Internet Org

মায়া প্রশ্নের বিস্তারিত

স্ট্রোক কেন হয়?না হওয়ার জন্য কি করনীয়?

Internet Org  প্রশ্ন করা হয়েছে Sep 5, 2017

প্রশ্নের কোড নম্বর 356340

Garlic Pran 728x90 adv3

প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।স্ট্রোক সাধারনত মস্তিষ্কের রক্তের সরবরাহে সমস্যার কারনেই হয়। মস্তিষ্কে রক্তের সরবরাহ কম হলে সেটা Ischemic Stroke (ইসকে মিক স্ট্রোক) আবার মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হলে সেটা Hemorrhagic Stroke (হেমোরেজিক স্ট্রোক)।মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ কিংবা আঞ্চলিকভাবে রক্ত চলাচল বন্ধ হওয়া দুই অবস্থাতেই প্রায় একই ধরনের লক্ষ্মণ বা উপসর্গ দেখা যায়। স্ট্রোক হলে সাধারণত যেসব লক্ষণ বা উপসর্গসমূহ দেখা যায় সেগুলো হল, মাথা ঝিমঝিম করা, প্রচণ্ড মাথা ব্যথার সাথে ঘাড়, মুখ এবং দুই চোখের মাঝখান পর্যন্ত ব্যথা হওয়া, হাঁটতে কিংবা চলাফেরা করতে এবং শরীরের ভারসাম্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে সমস্যা হওয়া, কথাবার্তা জড়িয়ে যাওয়া এবং অস্পষ্ট শোনানো, শরীরের একপাশে দূর্বল, অসাড় কিংবা প্যারালাইজড হয়ে যাওয়া, চোখে অস্পষ্ট দেখা, অন্ধকার দেখা কিংবা ডাবল ডাবল দেখা, বমি বমি ভাব কিংবা বমি হওয়া ইত্যাদি।স্ট্রোকের লক্ষণ দেখা দেয়ার সাথে সাথে জরুরি ভিত্তিতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। এছাড়াও কিছু ব্যপারে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে, যেমন- শ্বাস নিতে সমস্যা হলে কিংবা শ্বাস নেয়া বন্ধ হয়ে গেলে মুখে মুখ লাগিয়ে শ্বাস দিতে হবে, বমি হলে মাথা একদিকে কাত করে দিতে হবে, আক্রান্ত ব্যক্তিকে কোন খাবার বা পানি খাওয়ানো যাবে না। এ রকম ক্ষেত্রে, অবশ্যই রোগীর সাথে কমপক্ষে ২ জন হাসপাতালে যাবেন। এতে পরীক্ষা এবং চিকিৎসা সবকিছুই কিছুটা দ্রুত হয়।স্ট্রোক প্রতিরোধের সবচেয়ে ভাল উপায় হলো স্ট্রোকের ঝুঁকি সর্ম্পকে জানা এবং স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন পদ্ধতি মেনে চলা। এই স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন পদ্ধতি হলো:নিয়মিত ব্লাড প্রেসার পরীক্ষা করা এবং উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।অতিরিক্ত চর্বি জাতীয় খাবার খাওয়া যাবে না এবং কোলেস্টরল নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।সঠিক নিয়মে সময়মত এবং সঠিক পরিমানে খাবার খেতে হবে।নিয়মিত ডায়াবেটিস পরীক্ষা এবং সতর্কভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।প্রতিদিন কিছু শারীরিক পরিশ্রম অথবা সময় করে হাঁটা বা হালকা দৌড়াতে হবে।শরীর যেন মুটিয়ে না যায় অর্থাৎ দেহের ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখতে হবে।খাদ্যতালিকায় শাকসব্জী, ছোট মাছ, সামুদ্রিক মাছ, শুটকী মাছ, দুধ, ভূষি সমৃদ্ধ খাবার ইত্যাদি রাখতে হবে।অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা করা যাবে না।ধূমপান থেকে বিরত থাকতে হবে।অ্যালকোহল বা নেশাজাতীয় কোন দ্রব্য সেবন করা থেকে বিরত থাকতে হবে।আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন,রয়েছে পাশে সবসময়,মায়া আপা ।

  উত্তর দেয়া হয়েছে Sep 5, 2017

প্রশ্নের কোড নম্বর 356340


মন্তব্য


পরিচয়বিহীন

সম্পর্কিত নিবন্ধ সমূহ

  • list শিশুকে দুর্ঘটনা থেকে নিরাপদ রাখুনঃ ফার্স্ট এইড
  • list শিশুদের ভালোর জন্য প্রাত্যহিক সূচির গুরুত্ব