প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।আপনার খাদ্য এবং ত্বক ও শরীরের সামগ্রিক যত্ন সাথে ব্রন সম্পর্কিত । ব্রণের সুনির্দিষ্ট কোন কারণ জানা না গেলেও সাধারণত  - বয়ঃসন্ধিকালে, হরমোনাল পরিবর্তনের কারনে ব্রন হতে পারে -  বংশগত কারণে, - ঘুম ঠিক মত না হলে ব্রন দেখা দিতে পারে।-constipation  ও  হজমের গোলমাল হলে ব্রন হতে পারে। - সাধারণত তৈলাক্ত ত্বক যাদের তাদের ক্ষেত্রে খুব বেশি পরিমাণ ব্রণ হয়। - মাথার ত্বক ময়লা থাকলে এবং  যাদের মাথায় খুশকি আছে, দেখা যায় তাদের ক্ষেত্রে ব্রন অনেক বেশি হয় । দেখা যায় এসব রোগীদের আমরা কপালে, পিঠে এই জায়গাগুলোতে বেশি পেয়ে থাকি। - তা ছাড়া দেখা যায়, কোনো কারণে সে যদি কোনো ওষুধ খেয়ে থাকে, বহুদিন বিশেষ করে নারীরা যদি জন্মনিন্ত্রক ওষুধ খেয়ে থাকে,-  বা ছেলে বা মেয়ে উভয়ই যদি স্টেরয়েড খেয়ে থাকে,-  বা টিবির জন্য যদি অ্যান্টিটিউবার কুলার ওষুধ সে খেয়ে থাকে, তাহলেও ব্রণ হতে পারে। - এরপর দেখা যায় অনেকের হরমোনের ভারসাম্যহীনতা থাকে, সেক্ষেত্রেও ব্রণ হতে পারে। - থাইরয়েড গ্রন্থিতে সমস্যা থাকে, থাইরয়েডের অকার্যকারিতার কারণে ব্রণ হতে পারে।  - নারীদের ক্ষেত্রে দেখা যায়, ব্রণ আছে, তবে তার অনিয়মিত ঋতুস্রাবের সমস্যা চলে আসে। সেই ক্ষেত্রেও ব্রণ হচ্ছে। - আবার অনেক সময় দেখা যায় অনেকে খুব বেশি তৈলাক্ত খাবার খাচ্ছে, অনেকে আছে খুব চকোলেট খাচ্ছে, সারাক্ষণ বাদাম খাচ্ছে, অতিরিক্ত পরিমাণে খায়, তখনো দেখা যাচ্ছে ব্রণ হচ্ছে।-  আবার কোনো কারণে যদি কেউ খুব মানসিক চাপের মধ্যে থাকে, তাহলে দেখা যায় যদি কারো অল্প থেকে থাকে সেটি বেড়ে যায়। এসব বিভিন্ন কারণে আমরা ব্রণ দেখতে পাই ।আপনার যদি অনেক ব্রন হয় তাহলে নীচের কাজগুলো করুন :--তেল- চর্বিযুক্ত খাদ্য এবং দুগ্ধ পণ্য খাওয়া এড়াতে হবে। - এছাড়াও চকলেট না খাওয়া ভাল। - নিয়মিত অনেক পানি পান করুন(৮ গ্লাস প্রত্যেকের জন্য নূন্যতম প্রয়োজন হয়)এবং -সম্ভব হলে ডাবের পানি খাবেন। একটি তুলো ডাবের পানি তে ভিজিয়ে আপনার মুখ টা মুছে নিন, প্রতিদিন সকালে বা গোসল এর আগে। এটি প্রাকৃতিকভাবে ব্রন সম্পর্কিত দাগ দূর করতে সাহায্য করে। -যদি সম্ভব হয়, নিম পাতা এবং তাজা কাঁচা হলুদ এবং কালো জিরা মিশিয়ে প্রতিদিন সকালে খুব অল্প পরিমান এ খাবেন । -এছাড়াও constipation ও হজমের সমস্যার ফলে ব্রন হতে পারে। নিম, কাঁচা হলুদ ও কালো জিরা আপনার পেট এর জন্য খুব ভাল এবং আপনার পরিপাকতন্ত্র কে পরিষ্কার রাখবে । - নিয়মিত ব্যায়াম করলে আপনার ত্বক এর ছিদ্র গুলো খুলে যাবে এবং আপনার রক্তচলাচল বেরে যাবে। তবে ঘেমে গেলে আবার ত্বক এ ময়লা জমতে পারে তাই এক্সারসাইজ এর পর গোসল করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। - গ্রাহক আপনার কি পর্যাপ্ত ঘুম হয়? ঘুম ঠিক মত না হলে ব্রন দেখা দিতে পারে। রাতে কমপক্ষে ৭-৮ঘন্টা ভালভাবে ঘুমান- সপ্তাহে অন্তত ১ বার আপনার তোয়ালে, বিছানা চাদর, বালিশের কভার, চিরুনি, মেকাপ ব্রাশ- এধরণের জিনিসগুলো ধুয়ে দিন - অবশ্যই নিয়মিত ত্বক এবং মাথার ত্বক পরিষ্কার করবেন। মাথার ত্বক ময়লা থাকলেও ব্রণ হয় ।সপ্তাহে ২-৩ বার চুল শ্যাম্পু করুন এবং দিনে অন্তত ২ বার মুখ ধুবেন ।-  যদি কিছু নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকেন তবে সেটা কমানোর চেষ্টা করুনতবে জেনে রাখা ভাল যে ঔষধ স্বল্পমেয়াদী সাহায্য করতে পারে,তবে যদি একটি দীর্ঘমেয়াদী সমাধান চান তাহলে আপনার জীবনধারা পরিবর্তনের চেষ্টা করুন.আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন,রয়েছে পাশে সবসময়,মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও