প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। প্রিয় গ্রাহক, আপনার কি ছোটবেলা থেকেই এ ধরনের সমস্যা আছে? আপনি কি বেশি উত্তেজিত হয়ে গেলে, নার্ভাস বোধ করলে বা অপরিচিত পরিবেশে এ ধরনের সমস্যা বেশি হয়? নাকি সব সময় এ ধরনের সমস্যা থাকে? মাথায় বা জিহ্বায় কখনো আঘাত পেয়েছিলেন? অনুগ্রহপূর্বক প্রশ্নের উত্তরগুলো জানাবেন। তাহলে প্রকৃত কারণ কি তা বুঝতে সুবিধা হবে। হ্যাঁ, প্রিয় গ্রাহক, এর থেকে মুক্তি পাবার উপায় আছে। পৃথিবীর এরকম অনেক ভালো বক্তাই রয়েছেন যাদের পূর্বে এ ধরনের সমস্যা ছিল। কিছু অনুশীলনের মাধ্যমে এই সমস্যা থেকে অনেকটাই মুক্তি লাভ করা যায়। এ সমস্যা থেকে মুক্তি লাভের জন্য সতর্কভাবে নিয়মিত কয়েকটি পদ্ধতি অনুসরণ করবেন: 1. প্রথমে আপনার মনের জোর বাড়াতে হবে। আশেপাশের কেউ আপনার কথায় কি চিন্তা করল এই বোধ টি আমাদের নার্ভাস করে ফেলতে পারে যার কারণে এ ধরনের সমস্যা অনেকেরই হতে পারে। আপনি কথা বললে কেউ কিছু মনে করতে পারে সে চিন্তাটি দূর করুন। শুধু মনে রাখবেন যে আপনাকে সুন্দর করে কথা বলতেই হবে। 2. যারা সুন্দর করে কথা বলে তার কথাগুলো মনোযোগ দিয়ে শুনুন। 3. ওই কথাগুলো আপনি বলার চেষ্টা করুন আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে অথবা ভিডিও তৈরি করে। 4. প্রতিদিন একটি ভিডিও বানান এবং দেখুন যে আপনার কোন শব্দ উচ্চারণে অসুবিধা হচ্ছে। সেটি বাড়াবার প্রাক্টিস করুন। 5. সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে মুখের জড়তা কাটানোর জন্য কিছু ব্যায়াম করুন।ব্যায়াম গুলো ইউটিউবে সার্চ করে দেখে নিতে পারেন। 6. বিভিন্ন লেখা এবং পেপার জোরে জোরে পড়ার চেষ্টা করুন। 7. যখন কারো সাথে কথা বলবেন তখন তার চোখের দিকে তাকিয়ে কথা বলার চেষ্টা করুন। এতে আপনার আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি পাবে এবং কথা বলা সহজতর হয়ে উঠবে। 8. কথা আস্তে আস্তে এবং ভেঙে ভেঙে বলুন। এতে যেরকম আপনার এ ধরনের সমস্যা আছে তা বোঝা যাবে না সাথে সাথে, এটি আপনার শ্রোতার মধ্যে কৌতূহল তৈরি করবে এবং আপনার কথা শোনার ইচ্ছা আরো বেশি তৈরি হবে। আমাদের কথা কে অনর্গল এবং স্বচ্ছন্দ গতিবিশিষ্ট করতে জিহ্বার ভূমিকা সবচেয়ে বেশি। এজন্য জিহ্বার কিছু ব্যায়াম নিয়মিত করবেন। জিহ্বার ব্যায়াম: ১.একটি পরিষ্কার কাঠপেন্সিল মুখে নিন। দুই পাটির দাঁত দিয়ে সমান্তরালভাবে কামড়ে ধরে পড়া শুরু করুন, যতক্ষণ আপনার ভালো লাগে। ২.জিহ্বাকে সামনের দিকে টান টান করবেন, যতটা পারা যায়। ৩.ভেতরের দিকে টেনে নিয়ে যান, যতটা সম্ভব। ৪.মুখ হা করে জিহ্বাকে টান টান করে চারিদিকে ঘুরাতে থাকুন। প্রথমে ঘড়ির কাটার দিকে কিছুক্ষণ। পরে ঘড়ির কাটার বিপরীতে কিছুক্ষণ। ৫.মুখ বন্ধ করে চারিদিকে জিহ্বাকে ঘুরাতে থাকুন। প্রথমে ঘড়ির কাটার দিকে কিছুক্ষণ। পরে ঘড়ির কাটার বিপরীতে কিছুক্ষণ। ৬.জিহ্বাকে চুইংগাম-এর মত চিবোতে থাকুন। ডানে বায়ে ঘুড়িয়ে। যতক্ষণ ভাললাগে। ৭.জিহ্বাকে মুখের বাইরে তড়িৎ গতিতে ছুড়ে মারুন। এভাবে করতে থাকবেন কিছুক্ষণ। ৮.মুখ হা করুন, যত বড় করা যায়। ৯.মুখ গোল করে ঘড়ির কাঁটার দিকে এবং ঘড়ির কাঁটার বিপরীত দিকে ঘুরান। এভাবে প্রতিদিন কয়েকবার করে করবেন। এ পদ্ধতি গুলো নিয়মিত কিছুদিন অনুসরণ করে দেখুন, দেখবেন আর কথার সচ্ছলতা এবং স্পষ্টতা অনেকটাই বৃদ্ধি পাবে। *এরপরেও কোন অসুবিধা হলে আপনি প্রয়োজনে স্পিচ থেরাপিও নিতে পারেন। আশাকরি উপদেশগুলো পালন করলে আপনি অনেকটাই উপকৃত হবেন। আরও কোনো প্রশ্ন থাকলে অবশ্যই জানাবেন। যেকোনো স্বাস্থ্য তথ্য ও পরামর্শের জন্য পাশে আছি সবসময়, মায়া।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও