প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। প্রেগন্যান্সির প্রথম লক্ষণ মাসিক বন্ধ থাকা। আপনি প্রেগন্যান্সি পরীক্ষা করে নিশ্চিত হবেন আপনি প্রেগনেন্ট কি না। মাসিকের তারিখ মিস হওয়ার একদিন পর স্টিক টেস্ট করা যাবে এবং ৮-১০ দিন পর urine টেস্ট করলে প্রেগন্যান্সি রেসাল্ট জানা যায়। বাজারে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের প্রেগন্যান্সি স্টিক পাওয়া যায় ,তাই টেস্ট করার সময় কয়েক ব্রান্ডের প্রেগন্যান্সি স্টিক কিনা উচিত।এছাড়া আল্ট্রাসনোগ্রামের মাধ্যমে নিশ্চিত হতে পারবেন। বাচ্চা নিতে না চাইলে আপনি গাইনি ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী MR/ menstrual regulation করতে পারেন। এ চিকিৎসা র জন্য যে কোনো সরকারি হাসপাতাল, মেরিস্টোপ এ যোগাযোগ করতে পারেন। নিজে কোনো চিকিৎসা করবেন না। এতে করে অতিরিক্ত ব্লিডিং হয়ে রোগী shock এ চলে যেতে পারে। এছাড়া জরায়ু ফুটো হয়ে যাওয়া,অনিয়মিত মাসিক,ইনফেকশন সহ নানা সমস্যা হতে পারে। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও