প্রিয় গ্রাহক আপনার প্রশ্নের জন্য এবং এ বিষয় নিয়ে আপনি সচেতন হয়েছেন যার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আপনার কথা শুনে মনে হচ্ছে আপনি দাম্পত্য সম্পর্কে কোন ধরনের আস্তা অনুভব করছেন না এবং স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে এক ধরনের দূরত্ব তৈরি হয়েছে যা আপনার মানসিক কষ্টের একটি অন্যতম কারণ। গ্রাহক আপনার বয়স, কি করেন, পড়াশুনা কতদূর এবং এই বিষয়টি কবে থেকে শুরু হয়েছে এবং এর পিছনে কোন ঘটনা রয়েছে কিনা তা জানতে পারলে আরো ভালো হতো। আমার কাছে মনে হচ্ছে আপনি যে বিষয়টি নিয়ে কষ্ট পাচ্ছেন আপনি যে আপনার স্বামী কে আপন করে পেতে চাইছেন বা সে আপনার জীবনের সবথেকে ভালো বন্ধু হিসেবে হয়ে থাকলে আপনি অনেক বেশি আনন্দ অনুভব করবেন এবং আপনার সুখ-দুঃখের কথা তার সাথে শেয়ার করতে চাচ্ছেন তা আপনি আপনার স্বামীর সাথে বিষয়টি সহমর্মিতা প্রকাশ করে আলোচনা করতে পারেন এবং খেয়াল করতে পারেন আপনার স্বামীর এই ধরনের আচরণের প্রতি আপনার কোনো আচরণ দায়ী কি না যে আচরণের জন্য আপনার স্বামী কষ্ট পাচ্ছে এ বিষয়টি নিয়ে সচেতন হতে পারেন।এছাড়া একটা সম্পর্ক সুন্দর করার জন্য ভালোবাসা সম্মান শ্রদ্ধা বিশ্বাস এগুলো একে অপরের প্রতি থাকলে সম্পর্কটি অনেক মজবুত এবং মধুর হয় তা নিয়ে আপনার স্বামীর সাথে আলোচনা করতে পারেন এবং প্রয়োজনে কাপল থেরাপি গ্রহণ করতে পারেন।মানসিক স্বাস্থ্যের যত্নের জন্য মাইন্ডফুলনেস মেডিটেশন শরীরচর্চা আপনার শখের চর্চা গুলো আপনাকে কি করতে ভালো লাগতো সেই কাজগুলো করা এবং আপনার নিজের ক্যারিয়ার বা নিজের জীবনের উন্নতির জন্য বিভিন্ন ধরনের পরিকল্পনা গ্রহণ করতে পারেন। এজন্য বিষয়টি নিয়ে আপনার বিশ্বস্ত কারও সাথে আলোচনা করতে পারেন। গ্রাহক প্রয়োজনে আমাদের সাথে আবারো যোগাযোগ করুন ।মায়া পাশে সবসময় আপনাদের পাশে। শুভকামনা রইল আপনার জন্য।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও