প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। আগাম কোনও সতর্কবার্তা দিয়ে প্যানিক অ্যাটাক হয় না। যেকোনও সময় হঠাৎই এই ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। এ সময়ে অনেকেই মনে করেন তিনি মারা যাবেন বা তাঁর হার্ট অ্যাটাক হয়েছে। প্যানিক অ্যাটাক হলে যা করা যেতে পারে- নিরিবিলি বাছুন অকারণ উদ্বেগ অনুভব করলে ভিড়ভাট্টা থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়ে নিরিবিলি পরিবেশে চলে যান। আলো কম করে কিছুক্ষণ জোরে জোরে শ্বাস প্রশ্বাস নিন যতক্ষণ না আপনি মানসিকভাবে স্থির হতে পারছেন। কারও সাহায্য নিন সেই মুহূর্তে আপনার সঙ্গে যাঁরা রয়েছেন তাঁদের সঙ্গে কথা বলুন। আপনার সমস্যার কথা জানান, হাসুন, ভাগ করে নিন আপনার সমস্যাগুলো। দেখবেন হালকা লাগবে অনেকটাই। ভেষজ চা খান ক্যমোমাইল (Chamomile) চা খান। এই ভেষজ চায়ে রয়েছে এমন কিছু গুন, যা আপনার শরীর এবং মনকে হালকা হতে সাহায্য করবে। পূর্ববর্তী গবেষণা অনুযায়ী এই চা উদ্বেগ কমাতেও সাহয্য করে। পেশীকে আরাম দিন যখন মনে করছেন আপনার প্যানিক অ্যাটাক হচ্ছে ফ্রি হ্যান্ড করুন। এমন কোনও স্থান বেছে নিয়ে আপনার পেশী এবং শরীরকে কিছুক্ষণের জন্য আরাম দিন। এতে অনেকটা লাঘব হবেন আপনি। ব্যায়ামে শারীরিক শিথিলতার সঙ্গে মানসিক শান্তিও মেলে, একথা বিশেষজ্ঞরাই বলেন। এই টোটকায় ফল পাবেন হাতেনাতেই। ব্যায়াম করুন এ তো গেল প্যানিক অ্যাটাক থেকে মুক্তি পাওয়ার তৎক্ষনাৎ কৌশল। তবে রোজ সকালে হালকা ব্যায়ামের জন্য সময় বের করে নিন। অন্তত ১০ মিনিট সময় ফ্রি হ্যান্ড করুন। সমস্যার সমাধান পাবেন হাতেনাতেই। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও