প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক ও রাষ্টীয় বিভিন্ন কারনে দুশ্চিন্তা থেকে একধরনের মানষিক চাপ তৈরি হয়ে থাকে যা মনের শান্তি বিনষ্ট করে থাকে।আর প্রতহিক জীবনে নানান সমস্যা থাকবে এটা স্বাভাবিক। দুশ্চিন্তার  কারনে কোনো কাজে মনোযোগ দেওয়া কঠিন হয়ে যায় তাই না?  আর খুব বেশি মানুষিক চাপ হলে তা সহ্য করা কঠিন হয়ে থাকে। এই পৃথিবীতে চলতে গিয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন চেলেন্জ গ্রহন করতে হয়। যা মানুষিক চাপ তেরি করলেও, এই কাজে সফল হলে নিজের প্রতি আত্ননবিশ্বাস বেড়ে যাই আর এই আত্নবিশ্বাস মানুষিক চাপ মোকাবেলার রশদ যোগাই, নিজের সাফল্যেকে মূল্যায়ন করতে শেখাই। গ্রাহক দুশ্চিন্তার কারণটা কি আমার সাথে শেয়ার করা যায়? কারণটা শেয়ার করলে আপনাকে সাহায্য করা সহজ হত?  গ্রাহক ব্যার্থতা থেকে হতাশা কাজ করতে পারে, এমনকি কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌছাতে না পারলেও হতাশা দেখা দেওয়া স্বাভাবিক তাইনা। গ্রাহক হতাশার কারণটা কি বলা যায়? তাহলে আপনাকে সাহায্য করা সহজ হতো। আর দুশ্চিন্তা  কমাতে কাজগুলকে গুরুত্বের উপরে ভিত্তি করে সাজিয়ে নিতে পারেন, যে কাজ টি বেশি প্রয়োজনীয় সেটি আগে করার চেষ্টা করতে পারেন। আর কাজকে জমিয়ে রাখলে মানুষিক চাপ বাড়ে তাই প্রতিদিনের কাজ প্রতিদিন করতে চেষ্টা করতে পারেন। গবেষণায় দেখা গেছে প্রাথনা, exercise, mindfulness exercise, meditation মানুষিক চাপ কমাতে সাহায্য করে থাকে তাই এই exercise এর উপরে প্রশিক্ষণ নিতে পারেন কি ভেবে দেখতে পারেন।নিয়োমিত ঘুমা ও পরিবারকে সময় দেওয়া মানুষিক চাপ কমাতে সাহায্য করে থাকে।আর মানসিক চাপ কমলে দুশ্চিন্তা এমনিতে কমে যায়। আর উপরের প্রশ্নের উত্তর দিলে আপনাকে আরও সাহায্য করা সহজ হবে। মায়া আপনার পাশে রয়েছে সবসময়। 

পরিচয় গোপন রেখে ফ্রিতে শারীরিক, মানসিক এবং লাইফস্টাইল বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করতে পারেন Maya অ্যাপ থেকে। অ্যাপের ডাউনলোড লিঙ্কঃ http://bit.ly/38Mq0qn


প্রশ্ন করুন আপনিও