গ্রাহক, পাকস্থলির খাবার ও এসিড যদি শরীরের ওপরের দিকে স্বরযন্ত্র ও গলার মধ্যে উঠে আসে তখন গলার স্বর বসে যেতে পারে বা বিরক্তিকর কাশি বারবার হয়। একে রিফ্লাক্স বলে। গ্রিক এ শব্দের অর্থ হচ্ছে ‘উল্টো প্রবাহ’।যাদের রিফ্লাক্স থাকে তাদের মধ্যে সবার বুকজ্বলা বা হজমের অসুবিধা নাও থাকতে পারে। এজন্য একে সুপ্ত রিফ্লাক্স বলা হয়। এর কারণ হচ্ছে যে পদার্থগুলোর রিফ্লাক্স হয় তারা খাদ্যনালিতে বেশিক্ষণ থাকে না এবং পাকস্থলির এসিডও খাদ্যনালিতে বেশিক্ষণ প্রদাহ করতে পারে না। এ জন্য বুকজ্বলা উপসর্গ হয় না। এ জন্য গলার মধ্যে চাকার মতো একটি বোধ হয়, একে গ্লোবাস ফেরিনজিস বলে।কেউ কেউ বলেন, গলায় কিছু চেপে বসে আছে অথবা গলার শ্লেষ্মা এমনভাবে জমে আছে যে কফের সাহায্যেও পরিষ্কার করতে পারছেন না। তবে অনেকদিন ধরে গলার স্বর বসা থাকলে, বারবার গলা পরিষ্কার করা বা কাশি হলে, ঢোক গিলতে অসুবিধা হলে নাক, কান, গলা বিশেষজ্ঞকে দেখিয়ে গলার অ্যান্ডোসকপি করা লাগতে পারে। এই রোগের চিকিৎসা কয়েক মাস থেকে বছরব্যাপী নিতে হয়। ধূমপান ও অ্যালকোহল পান না করা, টাইট জামা না পরা, খাবার পর পরই না শোয়া, চর্বিযুক্ত খাবার না গ্রহণের মাধ্যমে সমস্যার তীব্রতা কমানো সম্ভব।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও