প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। সহবাসের মানসিক এবং শারীরিক উভয় দিকই আছে। এর শারীরিক দিক হচ্ছে যখন একজন পুরুষ তার উত্থিত লিংগ স্ত্রীর যোনির অভ্যন্তরে প্রবেশ করে তা হচ্ছে সহবাস। এর জন্য উভয়কেই শারীরিকভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে। বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী সহবাস সম্মতির বয়স ১৮ বছর কেননা এই বয়সের আগে একজন ছেলে ও মেয়ের শরীর সহবাসের ধকল নিতে পারেনা। যদি দুজনের কারও বয়স এর চেয়ে কম হয় তবে এটিকে ধর্ষন বলে গন্য করা হয় এবং এতে করে দুজনকেই জেলে যেতে হতে পারে। আমি কি আপনার সম্পর্কে একটু জানতে পারি, আপনাদের বয়স কত?শারীরিকভাবে প্রস্তুত হবার চেয়েও বেশি গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে সহবাসের মানসিক প্রস্তুতি। এটি একটি অনেক বড় পদক্ষেপ। এই অভিজ্ঞতা যে কারও সাথে করা যায়না, কেননা এর মাধ্যমে দুটি মানুষের আত্মিক একটি যোগ ঘটে। তাই বলা হয়, এমন একজন মানুষের সঙ্গে এটি করতে যাকে আপনি শ্রদ্ধা করেন আস্থা রাখেন এবং তিনিও আপনার প্রতি সেরকম শ্রদ্ধা এবং আস্থা রাখেন। সহবাস যে দুটি মানুষের মধ্যে হচ্ছে তাদের উভয়কেই একে অপরের সঙ্গে মিলিত হবার ইচ্ছা এবং সম্মতি থাকতে হবে। এটি কারও উপর চাপিয়ে দেয়া যাবেনা।ভালোবাসার মানুষের মতামতকে শ্রদ্ধা করাও তার প্রতি ভালোবাসারই বহিঃপ্রকাশ।আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি আর কোন প্রশ্ন থাকলে মায়া আপাকে জানাবেন।রয়েছে পাশে সবসময় মায়া আপা।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও