অন্য বাচ্চাদের থেকে আলাদা মনে হয় না। আর অন্য বাচ্চাদের সাথে খুব ভালো মিশে। কিন্তু মাঝে মাঝে ওর মনের মত না হলে মারারামারি করে তবে খুব বেশি না। মনযোগ এর ব্যাপারে আমি সঠিক বুজতে পারছি না। তবে ওর speech delay এর সমস্যা থাকায় মাঝে মাঝে আমি ওকে বিভিন্ন প্রশ্ন করি, ছড়া বলাতে চেষ্টা করি। তখন সে সেটা এরিয়ে যায়। নিজের মত অন্য কিছু বলে বা বোঝায়। তাছাড়াও আমি নিজে যখন ওকে মারি তখন অন্য কিছু নিয়ে মনে মনে চিন্তা করি।পরে সেটা বুজতে পারি। আর খুব ছোটখাটো বিষয় নিয়ে আমি অনেক চিন্তা করি - কেউ কেন আমাকে একটা কথা বললো বা কেনো কিছু করলো। অার চাইলেও হাসি খুশি থাকতে পারি না। বিষেশ করে বিয়ের পরপরই আমার স্বামির সাথে কিছু problem এর পর আমি বেশি sensitive হয়ে গেছি। যদিও এখন সেই problems আর নেই। কিন্তু আমি কোনোকিছু সহজে ভুলতে পারি না।

সম্মানিত গ্রাহক প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ। আপনি নিজের সন্তানের প্রতি বেশ সচেতন যা খুবি ইতিবাচক। গ্রাহক আপনি আপনার সন্তানকে নিয়ে বেশ ভাবেন যা জেনে খুবি ভালোলাগছে আর এটা সচেতন মায়ের বৈশিষ্ট্য। গ্রাহক আপনার সন্তানের যেহেতু ভাষার বিকাশে ও মনোযোগেও সমস্যা পরিলক্ষিত হচ্ছে তাই তাকে শিশু বিকাশ কেন্দ্র দেখাতে পারেন। ভাষার বিকাশে যা করতে পারেন, ১। শিশুর ভাষা বিকাশে জন্ম থেকে শিশুর সাথে কথাবলার অভ্যাস করুন। আপনার এই কথাই শিশুর ভাষার বিকাশকে ত্বরান্বিত করতে পারে। ২।শিশুর ঘুঘুধ্বনি(coos) এবং আধো-আধো ধ্বনি(babble) করার সময় প্রতিক্রিয়া করার চেষ্টা করতে পারেন এতে করে শিশু মুখ দিয়ে কথা বলতে উৎসাহিত হবে। ৩। শিশুর সাথে সাধারণ খেলা যেমন বেলুন ফুলানো,বাঁশিবাজান,ও বাবলস উড়ান ইত্যাদি খেলা খেলুন এতে করে শিশুর সাথে যে হৃদ্রতার সম্পর্ক তৈরি হবে তা শিশুর ভাষার বিকাশকে ত্বরান্বিত করবে। ৪। শিশুর কথাশোনার অভ্যাস করুন যখন সে কথা বলে তারদিকে তাকান ও তাকে প্রতিক্রিয়া করতে সময় দিন তাহলে শিশু কথা বলতে উৎসাহিত হবে। ৫। শিশু প্রতিনিয়ত যা করছে,দেখছে,শুনছে ও অনুভব করছে তা শিশুকে বর্ণনা করে শুনানো তাহলে শিশু কথা বলতে উৎসাহিত হবে একই সাথে শিশুর বস্তু সম্পর্কে ধারণা তৈরি হবে। ৬। শিশুকে গল্প শোনাতে ও বলতে উৎসাহিত করুন। পাঠ্য বইয়ের প্রতি শিশু যদি উৎসাহ হারায় তাহলে পাঠ্য বইয়ের বাহিরে ছবিযুক্ত গল্পের ও কবিতার বই দেখিয়ে শিশুকে গল্প ও কবিতা শুনতে ও বলতে উৎসাহিত করুন। ৭। শিশুর সাথে প্রতিদিন খেলায় যুক্তহোন এবং খেলার উপকরন ও খেলা সম্পর্কে শিশুর সাথে কথাবলার অভ্যাস করুন। ৮। শিশুকে কথা বলতে বাধ্য করার পরিবর্তে নিজ থেকে কথা বলতে উৎসাহিত করুন; শিশু কথাবললে তার কথাবলাকে প্রশংসা করুন। ৯। শিশুকে ছড়া ও গান গেয়ে শোনানো, নতুন নতুন ছড়া ও গান শিশুকে নতুন শব্দ শিখতে সাহায্য করবে ফলে শিশু তার স্মৃতি ও শোনার দক্ষতার ব্যবহার শিখবে এবং একই সাথে শব্দের মাধ্যমে নিজের ধারনার প্রকাশ করতে শিখবে। ১০। শিশু যা বলে আপনি তা বর্ণনা করে বলুন যেমন শিশু যদি বলে ‘বল’ আপনি বলতে পারেন তুমি কোন বল চাও তখন আপনি বলের আকার আকৃতি ও রং ব্যাখ্যা করে বলতে পারেন। ১১। শিশুর ভাষার বিকাশে পরিবার নিয়ে কোথাও ঘুরে আসার পরিকল্পনা করতে পারেন কারন ভ্রমনের নতুন অভিজ্ঞতা ভ্রমনের আগে, ভ্রমনের সময় এবং ভ্রমনের পরে শিশুর মাঝে বিভিন্ন বিষয়ে কথাবলার আগ্রহ বাড়বে এতে করে শিশুর ভাষার বিকাশ ত্বরান্বিত হবে। ১২। শৈশবে যেকোন বিষয়ে শিশুদের কৌতূহল থেকে নানান ধরনের প্রশ্ন করতে পারে তাই প্রতিটি প্রশ্নের বয়স উপযোগী উত্তর দেয়ার চেষ্টা করুন।আপনার এই উত্তর শিশুর জন্য পুরস্কার হিসেবে কাজ করবে ফলে ভাষার বিকাশের সাথে সাথে শিশুর জ্ঞানীয় দক্ষতার পরিধিও বাড়বে। মায়া আপনার পাশে রয়েছে সবসময়। 

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও