প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।আপনি ডিপ্রেশনে ভুগছেন।আপনার প্রশ্ন পড়ে অনুভব করতে পারছি যে আপনি একটি কষ্টকর সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন।কিন্তু আপনি যে এই পরিস্থিতি থেকে বের হতে চাচ্ছেন এতেই বুঝতে পারছি যে আপনি নিজের ব্যপারে কতটা সচেতন।গ্রাহক আপনার কেন মনে হচ্ছে আপনি ডিপ্রেশনে আছেন তা কি বলা যায়?কিছু কি হয়েছে যার পর থেকে মনে হচ্ছে?কতদিন ধরে এরকম মনে হচ্ছে?আমরা অনেক সময়ই ডিপ্রেশন ও মন খারাপকে এক মনে করি।কারো ডিপ্রেশন বা বিষন্নতা আছে তা বলার জন্য কিছু উপসর্গ থাকতে হবে।নিচের ৯ টির মধ্যে ৫টি উপসর্গ যদি কারো মধ্যে ২ সপ্তাহের বেশি সময় ধরে থাকে তবে বলা যায় যে সে ডিপ্রেশনে ভুগছে।উপসর্গগুলো হল-১.প্রতিদিন প্রায় প্রতিটা সময় মন খারাপ থাকা।২.কোন কাজ ভালো না লাগা।৩.ওজনের বড় মাপের পরিবর্তন।৪.insomnia বা ঘুমের সমস্যা।৫.সবকিছু বিরক্ত লাগা,৬.ক্লান্তি বা কম এনার্জি অনুভব করা।৭.অসহায়ত্ত্ব বা অপরাধবোধে ভোগা।৮.চিন্তা বা মনোযোগ দেয়ার ক্ষমতা হ্রাস পাওয়া ও সিদ্ধান্তহীনতা।৯.মৃত্যুর চিন্তা আসা।আপনার কি এই উপসর্গগুলো আছে? ডিপ্রেশনের কারণগুলো জানতে পারলে তা আপনাকে এর থেকে বেরিয়ে আসতে সাহায্য করবে।মন খারাপ কেন লাগছে তা খুজে বের করতে পারেন।মন খারাপ থাকলে বা কষ্ট হলে সাধারণত দেখা যায় যে আমরা নিজেদের সবকিছু থেকে গুটিয়ে ফেলি। নিজেদের ভালোলাগার যে কাজগুলো আগে করতাম তখন তা আর করিনা, কারো সাথে কথা বলতে ইচ্ছে হয়না।এভাবে করতে থাকে আমাদের খারাপ লাগা আরো বেশি বেড়ে যায়।এভাবে দেখা যায় যে আমরা একটি মন খারাপের চক্রের মধ্যে পড়ে যাই। তাই একটু জোর করে হলেও যদি মন ভাল হবার কিছু কাজ করতে পারেন তবে তা আপনার জন্য উপকারী হতে পারে।মন ভাল হবার কিছু কাজ করতে পারেন।গল্পের বই কিংবা মুভি দেখে সুন্দর সময় কাটাতে পারেন। নিয়মিত ব্যায়াম করতে পারেন যা আপনার শরীর এবং মন দুটোকেই ভাল রাখবে। শরীরচর্চা আমাদের মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।আপনার কাছের মানুষটির সাথে মন খারাপের বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলতে পারেন-যিনি আপনার কথা গুলো নিরোপেক্ষ মন নিয়ে শুনবেন ও গোপনীয়তা রক্ষা করবেন।আপনার সুখ, দুঃখ, আনন্দ, বেদনা, রাগ, ঘৃণা সমস্তঅনুভুতি গুলোকে নিজের মনে পুষে না রেখে প্রকাশ করে ফেলুন।কথা শেয়ার করার মত এমন কেউ না থাকলে আপনার অনুভূতিগুলো লিখে রাখতে পারেন,পরে তা আর না পড়ে ছিড়ে ফেলবেন,এতে আপনার নিজেকে অনেকটা হালকা অনুভব করবেন।এছাড়াও আপনি রিলাক্সেশান টেকনিক ব্যবহার করতে পারেন।অতিরিক্ত চিন্তার সময় নিজেকে relax রাখার জন্য relaxation বা deep breathing করতে পারেন। মেডিটেশন বা Relaxation হল এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে শরীরকে শিথিল করা যায়। মানসিক ভাবে প্রাশান্তি লাভ করা যায়। দুচিন্তা,রাগ, আবেগ, হতাশা থেকে কিছুটা মুক্তি পাওয়া যায়। এর মাধ্যমে দীর্ঘ নিঃশ্বাস নেওয়ার ফলে মস্তিস্কে বিশুদ্ধ অক্সিজেন প্রবেশ করে মস্তিস্ককে অনেক শিথিল করে যার ফলে পরবর্তীতে আর ও ভাল ভাবে সমস্যা নিয়ে চিন্তা করা যায়।নিম্নের ভিডিও লিঙ্ক টি দেখলে আপনি মেডিটেশন বা relaxation সম্পর্কে আরও ভাল করে জানতে পারবেন। https://www.youtube.com/watch?v=JEg5t0WCILQ&feature=share আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও