গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। আপনার প্রশ্ন গুলো সাজায় তবে ইস্যু টা এমন হতে পারে। আপনার দুশ্চিন্তা হচ্ছে এর ফলে আপনার নিজের প্রতি আস্থা কমছে ও মনোযোগ থাকছে না, তাই কি? আপনি নিজের চিন্তা নিয়ে সচেতন যা ইতিবাচক। আপনার এই সচেতনতা আপনাকে সাহায্য করবে ইস্যু থেকে বের হয়ে আসতে। আপনার অন্যান্য ইস্যুর প্রধান উৎস দুশ্চিন্তা আমি যতটুকু বুঝতে পারছি, আমি কি ঠিক বলছি? যদি দুশ্চিন্তা মেইন কারণ হয় তাহলে আপনাকে ভেবে দেখতে হবে এই দুশ্চিন্তা কি কি নিয়ে। দুশ্চিন্তা হয় নেতিবাচক চিন্তা থেকে। চিন্তা একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। চিন্তা আসবে এবং কিছুক্ষণ পরে চলে গিয়ে অন্য চিন্তা আসবে,এটাই স্বাভাবিক। চিন্তার ফলেই আমরা সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম হই,সৃজনশীল কাজ করতে পারি। যেসব চিন্তার ফলে দৈনন্দিন জীবনের কাজে ব্যঘাত ঘটে, সামাজিক যোগাযোগে বাঁধা সৃষ্টি হয়, পেশাগত জীবনে সমস্যা তৈরি হয় তখন এই চিন্তা হয়ে যায় দুশ্চিন্তা যার জন্য সচেতন হতে হবে। এমন হলে দুশ্চিন্তার কারণ খুঁজে  কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করা যেতে পারে যার ফলে চিন্তাকে স্বাস্থকর উপায়ে প্রয়োগ করা যাবে, যেমনঃ মানসিক চাপ কমিয়ে স্থির হওয়া, ইতিবাচক চিন্তা করা, নতুন নতুন কাজে আনন্দ নিয়ে যুক্ত থাকা, মেডিটেশন করা,ইত্যাদি। ইতিবাচক চিন্তার ফলে কষ্ট কমে আসে তবে নিয়মতি অনুশীলনের মাধ্যমে তা ধীরে ধীরে অর্জন হয়। একদিনেই সম্ভব নয়। ধন্যবাদ আপনাকে।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও