আমার পক্ষ থেকে অসংখ্য ধন্যবাদ থাকল আপনার প্রতি। হ্যা, ক্যারিয়ার নিয়ে চিন্তা ভাবনা আছে। কিছু সরকারি চাকরীর এক্সাম দিয়েছি এবং সেগুলোর ফলাফল পাওয়া অব্দি অপেক্ষা করা কিছুটা সময় সাপেক্ষ। তাই কাছাকাছি এবং সুবিধাজনক হয় আমার জন্য এরকম জবের জন্য ট্রাই করছি। যেমন: বাচ্চাদের স্কুল। কিন্তু অনেক যায়গায় সিভি দিয়েও ডাক পাচ্ছি না যা আমাকে হতাশ করে দিচ্ছে। এক সময় ভয় হয় কিছুই হবে না আমাকে দিয়ে। তাকে অনুভুতিগুলো আসলে কী যে জানাব ভেবে পাই না! এমনও হয়েছে তার সাথে সব কিছু ডিসকাস করার জন্য তার সাথে দেখা করতে চেয়েছি। সে না করেছে এমন না কিন্তু যখন দেখা করার টাইমে ফোন দিয়েছি সে আমার কল রিসিভ করেনি। নিজের থেকে আর কিছু বলেনিও। পরে এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলে বলেছে কাজের ব্যস্ততায় পারেনি। আমাকে এও বলেছে সে চায় না এমন নয় কিন্তু ব্যস্ততারর কারনে সে পারে না। কিন্তু নিজে থেকে যোগাযোগ করেনি আর। অথচ আমাকে তার জানানোর কথা ছিল। তার এমন নির্লিপ্ততায় কষ্টপাই। এর মধ্যে আমি খুব অসুস্থ হয়ে পড়ি। তিন মাস অসুস্থ ছিলাম। ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছিলাম আমার অসুস্থতার। কিন্তু সে আর খোজ নেয় নি। অথচ এর আগে তার এক্সিডেন্ট হবার খবরে আমি খোজ নিয়েছি। এসব ভেবে মনে করলাম কই কেউ তো আমার খোজটুকুও নেয় না। আমি কেন নিব? এর পর প্রায় দীর্ঘ ছয় মাস ইচ্ছে করেই কোন যোগাজোগ করিনি। লাস্ট কিছুদিন আগে ইদের দিন তাকে শুভেচ্ছা পাঠাই। সে রিপ্লাই দিল। কুশল বিনিময় হল। ব্যস ওইটুকুই। আমার তো উচিত মুভ অন করা। পারছি না কেন? কেন নিজেকে দায়ী মনে হয়? আমি এখনো আম্মুর সাথে এসব বিষয় নিয়ে ঝগড়া করি এবং দিন শেষে নিজেও মানসিকভাবে আহত হই। এর সমাধান কী? অন্য আরেকটা মানুষ কে জীবনে এনে তার মন ভাংগতে চাই না। কিন্তু বয়সও থেমে নেই। কী করব বুঝে উঠতে পারি না।

প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। আপনার প্রশ্নটি পরে যেটা বুঝতে পারলাম যে, আপনার মধ্যে অনুশোচনা কাজ করছে। আপনি পরিস্থিতিটা মেনে নিতে পারছেন না, নিজেকে ব্লেম দিচ্ছেন তাইকি? আপনার এবং ছেলেটির মদ্ধকার সম্পক্রের যে বিষয় গুলো বললেন সেটা থেকে মনে হচ্ছে।  ছেলেটি আপনাকে আর আগের মত কেয়ার না করলেও আপনি সেটা করছেন কিছুদিন বিরত থাকলেও আপনি করছেন। নিজেকে থামাতে পারছেন না। তাইনা? ছেলেটি হয়তো মুভ করেছে যেটা আপনি পারেন নি। আসলেই এটা কষ্টের বিষয়। ভালোবাসার মানুষটি কে সবাই ই পেতে চায়।  আপনি ও চেয়েছিলেন হয়তো। একটু ভেবে দেখবেন কি, আপনি কি এখন সে মানুষটি কে ভেবে কষ্ট পাবেন নাকি নিজের জীবনটা গুছিয়ে নিবেন। সে মানুষটি কিন্তু তার জীবন টা গুছিয়ে ফেলেছে। আপনার জীবন অনেক মূল্যবান। আপনার সময় অনেক মূল্যবান। একটু নিজেকে নিয়ে ভাবুন, আপনার ভবিষ্যত টা কিভাবে সুন্দর করা যায় সেটা নিয়ে ভাবতে পারেন।মায়া 

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও