সম্মানিত গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। আপনি যে বিষয়টি নিয়ে সচেতন হয়েছেন এবং সমস্যাটি থেকে বের হয়ে আসার চিন্তা ভাবনা করছেন তা বেশ প্রশংসনীয়।  যে কোন ধরনের আসক্তির বিষয়ে সাহায্য করার জন্য আসক্তি সম্পর্কে বিস্তারিত জানার প্রয়োজন হয়। আমি কি আপনাকে কিছু প্রশ্ন করতে পারি? আপনি দৈনিক গড়ে কত ঘন্টা মোবাইল ব্যাবহার করেন? মোবাইল ব্যাবহারের মাধ্যমে আপনার কি কি ক্ষতি হচ্ছে? কোন কোন সময়ে আপনি বেশি মোবাইল ব্যাবহার করেন? মোবাইলে অপ্রয়োজনীয় কি  কি জিনিস করেন? ক্ষতি হচ্ছে জানার পরেও আপনি কেন বের হয়ে আসতে পারছেন না?উক্ত প্রশ্নগুলোর উত্তর পেলে আপনাকে সুনির্দিষ্টভাবে সাহায্য করতে পারব বলে মনে করছি। সাধারনত আপনি যা করতে পারেন তা হলঃ১। মোবাইল ব্যাবহারের সময় সুনির্দিষ্ট করা এবং তার বাইরে মোবাইল ব্যাবহার না করা।২। ইন্টারেনেটের এক্সেস কমানো।৩। মোবাইল ব্যাবহারের মাধ্যমে আপনি যা পাচ্ছেন তা পাওয়ার অন্য উপায় খুঁজে বের করা যেমনঃ মোবাইলে আপনি যদি ইন্টারটেইনমেন্ট পান, তাহলে আর কি কি জিনিস আপনাকে ইন্টারটেইনমেন্ট দেয় তা খুঁজে বের করে মোবাইল ব্যাবহারের পরিবর্তে সেটা করা।৪। মোবাইল ব্যাবহারের মাধ্যমে আপনার কি কি ক্ষতি হচ্ছে তা লিস্ট ডাউন করা এবং সামনে রাখা। যখনই অতিরিক্ত মোবাইল ব্যাবহার হচ্ছে বলে মনে হয় তখনই লিস্টটি দেখা।৫। একাকীত্বতা কমানো।৬। বাস্তব জীবনে মানুষের সাথে সম্পর্ক বাড়ানো সেটি পরিবারের মানুষ বা বন্ধু বান্ধব হতে পারে।৭। শখের কাজ করা, প্রয়োজনে নতুন শখ তৈরি করা।গ্রাহক, পড়াশুনা আপনার জন্য কেন গুরুত্বপূর্ণ তা আপনি জানেন কি? যে যে কারণে পড়াশুনা আপনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ তা একটি কাগজে লিখে ফেলুন। পড়াশুনা আপনাকে কিভাবে আপনার কাংখিত লক্ষ্যে পৌঁছে দিবে সেটাও লিখে ফেলুন। কাগজটি আপনার সামনে বা টেবিলে রাখুন যাতে আপনি তা সব সময় দেখতে পারেন।শুরুতে আপনি এক সপ্তাহ টানা প্রতিদিন কয়েক ঘন্টা করে পড়ুন। একেবারে না পড়ার চাইতে এটা অন্তত কিছু পড়া হলো। সহজে মেনে চলতে পারবেন এরকম একটা রুটিন করে রাখুন। দিনে ২/৩ ঘণ্টা করে প্রতিদিন পড়লেই কিন্তু অনেক পড়া হয়, ভালো ফলাফল লাভ করা যায়। প্রথম সপ্তাহের পর দ্বিতীয় সপ্তাহে সময়টা ১ ঘণ্টা বাড়িয়ে ফেলুন। প্রতি ৩০ মিনিট পরপর বিরতি নিতে পারেন। নিজেকে একটা টার্গেট দিবেন, যেমন এই সপ্তাহে বাংলা দুটা কবিতা পড়তে হবে। টার্গেট পূরণ করলে নিজেকে উপহার দিন। সেটা বন্ধুদের সাথে কিছুক্ষণ আড্ডা দেওয়া, নতুন গল্পের বই পড়া, পছন্দের কিছু খাওয়া বা আপনার পছন্দের যে কোন কিছুই হতে পারে। সপ্তাহে ১ দিন পুরো সপ্তাহের পড়াগুলো রিভাইস করুন, মাসে দুবার পুরো মাসের পড়াটা রিভাইস করুন। পড়ার পাশাপাশি বারবার লিখে লিখে জিনিসগুলো প্র্যাকটিস করুন। এতে পড়া বেশ মনে থাকে। পড়তে বসার সময় ফোন, ল্যাপটপ সব দূরে রাখুন। বন্ধুরা কেউ কল/ টেক্সট করলে সেটার উত্তর পরেও দিতে পারবেন। পড়ার সময়টা শুধু পড়ার জন্যই রাখুন। দেখবেন কিছুদিনের মধ্যেই পড়ার অভ্যাস গড়ে উঠবে, পড়তেো তেমন খারাপ লাগবে না।অনেক সময় পড়তে বসলে আমাদের মাথায় বিভিন্ন চিন্তা ঘুরপাক খেতে থাকে। চিন্তাগুলো করার জন্য একটি নির্দিষ্ট সময় সেট

পরিচয় গোপন রেখে ফ্রিতে শারীরিক, মানসিক এবং লাইফস্টাইল বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করতে পারেন Maya অ্যাপ থেকে। অ্যাপের ডাউনলোড লিঙ্কঃ http://bit.ly/38Mq0qn


প্রশ্ন করুন আপনিও