প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। আপনার পরিস্থিতি বুঝতে পারছি।আপনার ছোটবোন কে নিয়ে আপনার টেনশন হচ্ছে।টেনশন হবারই কথা,এই সময়টা আসলে অনেক সেনসেটিভ একটা সময়।তিনি এখন বয়ঃসন্ধিকালে আছেন এই সময়টাতে হরমোনের তারতম্যের কারণে এম্নিতেই উনাদের আবেগ অনেক বেশি থাকে।এই ১০-১৯ বছর বয়সী ছেলে-মেয়েরা যেকোন ব্যাপারে অল্পতেই রেগে যায়,নিজে যা করে ভালো মনে করে,নিজেদের শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তনের কারণে তারা এম্নিতেই খুব অস্থির বোধ করে,আর বিপরীত লিংগের প্রতি তাদের আকর্ষণ অনেক বেশি কাজ করে। এই সময়টা তাই অনেক গুরুত্বপূর্ণ সময়।কারণ আবেগের বশে অনেকে বড় ভুল করে ফেলে।এখন আপনার বোনের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখা খুব জরুরী। তাকে বকা-ঝকা করলে সে কোন ভুল করে ফেলতে পারে।তাকে বুঝিয়ে বললে ব্যাপারগুলো হয়ত সে বুঝতে পারবে।তাকে বলুন,অন্যদের সাথে নিজেকে তুলনা করলে,শুধুই হতাশা বাড়বে,তার চেয়ে নিজের কোন কোন ব্যাপারগুলো উন্নতি করা যায়,সেগুলো নিয়ে চিন্তা করা হল বুদ্ধিমানের কাজ।তাকে পরিক্ষায় ভালো করার জন্য এখন থেকেই নিজেকে প্রস্তুত করতে বলুন। পরিবারে তার কাছের মানুষ যে আছে,সে তাকে অনুপ্রাণিত করতে পারে,কোন কারনে তার অসুবিধা হচ্ছে কিনা,তা জিজ্ঞেস করতে পারে। তাহলে সে নিজেকে পরিবারের একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য ভাববে।মাঝে মাঝে তার রাগ মেনে নেতে পারেন,তবে শান্ত হবার পর বলতে পারেন,সে যদি না রেগে তার কথা শান্তভাবে বলে তাহলে আপনাদের খুব ভালো লাগবে।সে যদি এখন কোন সম্পর্কে থাকেও,জোরাজুরি করে তা থেকে তাকে বের করা খুব কঠিন কাজ।তাকে পড়াশুনা আর পরিবারে তার গুরুত্বের কথা সবসময় বুঝিয়ে বলুন,যাতে সে নিজে থেকেই এই ব্যাপারটা অনুধাবন করতে পারে। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও