হ্যাঁ, আমি তার কথা এখনো ভাবি। আমি জানি এটার আমার জন্য খারাপ, তবে আগে থেকে সেটা কমে গেছে-- -- এটি এড়ানোর জন্য বিভিন্ন জায়গা ঘুরাঘুরি করি, সাহিত্য পড়ার চর্চা কিংবা নিজে আর্টিকেল লেখা , খেলাধূলা করে নিজেকে ব্যস্ত রাখার প্রচেষ্টা চালিয়ে যায়। কিন্তু সেটা ক্ষনিকের সময়ের জন্য আমাকে ভুলিয়ে রাখতে পারে-- নিজেকে অপরের কাছে এত নির্ভর হয়ে যাবো সেটা ভাবতেও পারিনি। হ্যাঁ, নিজে নিজে কথা বলি সেটা অনেক মাস হলো।সেটা হয় বিভিন্ন ব্যাপারে-- যেমনঃ একাডেমিক, পারসোনাল, সোস্যেল আরো অনেক কিছু-- তবে সেগুলো অস্বাভাবিক লাগে নিজের কাছে। তবে একবার রাত্রে মানসিক এত চাপে ছিলাম -- নিজের হাত নিজেই কাঁটা কম্পাস দিয়ে রক্তান্ত করে ফেললাম-- সেটা পরদিন সকালে লক্ষ্য করলাম।তখন আমার রক্ত দেখতে খুব ভাল লাগতো। এখন তবে এখব সে- রকম চাপে নেই। ইন্টারনেটে সার্চ করেও অনেক মানসিক সিন্ড্রোমের জানতে চেয়েছি, কিন্তু কত গুলো লক্ষণ সাথে আংশিক মিলে যায়। যেমন ধরেন--সিজোফ্রেনিয়া, adele syndrome etc উল্লেখ্য, আমি একটা স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করি, তাই সামাজিক ভাবে মোটামুটি সম্মানিত (পাড়া, মহল্লায়) অনেক প্রশংসা করে -- কিন্তু বর্তমানে একটু খারাপ (আশানুরূপ নয়) রেজাল্টে কারণে নিজেকে সমাজ, আত্নীয় মহল থেকে দূরে থাকি। আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত, অনেক গুলো মানসিক সিন্ড্রোম আমার পক্ষে নির্ণয় সম্ভব নয়, তবুও আংশিক মিলে যায় বলে উল্লেখ করেছি, অন্য কোন উদ্দেশ্যে নয়। স্যার, আমাকে প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিয়ে, জীবন ধারা কিভাবে পরিবর্তন করা যাবে সেই বিষয়ে বিস্তারিত বললে আমার অনেক উপকৃত হবে। ধন্যবাদ -- মায়া

প্রিয় গ্রাহক,আপনার ব্যাক্তিগত কথাগুলো শেয়ার করার জন্য ধন্যবাদ। গ্রাহক, এটি খুব ভালো কথা যে আপনি তাকে ভুলে থাকার জন্য অন্য অনেক কাজ করে থাকেন। আমাদের জীবনে যখন কেউ আসে এবং আমাদের উপর অনেক প্রভাব ফেলে তাকে ভুলে থাকা আসলেই কষ্টকর, অনেক সময় তার স্মৃতি নিয়ে আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে নিজের ভালোর জন্য। নিজেকে কারো উপর নির্ভর হয়ে না ভেবে, ভেবে দেখুন যে এটি একটি অভ্যাস হয়ে গিয়েছে এবং কিছু অভ্যাস যেতে সময় লাগে। যখন আপনি নিজে নিজের সাথে কথা বলা শুরু করবেন তখন এমন কোথাও যেতে পারেন যেখানে অন্য মানুষ আছে, তাদের সাথে কথা বলতে পারেন অথবা কারো সাথে ফোনে কথা বলতে পারেন। নিজের মনের চাপা কথাগুলো প্রকাশ করার চেষ্টা করতে পারেন। আপনি একজন ভালো কাউন্সেলিং psychologist-এর কাছে যেতে পারেন। আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি।ধন্যবাদ। 

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও