গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।জরায়ুতে টিউমার হলে প্রথমত তা কিধরনের টিউমার তা পরীক্ষা করে, গাইনী ডাক্তার দেখিয়ে নিশ্চিত হতে হবে। মহিলাদের প্রজননক্ষম বয়সে জরায়ুতে সবচেয়ে বেশি যে টিউমারটি হতে দেখা যায় তা হলো ফাইব্রয়েড বা মায়োমা। জরায়ুর পেশির অতিরিক্ত ও অস্বাভাবিক বৃদ্ধির ফলে এই টিউমারের সৃষ্টি হয়। ৩০ বছরের ঊর্ধ্বে নারীদের মধ্যে ২০ শতাংশই এই সমস্যায় আক্রান্ত। ফাইব্রয়েড এক ধরনের নিরীহ টিউমার, এটি ক্যানসার বা বিপজ্জনক কিছু নয়।মোটামুটি বেশির ভাগ ক্ষেত্রে কমবেশি অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ বা অনিয়মিত মাসিক বা তলপেট ভারী বোধ হওয়া ইত্যাদি উপসর্গ হয়। প্রায় ক্ষেত্রে এটি মারাত্বক সমস্যা না হলেও ডাক্তার দেখিয়ে অবশ্যই চিকিতসা নিতে হবে, এর কারনে আক্রান্ত নারীর অতিরিক্ত মাসিক হওয়া এবং তার জন্য রক্তশূন্যতা হতে পারে। এছাড়াও চিকিতসা না নিলে তা গর্ভধারনের ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলতে পারে। জরায়ু না ফেলেও টিউমারের অংশ ফেলে দিয়ে এর চিকিতসা করা যায়, তবে কি চিকিতসা প্রয়োজন তা গাইনী ডাক্তার দেখিয়ে পরামর্শ নিতে হবে। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া।

পরিচয় গোপন রেখে ফ্রিতে শারীরিক, মানসিক এবং লাইফস্টাইল বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করতে পারেন Maya অ্যাপ থেকে। অ্যাপের ডাউনলোড লিঙ্কঃ http://bit.ly/38Mq0qn


প্রশ্ন করুন আপনিও