প্রিয় গ্রাহক আপনি বিদেশে যেতে চাচ্ছেন কিন্তু আপনার মনে হচ্ছে যে আপনার বাবা আপনাকে যেতে দিবেন না।গ্রাহক আমার সাথে কি শেয়ার করা যায় যে আপনার কেন মনে হচ্ছে যে আপনার বাবা আপনাকে যেতে দিবেন না? আপনি কি তার সাথে এই বিষয়ে কথা বলেছেন? তিনি কি আপনাকে যেতে না করছেন? গ্রাহক আমরা বেশিরভাগ সময়ই ভবিষ্যতের একটি চিত্র কল্পনা করে আমাদের মনের মধ্যে একটি নেতিবাচক ধারণা তৈরি করে নেই। কিন্তু সত্যিকার অর্থে আমরা কিন্তু জানিনা যে সেই ধারণা তাই সত্যি। কিন্তু কল্পনার সেই নেতিবাচক ধারণা নিয়ে ভাবতে ভাবতে আমরা মনের মধ্যে দুশ্চিন্তা অনুভব করি।তাই ভবিষ্যতের দিকে চিন্তা না করে আপনি যদি বর্তমানে থাকার চেষ্টা করেন তবে সেটা কিন্তু আপনার দুশ্চিন্তা কমাতে অনেক বেশি সাহায্য করবে।আর আপনার মনে যখন দুশ্চিন্তা থাকবে না তখনই আপনি আপনাকে ইচ্ছে গুলো অন্য একজনকে বোঝাতে গেলে নিজের আত্মবিশ্বাস ধরে রেখে যুক্তি সহকারে বুঝাতে পারবেন।এবং যখন আপনি তাকে বুঝাবেন তখনই কিন্তু আপনি আশা করবেন যে তিনি আপনার কথা বুঝতে পারবেন।কিন্তু বুঝাতে যাওয়ার আগেই যদি আপনি দুশ্চিন্তা অনুভব করেন তখন কিন্তু আপনার মনে ভয় কাজ করে আপনি আপনার কথাগুলো অপরের কাছে যুক্তি দিয়ে খুব সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করতে পারবেন না। তাই ভবিষ্যতে কি হবে, তিনি আপনার কথা মানবেন কি মানবেন না এই বিষয়গুলো চিন্তা না করে তাকে কিভাবে সুন্দর করে বলা যায় যারা তিনি মেনে নেয় সেই বিষয়টা চিন্তা করা কি যুক্তিযুক্ত নয়? আপনি কি ভেবে দেখতে পারেন। বর্তমান নিয়ে চিন্তা করলে আমরা সবচেয়ে বেশি থাকতে পারি। আর বর্তমানে কাকে বলা হয় মাইন্ডফুল থাকা।বর্তমানে উপস্থিত থাকার অথবা মাইন্ডফুলনেস প্র্যাকটিস করার একটি মজার উপায় হলো ৫-৪-৩-২-১ টেকনিক। যখনই মনে হবে আপনার চিন্তাগুলো লাগামহীন হয়ে যাচ্ছে *****আপনি ৫টি এমন জিনিস খুঁজে বের করুন, যা আপনি বর্তমানে যেখানে বসে আছেন সেখানে বসে থেকে দেখতে পাচ্ছেন এবং জিনিসগুলোর নাম নিন ** ৪টি এমন আওয়াজ শনাক্ত করতে চেষ্টা করুন যা আপনার কানে আসছে এবং তা কিসের আওয়াজ বোঝার চেষ্টা করুন ***৩টি এমন জিনিস ছুঁয়ে দেখুন, সেগুলো কেমন তা অনুভব করুন **আপনি যেখানে বসে আছেন, সেখানে বসে থেকেই আপনার নাকে আসছে এমন ২টি গন্ধ খুঁজে বের করার চেষ্টা করুন * ১টি স্বাদ গ্রহণ করুন, অনুভব করার চেষ্টা করুন গ্রাহক আপনার কি বিষয়ে দুশ্চিন্তা হচ্ছে তা লিখে ফেলতে পারেন।বিষয়গুলো থেকে আপনার কি দুশ্চিন্তা হচ্ছে তাও লিখে ফেলতে পারেন।চিন্তাগুলো থেকে কি ধরণের অনুভূতি হচ্ছে তাও লিখে ফেলতে পারেন।এবার চিন্তাগুলো কতটা বাস্তবিক বা অবাস্তবিক তা ভেবে দেখতে পারেন।যদি অবাস্তবিক হয় তবে এর বাস্তবিক চিন্তা কি তাও ভেবে দেখতে পারেন।এছাড়াও আপনি রিলাক্সেশান টেকনিক ব্যবহার করতে পারেন।অতিরিক্ত চিন্তার সময় নিজেকে relax রাখার জন্য relaxation বা deep breathing করতে পারেন। মেডিটেশন বা Relaxation হল এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে শরীরকে শিথিল করা যায়। মানসিক ভাবে প্রাশান্তি লাভ করা যায়। দুচিন্তা,রাগ, আবেগ, হতাশা থেকে কিছুটা মুক্তি পাওয়া যায়। এর মাধ্যমে দীর্ঘ নিঃশ্বাস নেওয়ার ফলে মস্তিস্কে বিশুদ্ধ অক্সিজেন প্রবেশ করে মস্তিস্ককে অনেক শিথিল করে যার ফলে পরবর্তীতে আর ও ভাল ভাবে সমস্যা নিয়ে চিন্তা করা যায়।নিম্নের ভিডিও লিঙ্ক টি দেখলে আপনি মেডিটেশন বা relaxation সম্পর্কে আরও ভাল করে জানতে পারবেন। https://m.youtube.com/watch?v=6IvCEvdwxQs ধন্যবাদ।মায়া।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও