আপা, আমার বয়স ২৩ বছর,আমি গত চার মাস আগে  গ্যাসট্রিক এর ব্যাথায় অসুস্থ হয়ে  পরি, তার পর তাৎক্ষণিক ভাবে একজন  উপসহকারি ডাক্তার এর  চিকিৎসা নিয়ে মোটামুটি সুস্থ হই,পুরোপুরি সুস্থ না হওয়ায় আমি একজন গ্যাসট্রোলজি ডাক্তার এর কাছে যাই, তার পর আলট্রা স্নো +এইচবিএস+এনডোজকপি করাই, তাতে রিপোর্ট ভালো আসে,ডাক্তার কিছু মেডিসিন দেয় সেটা শুরু করি,৭দিন পর  লকডাউন শুরু হয়ে গেলো আর আমি তখন ও সুস্থ হতে পারি নাই, এর পর সারজেল২০এমজি,লো সেকটিল মাপস ২০এমজি,  সিরাপ মারলক্স প্লাস,গ্যাভিসল,নোবেলটা প্লাস, ৩ ফাইল করে খাই, তাতেও আমি সুস্থ হই নি,১৫ দিন, জাউ খেয়েছি +ম্যাক্সিমা প্লাস  ইনজেকশন  ১০ টা নিয়েছি, এখনো সুস্থ হতে পারি নাই, (খাবার চাহিদা মত খেতে পারতেছি না, একটু খেলেই  জালাপোরা, +অসস্থি  লাগে, পায়খানা  মাঝে মাঝে ঠিক থাকে আবার পাতলা ও হয়, এব মলদ্বার ব্যাথা লাগে + পায়খানার পরে রক্ত পরে, এজন্য বাথরুমে বেশি সময় থাকি না) আমার কি করনীয়?????

আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।আপনার কি মলত্যাগের সময় ব্যথাহীন রক্তপাত, চুলকানি বা অস্বস্তিকর জ্বালাপোড়া, মলদ্বারে ব্যথা, পায়ুপথের বাইরের দিকে ফোলা বা বেরিয়ে আসা অনুভব করা, বা চাকার মতো অনুভূতি হয়?⇒ একটি গামলায় কুসুম গরম পানি নিয়ে প্রতিবার মল ত্যাগের পর ১০--২০ মিনিট বসে থাকবেন।⇒ বেশি ফুলে গেলে বরফ দিতে পারেন।⇒ চিকিৎসকের পরামর্শে নিয়মিত মলম ব্যবহার করুন।⇒ প্রদাহ বা সংক্রমণের দ্রুত চিকিৎসা নিন।⇒ প্রতিদিন প্রচুর আঁশযুক্ত সবজি, ফলমূল ও খাবার গ্রহণ করবেন; মাংস, কম আঁশ ও বেশি চর্বিযুক্ত খাবার, ফাস্টফুড ইত্যাদি পরিহার করুন। প্রচুর তরল ও দিনে ছয়-সাত গ্লাস পানি পান করুন।⇒ কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসা করুন, মলত্যাগে কখনো বেশি চাপ প্রয়োগ করবেন না, আটকে রাখবেন না।⇒ ওজন নিয়ন্ত্রণ করুন, নিয়মিত ব্যায়ামে কোষ্ঠকাঠিন্য কমে।মনে রাখবেন, এটি জটিল কোনো রোগ না হলেও একটি দীর্ঘমেয়াদি সমস্যা। কিন্তু নিয়ম মেনে চললে দ্রুত আরোগ্য লাভ করা যায়।আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও