প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।এলার্জি থাকে, নতুন খাবার , ধুলা, ফুলের রেনু, গরম ইত্যাদি। এটা জানা জরুরি যে আপনার কি কারণে এলার্জি হচ্ছে? না হলে এর ফলে যে চুলকানি হচ্ছে তা বন্ধ করা মুশকিল।এর জন্য নিচের কিছু নিয়ম মেনে চলতে পারেন -# কোনো খাবার বা নতুন কোনো খাবার খেলে যদি চুলকানি হয় তা লক্ষ্য করা জরুরি এবং সেই খাবার এড়িয়ে চলতে হবে. যেমন - সামুদ্রিক মাছ , চিঙড়ি , বাদাম, গরুর মাংস , ডিম# ঘর যথা সম্ভব ধুলামুক্ত রাখতে চেষ্টা করুন।# বিছানার চাদর নিয়মিত পাল্টাতে হবে. না হলে চুলকানি বাড়তে পারে।# ঘেমে গেলে দ্রুত কাপড় পাল্টে ফেলবেন।# যদি রোদে গেলে চুলকানি বেড়ে যায় তাহলে ফুলহাতা জামা পড়বেন, ছাতা এবং sun screen ব্যবহার করবেন।# ত্বক যাতে শুষ্ক না হয় এই বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে. শুষ্ক ত্বকে চুলকানি বেশি হয়।যদি চুলকানি বেশি হয় তাহলে ডাক্তার এর সাথে যোগাযোগ করতে হবে।চুলকানির সাথে যদি শ্বাসকষ্ট থাকে , শরীর ফুলে যায় , রাশ থাকে তাহলে ডাক্তার এর সাথে দ্রুত যোগাযোগ করতে হবে ।চুল ঘন করতে চাওয়ার আগে দেখতে হবে আপনার চুলের স্বাস্থ্য কি ঠিক আছে কিনা। আপনার চুল যদি আগে থেকেই পাতলা হয়ে থাকে তাহলে নতুন করে সেটা ঘন করা সম্ভব না। তবে চুলের স্বাস্থ্য ঠিক থাকলে চুল ঘন-ই দেখাবে। চুলের স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে আপনাকে কিছু ব্যাপারের দিকে খেয়াল রাখতে হবে। ব্যাপারগুলো হলোঃ ১। নিয়মিত পর্যাপ্ত ঘুম হওয়া ২। নিয়মিত পর্যাপ্ত পানি পান করা ৩। নিয়মিত চুল ও মাথার ত্বক পরিষ্কার করা ৪। ব্যবহার্য জিনিসপত্র যেমন, চিরুনি, তোয়ালে, বিছানা চাদর, বালিশের কভার ইত্যাদি সপ্তাহে ১দিন করে ধুয়ে দেওয়া ৫। সপ্তাহে অন্তত ২/৩ বার হট অয়েল ম্যাসাজ দেওয়া। এই কাজগুলো করে থাকলে চুলের স্বাস্থ্য এমনিতেই ভালো থাকে।চুল ঘন করতে চুলে মেথি বাটা দিতে পারেন সপ্তাহে ১বার। তেল ম্যাসাজ করার সময় তাতে ভিটামিন ই ক্যাপ্সুল দিলে চুল লম্বা ও ঘন হবে।, মাথার ত্বকের যত্নের পাশাপাশি সপ্তাহে ৩ দিন গরম তেল ম্যাসাজ করুন। সপ্তাহে ২ দিন করে মেহেদী বাটা/পেঁয়াজ বাটা মাথার ত্বকে ব্যবহার করুন। এতে চুল পড়া কমবে।আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন,রয়েছে পাশে সবসময়,মায়া আপা ।

পরিচয় গোপন রেখে ফ্রিতে শারীরিক, মানসিক এবং লাইফস্টাইল বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করতে পারেন Maya অ্যাপ থেকে। অ্যাপের ডাউনলোড লিঙ্কঃ http://bit.ly/38Mq0qn


প্রশ্ন করুন আপনিও