ধন্যবাদ গ্রাহক।আপনার বয়স কত? কতদিন ধরে আপনার এই সমস্যা হচ্ছে ? আপনার কি উচ্চরক্তচাপ আছে ? আপনার কানে কোন সমস্যা আছে ? আপনি কি কোন ওষুধ খান ? আপনার অন্যকোন শারীরিক সমস্যা আছে, যেমন - ডায়াবেটিস ? আমাদের জানান গ্রাহক, আপনার এই সমস্যাটি বিভিন্ন কারনে হতে পারে। যেমনঃ- রক্তচাপ হঠাৎ খুব কমে গেলে বসা থেকে উঠে দাঁড়ালে ঘুরে যেতে পারে। এক বলে পশ্চুরাল হাইপোটেনশন।- অপুষ্টি, রক্তাল্পতা- কিছু ওষুধের প্রতিক্রিয়া- মাথা ঘোরার সাধারণ আরেকটি কারণের মধ্যে আছে, বিপিপিভি বা বিনাইন পার-অক্সিসমাল পজিশনাল ভার্টিগো, যাতে মাথা একটা নির্দিষ্ট অবস্থানে নিলে মাথা ঘোরার অনুভূতি হয়। অবস্থান পরিবর্তন করলে তা সেরে যায়। সাধারণত ক্যালসিয়ামযুক্ত কিছু পাথরসদৃশ ক্ষুদ্র কণা অন্তঃকর্ণের নালিতে ঢুকে গেলে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়। কণা সরে গেলে বা বের হয়ে গেলে ভার্টিগোর অনুভূতি থাকে না। তবে ক্যালসিয়ামের পাথর ছাড়াও বিপিপিভি হতে পারে, বিশেষ করে বয়স্ক মানুষের ক্ষেত্রে।- অনেকক্ষণ না খেয়ে থাকলে, ডায়াবেটিক রোগী বেশি ইনসুলিন নিয়ে ফেললে বা খালি পেটে ইনসুলিন নিলে রক্তে সুগার কমে গিয়ে মাথা ঘুরতে থাকে।- ঘাড়ের স্পন্ডাইলোসিস খুব বেড়ে গেলে অনেক সময় ব্যালান্সের সমস্যা হয়।- রক্ত দেখলে বা একটানা দাঁড়িয়ে থাকলে। একে বলে ভেসোভেগাল অ্যাটাক।ভার্টিগোর লক্ষণ কয়েক সেকেন্ড থেকে শুরু করে কয়েক দিন পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে। একবার সেরে আবারও হতে পারে। কারো কারো বারবার হতে পারে। এরজন্য কিছু নিয়ম মেনে চলুনঃ * অবস্হান বদলানোর সময় ধীরে ধীরে অবস্থান বদলাবেন ।* সাধারণত বিশ্রাম নিলে সাময়িক সময়ের ভার্টিগো সেরে যায়। কোনো ওষুধ ছাড়াই সেরে যায়। যেগুলো এমনিতেই সেরে যায় না তার চিকিৎসা নির্ভর করে কারণের ওপর।সেক্ষেত্রে আপনাকে একজন নাক,কান,গলার বিশেষজ্ঞের সাথে দেখা করে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা নিতে হবে ।মাথা ঘোরা থেকে মুক্ত থাকতে :- * অতিরিক্ত লবণ ও চর্বিযুক্ত খাবার পরিহার করতে হবে* ধূমপান ও অ্যালকোহল বর্জন করতে হবে* পর্যাপ্ত পানি পান করতে হবে* কানের যেকোনো সমস্যায় দ্রুত চিকিৎসা নিতে হবে।এরপর ও সমস্যা থাকলে একজন মেডিসিন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।সাদা স্রাব সাধারণত মেয়েদের যোনিপথ পরিষ্কার রাখার কাজ করে। খেয়াল রাখুন এটা স্বাভাবিকের চেয়ে বেশী কিনা। তবে অনেক সময় স্বাভাবিক ভাবেই বেশী বেশী সাদা স্রাব যেতে পারে। যেমন- বয়সন্ধিরসময়, ovulation এরসময়, যৌন উত্তেজনার সময়, প্রেগন্যান্সির সময়, জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি খেলে, ইত্যাদি। আবার অনেক সময় যোনি মুখ বা যোনি পথের কোন সুপ্ত রোগ থাকলে ও সাদা স্রাবের পরিমান বেড়ে যেতে পারে। এর সাথে যদি যোনিপথে চুলকানি, জ্বালাপোড়া থাকে, দুর্গন্ধ থাকে, থকথকে ঘন স্রাব হয়, তাহলে বুঝবেন আপনার কোন ইনফেকশান হয়েছে। সবচেয়ে কমন হচ্ছে vaginal candidiasis (এক ধরনের ছত্রাক সংক্রম)। সেক্ষেত্রে আপনার অবশ্যই একজন গাইনি ডাক্তারের সাথে দেখা করে anti fungal ঔষধ খেতে হবে এবং মলম লাগাতে হবে। সাদা স্রাব যদি আপনার কাছে সমস্যা মনে হয়, তাহলে প্রথমেই কাজ হবে আপনার যৌনাঙ্গ পরিষ্কার রাখা এবং নিজের স্বাস্থ্য ভালো করা। প্রতিবার প্রস্রাব করার পর কুসুম গরম পানি দিয়ে যৌনাঙ্গ পরিষ্কার করতে হবে. ব্যবহার করা পায়জামা ও অন্যান্য কাপড় সবসময় পরিষ্কার করে ধুয়ে ভালো মত রোদে শুকাতে হবে এবং যদি উপরে উল্লেখিত বিষয় গুলো বুঝতে পারেন, তাহলে অবশ্যই একজন গাইনি ডাক্তারের সাথে দেখা করবেন সমস্যাটি নিয়ে। পরীক্ষা করে সঠিক কারন বের করে এর চিকিৎসা করা হয়।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও