফলে দেহে অতিরিক্ত চর্বি এবং কোলেস্টেরল জমা হয়।ফলে পিত্তথলিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকিও বাড়ে।৪. মাইগ্রেনস্নায়ুতে প্রদাহ হওয়ার কারণে যে মাইগ্রেন বা তীব্র ব্যথা হয় তাও দেহে অতিরিক্ত চর্বির ফলেই ঘটে থাকে। কারণ দেহে জমা হওয়া অতিরিক্ত চর্বি মাথায় অক্সিজেনযুক্ত চর্বি চলাচলে বাধা দেয়। যার ফলে মাইগ্রেনের মতো তীব্র মাথা ব্যথার রোগ হয়।৫. অকাল জন্মদেহের অতিরিক্ত ওজনের কারণে অনেক নারীরই উর্বরতা নষ্ট হয়ে যায়। কারণ অতিরিক্ত ওজন হরমোনগত ভারসাম্য নষ্ট করে দেয়। যে কারণে মোটা নারীরা অনেক সময় অকালে সন্তান জন্ম দেওয়ার ঝুঁকিতে থাকেন।৬. অস্ট্রিওআর্থ্রাইটিসএটি এমন একটি রোগ যার ফলে হাঁটু, গোড়ালি এবং কনুইয়ের তরণাস্থি হাড় শক্ত হয়ে আসে এবং এই জয়েন্টগুলো নাড়াচাড়া করা বেদনাদয়ক ও কঠিন হয়ে পড়ে। বলা হয়ে থাকে যে, দেহের অতিরিক্ত চর্বিই এই সমস্যার জন্য দায়ী। কেননা অতিরিক্ত ওজনের কারণে এসবে জয়েন্টে প্রচুর চাপ পড়ে।৭. প্রস্টেট ক্যান্সারপুরুষদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি দেখা যায় প্রস্টেট ক্যান্সার। যা প্রস্টেট গ্রন্থিকে আক্রান্ত করে। দেহে অতিরিক্ত চর্বি জমা হলে প্রস্টেট প্রন্থি বড় হয়ে যায়। যার ফলে ওই এলাকায় ক্যান্সারজনক কোষ সৃষ্টি হয়। এবং মারাত্মক ধরনের ক্যান্সার হয়।৮. মূত্রাশয়ের ক্যান্সারঅতিরিক্ত ওজনের কারণে পুরুষদের মধ্যে যেভাবে প্রস্টেট ক্যান্সার হয় তেমনি নারীদের মধ্যেও অতিরিক্ত চর্বির ফলে জরায়ুর আকার বেড়ে যায় এবং জরায়ু ক্যান্সার হয়।৯. অন্তঃস্রাবের অভাবএন্ডোক্রাইন গ্রন্থিগুলো হলো এমন কয়েকটি গ্রন্থির সমষ্টি যা থেকে রক্ত এবং দেহের জন্য জরুরি নানা ধরনের কার্যকারিতার হরমোন তৈরি হয়। কিন্তু দেহের ওজন বাড়ার ফলে দেহে অতিরিক্ত চর্বি জমা হলে এন্ডোক্রাইন হরমোনের উৎপাদনে ভারসাম্যহীনতা দেখা দিতে পারে। যার ফলে একাধিক হরমোনগত ভারসাম্যহীনতা সৃষ্টি হতে পারে।১০. ছত্রাক সংক্রমণবেশ কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে, যারা অতিরিক্ত ওজনের সমস্যা বা স্থুলতায় আক্রান্ত হয় তাদের মধ্যে ছত্রাক সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি থাকে। কারণ দেহে অতিরিক্ত চর্বি জমা হলে দেহে বেশি বেশি ঘামও হয়। আর ঘাম থেকে দেহের একাধিক অংশে ছত্রাক সংক্রমণ হতে পারে।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও