শরীরের কোন স্থানে জীবাণু দ্বারা সংক্রমণের ফলে প্রদাহ হয়ে ফোড়া সৃষ্টি হয়। আবার সুচ অথবা সুচের মত যন্ত্র দিয়েও ফোঁড়ার সংক্রমণ ঘটতে পারে। আপনার কোথায় ফোঁড়া হয়েছে? কোন আঘাত পেয়েছিলেন? ফোড়া হলে করনীয়প্রথমে জীবাণুনাশক সাবান দিয়ে আক্রান্ত স্থান পরিষ্কার করে নিতে হবে।জোর করে ফোড়া গলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করবেন না। সে ক্ষেত্রে সংক্রমণ আশপাশে ছড়িয়ে যেতে পারে। একটা সাধারণ বিষফোড়া সাধারণত ৭ থেকে ১৪ দিনের মাথায় আপনা আপনিই গলে যায়। গলে যাওয়ার পর একটা উষ্ণ এবং পরিষ্কার কাপড় বা তুলা বা গজ চেপে ধরে পুঁজ বের করে আনতে হবে। অথবা একটা পরিষ্কার কাপড় গরম পানিতে ভিজিয়ে, চিপে নিয়ে হালকাভাবে ফোড়ার ওপর চেপে ধরলে ফোড়াটি গলে যেতে পারে।তারপরে অ্যান্টিবায়োটিক মলম হালকাভাবে লাগিয়ে ব্যান্ডেজ দিয়ে হালকাভাবে ঢেকে দিন।ফোড়া ধরার পর হাত ভালোভাবে ধুয়ে পরিষ্কার কাপড় দিয়ে মুছে নিতে হবে। ব্যবহার্য টাওয়েল, পোশাক-আশাক, বিছানার চাদর ইত্যাদি গরম পানিতে ধুয়ে রোঁদে শুকিয়ে নিতে হবে।অনেকের মুখে এবং গালে প্রায়ই ফোড়া হয়, তারা দাড়ি কামানোর পর অ্যান্টিসেপটিক ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন।প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা:চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ফোড়া এবং তার চারপাশের স্থান পরীক্ষার জন্য কিছু শারীরিক পরীক্ষা, রক্তের পরীক্ষা এবং আল্ট্রাসোনোগ্রাফী করার প্রয়োজন হতে পারে।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও