আমি একজন সরকারি চাকরিজীবী।আমার বয়স 35 বছর। আজ থেকে 17 বছর আগে আমি একটি মেয়েকে ভালোবাসতাম এখনো বাসি।তবে আমি বিয়ে করেছি আজ 13 বছর  হল।বিয়ে করলেও সেই মেয়েটিকে আমি আজও ভুলতে পারিনি।মেয়েটির বিয়ের বয়স 14 বছর ওদের সংসারে কোনো সন্তান নেই। কয়েকদিন ধরে মেয়েটির সাথে আমার যোগাযোগ হচ্ছে বলতে পারেন প্রায় 13 বছর পরে যোগাযোগ হচ্ছে। সেদিনকার আমার ভালোবাসা মেয়েটি আজ বুঝতে পারছে। আজ সে আমার ভালোবাসা বুঝতে পেরে আমার কাছে আসতে চাচ্ছে। আমারও মন চায় তাকে আবার কাছে পেতে কিন্তু আমিও বিবাহিত সেও বিবাহিত, দুটো সংসার। ভেবে পাচ্ছিনা কি করা উচিত বা  কি করব। তবে আমি একটু বেশি ভালোবাসি তাকে।এদিকে আমার স্ত্রী আমাকে আবার প্রচন্ড ভালোবাসে।আমার দুটি সন্তান রয়েছে। এই অবস্থায় আমার কি করা উচিত আশা করি পরামর্শ দিয়ে বাধিত করবেন।

গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। আপনি বর্তমানে স্ত্রী এবং প্রাক্তন প্রেমিকার মাঝে কার সাথে থাকবেন তা নিয়ে দ্বিধায় আছেন, এমন কি?আপনার কথা পড়ে মনে হচ্ছে আপনি বর্তমান স্ত্রীর থেকে পূর্বের সেই মেয়েটিকে ভালোবাসেন। কারণ হচ্ছে আপনি বলছেন আপনি সে মেয়েটিকে ভালোবাসেন আর আপনার স্ত্রী আপনাকে। আপনি স্ত্রীকে ভালোবাসেন এটা বলেননি।এখানে অনেকগুলো দিক ভেবে দেখার আছে। যেমনঃ আপনার বর্তমান সম্পর্ক, পরিবার, সন্তান, সামাজিক ও পেশাগত জীবন। আপনার সিদ্ধান্তের সাথে প্রতিটি জড়িয়ে আছে। যে আপনাকে পুর্বে বুঝতে পারেনি বর্তমানে হঠাৎ বুঝতে পেরে কাছে আসতে চাইছে এর কারণ কি কি হতে পারে তার বাস্তব ও যৌক্তিক চিন্তা করে দেখতে পারেন।বর্তমানে আপনার স্ত্রী এবং সন্তানের উপর কি রকম প্রভাব পড়তে পারে আপনার কোন সিদ্ধান্ত তা ভেবে দেখা জরুরি। আপনার স্ত্রীর যে বিশ্বাস, শ্রদ্ধা আপনার প্রতি, ভালোবাসা এবং প্রতিশ্রুতি সে বিষয়গুলো অটুট থাকবে কিনা এবং তিনি কিভাবে নিবেন যদি আপনার মনের এ কথাগুলো জানতে পারেন তা চিন্তা করা।অতীতে অনেক কিছু ঘটতে পারে এবং সম্পর্ক থাকতে পারে যা স্বাভাবিক। তবে সে সম্পর্কের রেশ ধরে বর্তমানের জীবনকে আপনি কিভাবে রাখবেন তা আপনার হাতে। বর্তমানে আপনি স্ত্রীর সাথে সুখী আছেন কিনা এবং সে মেয়েটিকে কাছে পেলেও আপনি ভালো থাকবেন কিনা সেসব ভেবে দেখতে পারেন। যেহেতু আপনারা দুজনেই বিবাহিত আপনাদের সাথে দুটো পরিবার, আপনার সন্তানের বর্তমান ও ভবিষ্যৎ জড়িত একই সাথে আপনাদের সামাজিক অবস্থায় কি রকম প্রভাব পড়তে পারে তার বিশদ চিন্তা করে দেখতে পারেন কিভাবে থাকলে সমস্যা সৃষ্টি কম হবে এবং আপনি মানসিকভাবে স্বস্তিতে থাকতে পারবেন।আশা করি আপনাকে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য যেদিক গুলো নিয়ে ভেবে নেওয়া জরুরি তা তুলে ধরে সহযোগিতা করতে পেরেছি, ধন্যবাদ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও