প্রিয় গ্রাহক,শুভ সকাল ।আপনার মনের অনুভূতি গুলো শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ। আপনি বলেছে আপনার সব সময় মেজাজ খিটখিটে থাকে। মেজাজ খিটখিটে হওয়ার পিছনে অনেক কারন থাকতে পারে। যেমনঃ                                                                                                                                           ১। মানসিক চাপের কারণে অনেক সময় মেজাজ গরম থাকতে পারে। আপনি কি কোন বিষয় নিয়ে মানুষিক চাপে আছেন? কাজের প্রেসার কি বেশি যাচ্ছে?                                                                                                                                                                                                                 ২।  শারীরিক কোনো সমস্যার কারণেও কিন্তু মেজাজ খিটখিটে থাকতেপারে।                                                                                                                                                                                                                                                                                                      ৩। ভাল ঘুম না হলেও মেজাজ খিটখিটে থাকতে পারে।                                                                                                                                                                                                                          ৪। ভিটামিন ডি এর অভাব: নিয়মিত সূর্যের আলোর ছোঁয়া না পেলেও মন খারাপ থাকতে পারে।এর কারণ হলো ভিটামিন ডি এর অভাব। চেষ্টা করুন ভোরের মিষ্টি রোদ গায়ে লাগানোর। এতেসারাদিন মন ভালো থাকবে।                                                                                                                                                                                                                                                                    ৫। মনের মধ্যে রাগ অনেক দিন ধরে রাখলেও এমন হতে পারে। এছাড়াও আরো অনেক কারন থাকতে পারে।তাই হঠাৎ মেজাজের পরিবর্তন, অতি-আবেগ বা অতি-রাগের বহিঃপ্রকাশের পেছনে কোনো শারীরিক-মানসিক রোগ লুকিয়ে আছে কি না, ভেবে দেখতে পারেন এবং আমাদের সাথে শেয়ার করতে পারেন।                                                                                                                                                                                                                                                                                  নিজের ওপর অতিরিক্ত চাপ না নেয়া, মানুষের সাথে শেয়ার করা। যথেষ্ট বিশ্রাম নিন ও পর্যাপ্ত ঘুমান। নিয়মিত ব্যায়াম করুন বা হাঁটুন। যোগব্যায়াম, মেডিটেশন বা রিলাক্সেশন এক্সারসাইজ করতে পারেন। প্রয়োজনে সাইকোলজিস্ট এর সাথে এই বিষয়ে কথা বলতে পারেন।                                                                                                                                                                                   আশা করি কিছু টা সাহায্য করতে পেরেছি।আর কোন প্রশ্ন থাকলে মায়াকে জানবেন। আপনার প্রয়োজনে রয়েছে পাশে সব সময় মায়া।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও