প্রশ্ন সমূহ
আর্টিকেল
মায়া ফার্মেসী

মায়া প্রশ্নের বিস্তারিত


প্রিয় গ্রাহক,

আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।

প্রথমেই আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ ও সাধুবাদ
জানাচ্ছি আমাদের কাছে মানসিক সহায়তা চাওয়ার জন্য। আপনার এই পদক্ষেপ প্রমাণ করে যে
আপনি হাল ছেড়ে দেন নাই, আপনি চেষ্টা করছেন নিজেকে সহায়তা করার জন্য। আর কোন
পরিস্থিতি থেকে বের হয়ে আসার জন্য এই ইচ্ছা শক্তি ও সচেতনতার জায়গাটি খুবই গুরুত্ব
পুর্ন।

আমি বুজতে পারছি আপনার পরিস্থিতিটা। আমি
অনুভব করতে পারছি আপনার কষ্টের ও উদ্বেগ এর জায়গাটা।

 কি কারনে আপনি হঠাৎ করে দুঃশ্চিন্তা ও আতঙ্কে পড়ে যান ? আপনি বলছেন যে কোন কারণ ছাড়াই, আপনি কিছুই বুঝতে পারেন না। দেখুন কারণ ছাড়া কোন কিছুই হয় না। হয়ত আপনি কারণটা খুঁজে পাচ্ছেন না, আপনি খেয়াল করে দেখতে পারেন। একবার না হলে আপনি অন্য ভাবে খুঁজে দেখতে পারেন।  আপনি কি কোন কিছু নিয়ে হতাশ, বিষণ্ণ বা দুশ্চিন্তা করছেন? কেউ কি আপনাকে কষ্ট দিয়েছে? আপনার প্রত্যাশা অনুযায়ী হয়নি এমন কিছু কি
হয়েছে
? খুঁজে দেখতে পারেন।
কারণ আপনার স্বাভাবিক হওয়ার জন্য
, যে
কারনে আপনার দুঃশ্চেন্তা বা বা আতঙ্ক লাগে সেটা নিয়ে প্রথমে কাজ করা দরকার।

আমি বুঝতে
পারছি আপনার
অবস্থাটা। আমি
অনুভব করতে
পারছি, আপনি একটা প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্যে
দিয়ে যাচ্ছেন এবং মানসিক ভাবে কষ্টে
আছেন

 

আমাদের জীবনের পথে চলতে
চলতে অনেক
ধরণের অভিজ্ঞতা হয়। কিছু
ভাল, কিছু থাকে মন্দ।
ভাল মন্দ
এই দুটু
নিয়েই আমাদের জীবন। ভাল
অভিজ্ঞতা আমাদেরকে সুখ দেয়, আর খারাপ গুলো আমাদেরকে কষ্ট দেয়।
আমরা চাইলেই খারাপ মুহূর্ত গুলোকে জীবন
থেকে মুছে
ফেলতে পারব
না বা
ভুলেও যেতে
পারবন। তবে
আমরা একটা
জিনিস পারব
আমাদের কষ্ট
গুলোকে কমিয়ে
সেই জায়গাই ভাল কিছু
অনুভূতি নিয়ে
আসতে পারব।
জীবনের অভিজ্ঞতাগুলো,
মানুষ গুলো
থাকবে আমাদের জীবনে, তবে এগুলোকে একপাশে রেখে ভাল
থাকতে পারা, সামনে এগিয়ে
যাওয়া গুরুত্বপুর্ন।

তার জন্য
আপনি কিছু
পদ্ধতি অনুসরণ করতে পারেন

 

নিজের প্রতি
মনোযোগ দিতে
পারেন।

. নিজেকে ব্যস্ত রাখতে
পারেন। কি
কি করতে
আপনার ভাল
লাগে? কি করে আপনি
আনন্দ পান? আপনার পছন্দের কাজ গুলো
কি কি? আপনার জীবনের জন্য কোন
কাজ গুলো
গুরুত্বপূর্ন সেগুলো ভেবে একটা
তালিকা তৈরি
করতে পারেন। এবং সে
অনুযায়ি আপনার
পরবর্তি করনীয়
ঠিক করতে
পারেন। নিজের
প্রতি এবং
আপনার ভবিষ্যৎ জীবনের প্রতি
গুরুত্ব দিতে
পারেন

. আপনার সামাজিক কার্যক্রম বাড়াতে পারেন। আপনার বন্ধু- বান্ধব, আত্নীয়- স্বজন আপনার অন্যান্য কাছের মানুষদের সাথে যোগাযোগ বাড়িয়ে দিতে
পারেন। নতুন
নতুন মানুষের সাথে মিশতে
চেষ্টা করতে
পারেন। এছাড়া
অন্যান্য সামাজিক কার্যক্রম যেমন
গরিব বাচ্চাদের পড়ানো, কাউকে সাহায্য করা ...... 
ইত্যাদি আপনার
পছন্দ , সুযোগ সামর্থ অনুযায়ী চাইলে
করতে পারেন।

. নিয়মিত খাবার খাওয়া, প্রয়োজন মন
ঘুমানো প্রতিদিন একটা
নির্দিষ্ট সময়
শরীর চর্চা
করতে পারেন। এগুলো আপনাকে শারীরিক ভাবে
সুস্থ রাখার
পাশাপাশি মানসিক ভাবেও উদ্যমি রাখতে সহায়তা করবে।

. একটা প্রতিদিনের রুটিন
তৈরি করতে
পারেন এবং
সেটাকে মেনে
চলার অভ্যাস তৈরি করতে
পারেন।

. আপনার করনীয় কাজ
গুলোকে ছোট
ছোট অংশে
ভাগ করতে
পারেন, তাহলে আপনি আপনার
অগ্রগতিটা ভাল
ভাবে বুঝতে
পারাবেন।

. আপনি প্রয়োজন মনে
করলে ভাল
কোন কাউন্সেলিং সাইকোলজিস্ট এর
সাথে কথা
বলতে পারেন, দেখাতে পারেন

১০. এছাড়া প্রয়োজন মনে
করলে "মায়া আপা"  নতুন সার্ভিস হ্যালো
"
মায়া" তে

মানসিক স্বাস্থ্য,
সম্পর্কে জটিলতা, দুশ্চিন্তা অথবা
হতাশা নিয়ে
সরাসরি ফোন
কথা
বলতে পারেন
একজন মানসিক স্বাস্থ্য বিষয় কাউন্সেলরের সাথে

- প্রতিটি ফোন সেশন ৩০ মিনিটের, চার্জ ৫০ টাকা

- আপনার সকল তথ্য গোপন রাখা হবে

- সেশন বুক করতে ইনবক্স করতে পারেন মায়া আপার ফেইসবুক পেইজে



তবে একটা
জিনিস খেয়াল
রাখবেন কারো
জন্য বা
কোন কিছুর
জন্য 
জীবন কখনো
থেমে থাকে
না। জীবন
তার নিজস্ব ছন্দে এগিয়ে
চলে।  

ভালো থাকুন, আর নিজেকে সব থেকে বেশী ভালোবাসুন। কারণ আপনার
থেকে

আপনাকে বেশী
আর কেউ
ভালোবাসতে পারবেনা। 


আপনাকে আবার ও ধন্যবাদ আমাদের কে বলার জন্য
ও আমাদের কাছে সহায়তা চাওয়ার জন্য।

আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।

আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন,

রয়েছে পাশে সবসময়,

মায়া আপা ।



প্রশ্ন করুন আপনিও