প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদগ্রাহক,আপনি ছেলে না মেয়ে ? আপনার বয়স কত ? কতদিন ধরে আপনার এই সমস্যা হচ্ছে ?আপনার হাতে -পায়ের কোন জয়েন্ট কি ফুলেছে বা লাল হয়ে গেছে? আপনার অন্যকোন শারীরিক সমস্যা আছে , যেমন - সর্দি - কাশি, জ্বর, মাথা ব্যথা ইত্যাদি ? আমাদের বিস্তারিত জানান।শরীর ব্যথা বা পেশীর ব্যথার কোন বিশেষ সুনির্দিষ্ট কারণ নেই। তবে অনেক ক্ষেত্রে হঠাৎ ব্যায়াম, বেশিক্ষণ দাঁড়িয়ে কাজ করা বা হাঁটাচলা বা ঘুমানোর সময় শরীরের কোন বিশেষ পেশীর উপর চাপ বা সংকোচনের কারণে শরীর ব্যথা হতে পারে। এমনকি শরীরে কোন ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটলেও শরীর ব্যথা হতে পারে। এছাড়া, মানসিক দুশ্চিন্তা, উদ্বেগ,ডিহাইড্রেশন, ঘুমের অভাব, রক্তস্বল্পতা, ভিটামিন ডি এর অভাব, ফাইব্রোমায়ালজিয়া, রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস বা লুপাসের মতো বাতজনিত রোগ থাকলে তার সারা শরীরে ব্যথা হতে পারে। সাধারণত রক্তে লবণের ঘাটতি হলে বা মাংসপেশিতে রক্তপ্রবাহ কমে গেলে এমন গা,হাত -পা কামড়াতে পারে। সারাদিন কি অনেক পরিশ্রম করেন? রোদে ঘোরাঘুরি করার ফলে শরীরে লবনের ঘাটতি তৈরি হয়। ফলে গা, হাত -পা কামড়াতে পারে। আপনার যদি সাথে সর্দি, কাশি, মাথা ব্যথা থাকে, তবে সম্ভবত আপনি ভাইরাল ফ্লু তে ভুগছেন। সেক্ষেত্রে, আপনাকে ঠান্ডা খাবার ও পানীয় এড়িয়ে চলতে হবে।সর্দি -কাশির জন্য আদা,লেবু ও মধু দিয়ে চা, গরম পানি খাওয়া, গলায় ঠান্ডা না লাগানো নিয়মিত মেনে চললে সর্দি, কাশি দ্রুত ভালো হয়ে যায়। এছাড়া, আপনার যথেষ্ট ঘুম ও বিশ্রামের প্রয়োজন আছে। সেই সাথে প্রচুর তরল খাবার ও পানি খাবেন। সেই সাথে আপনাকে পুষ্টিকর ও ভিটামিন সি যুক্ত খাবার খেতে হবে এবং এক্সার্সাইজও করতে হবে নিয়মিত। অনেক ক্ষেত্রে একেবার অচল থাকার পর হটাৎ চলাফেরা শুরু করলেও শরীর, হাত পা কামড়ায়। এছাড়া, শরীরে ক্যালসিয়াম এর অভাব হলেও শরীর, হাত-পা কামড়াতে পারে।সেক্ষেত্রে একজন বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে ক্যালসিয়াম খেতে হবে।তবে স্বাভাবিক অবস্থায় প্যারাসিট্যামল খেতে পারেন। তবে নিয়মিত না। যে কারণেই শরীরের ব্যথা হোক না কেন সাথে সাথে পেইন কিলার বা ব্যথা নাশক খাবেন না। প্রাথমিক অবস্থায় ঘুমানোর অবস্থান ঠিক আছে কিনা তা দেখে নিন। উঁচু বালিশে অথবা অতি কোমল বিছানা পরিহার করুন। সম্ভব হলে হালকা গরম পানিতে সাঁতার কাটার চেষ্টা করুন এবং গরম পানি দিয়ে গোসল করুন। আর সবচেয়ে ভালো হয় যদি শরীরের পেশীর ব্যথার স্থানে অয়েল ম্যাসাজ করাতে পারেন। আর যদি ফিজিও থেরাপি নেয়া সম্ভব হয় তবে কোন ফিজিওথেরাপিস্টের শরণাপন্ন হতে পারেন।  আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও