প্রিয় গ্রাহক আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। আপনি সবকিছুতেই অনেক বেশি চিন্তা করেন।অভার্থিনকিং অনেক সময় আমাদের অনেক সমস্যার মধ্যে ফেলে দেয়। আপনি নিচের কিছু বিষয় চেষ্টা করতে পারেন ১। প্রথমেই আপনাকে বেশ খানিকটা সচেতন হতে হবে। অনেকে নিজেরাও হয়তো বুঝতে পারেন না যে, তাঁরা অতিরিক্ত চিন্তা (over thinking) করেন। তাঁদের কাছে হয়তো এটাই খুব স্বাভাবিক একটি বিষয়, কিন্তু ধীরে-ধীরে যে বিনা কারণে দুশ্চিন্তা করার স্বভাব তাঁদের অবসাদের দিকে নিয়ে যাচ্ছে, এই কথাটা যখন তাঁরা বুঝতে পারেন, তখন তাঁরা অলরেডি অবসাদগ্রস্ত (depression) এবং ফিরে আসার কোনও পথ থাকে না। কাজেই সময় থাকতে সচেতন হন।   ২। অন্যের প্রতি সহানুভূতিশীল হন। অনেকেই এটা ভেবে দুশ্চিন্তা করেন যে, তাঁর জীবনের সমস্যার চেয়ে বড় আর জটিল সমস্যা বোধহয় আর কারও জীবনে নেই। কখনও-কখনও অন্য কারও সমস্যার কথাও মন দিয়ে শুনুন। নতুন মানুষের সঙ্গে মিশুন, তা হলেই বুঝতে পারবেন যে আপনার সমস্যাটা কত ছোট। তবে অন্য কারও সমস্যার কথা শুনে আবার সেটা নিয়ে দুশ্চিন্তা করতে বসে যাবেন না যেন!   ৩। পৃথিবীর সব দায়িত্ব আপনার ঘাড়ে নয়, বা অন্য কারও জীবনে কোনও ঘটনার জন্য আপনি দায়ী নন, এই সত্যটা মানতে শিখুন। বুঝিয়ে বলি তা হলে। আপনার প্রতিবেশীর ছেলে কেন পরীক্ষায় ভাল ফল করল না বা অমুক আত্মীয়ের মেয়ের এখনও কেন বিয়ে হল না, এসব ভেবে আপনি কেন নিজের মন ও শরীরকে ব্যস্ত করবেন? কিছু-কিছু বিষয় থাকে যা আমাদের হাতে থাকে না এবং সেগুলো নিয়ে আপনি যতই চিন্তা করুন না কেন, লাভ কিছুই হবে না। ৪। যে কাজগুলো করতে আপনি পছন্দ করেন, সেই কাজগুলো আবার শুরু করুন। হয়তো আপনি কোনও এক সময়ে ছবি আঁকতে খুব পছন্দ করতেন বা ভাল গান গাইতেন বা আবৃত্তি করতেন, কিন্তু এখন সময়ের অভাবে বা অন্য কোনও কারণে এখন আর সেই কাজগুলো করা হয়ে ওঠে না। নিজেকে একটু মোটিভেট করে আবার পছন্দের কাজগুলো করতে শুরু করুন। দেখবেন, দুশ্চিন্তা (over thinking) করার জন্য যে সময়টা প্রয়োজন, সেটা আর পাচ্ছেন না। ৫। জীবনে একটা রুটিন মেনে চলুন। সময়ের কাজ সময়ে করুন। নিয়মিত ব্যায়ম করুন, না পারলে নিদেনপক্ষে সকালে বা বিকেলে একটু ছাদে হাঁটতে পারেন। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। ধন্যবাদ। মায়া।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও