ধন্যবাদ গর্ভাবস্থায় অনেক সময় ধরে পা ঝুলিয়ে বসে থাকা যাবে না। এতে পা ফোলার পরিমান আরো বেড়ে যেতে পারে। তাই দীর্ঘক্ষণ পা ঝুলে বসে থাকা এড়িয়ে চলুন। অনেক সময় ধরে দাঁড়িয়ে থাকাঃগর্ভবস্থায় একইভাবে অনেক সময় ধরে দাঁড়িয়ে থাকা এড়িয়ে চলতে হবে। কারণ এতে শরীরের নিচের দিকে জলীয় অংশ বেশি প্রবাহিত হতে থাকে, যার ফলে পা ফোলে ওঠে। লবণ খাওয়ার পরিমাণ কমিয়ে দেয়াঃ গর্ভাবস্থায় পা ফোলা থেকে রেহাই পেতে লবণ খাওয়ার পরিমাণ কমিয়ে দিতে হবে। কারণ লবণ শরীরে পানি ধরে রাখে। তাই বলে একেবারেই লবণ খাবেন না তা কিন্তু নয়, কারণ শরীর সঠিকরূপে চালনা করতে লবণের একটি নির্দিষ্ট পরিমাণের প্রয়োজন রয়েছে। সুষম খাদ্য গ্রহণঃ গর্ভাবস্থায় সুষম খাদ্যও পা ফোলা কমাতে সাহায্য করে। এটি এমন একটি বিষয়, যা শুধু গর্ভাবস্থায় নয় সবাইকে মেনে চলা উচিৎ। ঢিলেঢালা পোশাক পরাঃ জিন্স বা ট্রাউজারের মত টাইট পোশাক পায়ের ওপর চাপ বৃদ্ধি করে, এটি ঘুরেফিরে ফের সেই পা ফোলায়। তাই টাইট পোশাক পরা এড়িয়ে চলুন। একইভাবে অনেক সময় ধরে শুয়ে থাকা যাবে নাঃ গর্ভাবস্থায় একই জায়গায় একইভাবে অনেক সময় ধরে শুয়ে থাকবেন না। তাহলে শরীরের একটি নির্দিষ্ট অংশে পানি জমে সেই অংশটা ফুলিয়ে দিতে পারে। একইভাবে শুয়ে বা বসে না থেকে মাঝে মাঝে স্থান পরিবর্তন করুন। নিয়মিত চেকআপঃ গর্ভাবস্থায় নিয়মিত চেকআপ করা জরুরি। পা ফোলে গেলে উচ্চ রক্তচাপ, রক্তশূন্যতা, থাইরয়েডের সমস্যা ইত্যাদি আছে কি না, তা নিশ্চিত করতে হবে। 

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও