আমার প্রেসার লো থাকে প্রায়ই । আমার রুচি নাই ।। বেঁচে থাকার জন্য খেতে হয়,,তাই খাই । কখনোই তেমন কিছু খেতে ইচ্ছা করে না। কোন ভিটামিন খেলে আমার শরীরের ভালো হবে ,, রুচি হবে।। সব সময় দুর্বল থাকি,, অসুস্থ থাকি ,,কখনো গা ব্যথা,,  কখনো পা ব্যথা ,, কখনো মাজা ব্যথা থাকেই আমার প্রতিদিন তিন থেকে চার ঘণ্টা জার্নি করার লাগে। কখন প্রতিদিন ছয় ঘণ্টার বেশি বাইরে থাকা লাগে কখনো কখনো 12 ঘন্টা থাকা লাগে। আমি মেয়ে এবং কলেজ ছাত্রী। আমার সব সময় মন খারাপ থাকে। সবসময় দুশ্চিন্তা অস্থির বিপদের ভয় লাগে। যখন একা থাকি তখন বেশি এমন লাগে। সবার মাঝে থাকলে লাগে না‌। পড়াশোনায় মনোযোগ দিতে পারি নাই পড়ার সময় বেশি টেনশন,, আমার জীবনের হতাশা গুলো বেশি মনে পড়ে,, অন্যমনস্ক হয়ে যাই।। আমার পড়ালেখার অনেক ক্ষতি হয়ে যাচ্ছে।।। বেঁচে থাকার ইচ্ছা মরে যাচ্ছে।। সব সমস্যা একবারে বল্লাম।। মনে হলো একটি অপরটির সাথে জড়িয়ে আছে।।। দয়া করে আপা সমাধান দিয়েন ।।।

প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। গ্রাহক নানান কারণে মুখের রুচি নষ্ট হয়ে যায় বা খাওয়ায় অরুচি দেখা দিতে পারে। এক্ষেত্রে ঘরোয়া উপায়ে মুখের রুচি বাড়ানো যেতে পারে। খাদ্য ও পুষ্টিবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে মুখের রুচি বাড়ানোর কিছু উপযোগী উপায় তুলে ধরা হয়। এখানে সেগুলো তুলে ধরা হল। মৌরির চা: মৌরি পিত্ত-রস নিঃসৃত করতে সাহায্য করে, ফলে হজম প্রক্রিয়া সক্রিয় হয়। দুই থেকে তিন কাপ পানিতে এক চা-চামচ মৌরি ও আধা চা-চামচ মেথি ফুটিয়ে নিন। এরপর ছেঁকে দিনে একদু বার পান করুন। যোগ ব্যায়াম: দিনে ৩০ থেকে ৪৫ মিনিট যোগ ব্যয়ামের অভ্যাস হজম প্রক্রিয়ায় সহায়তা করে। যোগ ব্যায়াম শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের জন্যই সমানভাবে উপকারী। তবে যোগ ব্যায়াম শুরুর আগে ডাক্তার ও প্রশিক্ষকের পরামর্শ নিয়ে নেওয়া দরকার। আদা: আদার নির্যাস খাবারে স্বাদ বাড়ানোর পাশাপাশি এর প্রাকৃতিক তেল হজম প্রক্রিয়ার সময় উৎপন্ন গ্যাস দূর করতে সাহায্য করে। গরম পানিতে আধা চামচ আদার রস মিশিয়ে পান করুন দিনে দুবার। এছাড়া রান্নায় আদার ব্যবহারও সমানভাবে উপকারী। ফল ও সবজি: আপেল, পেয়ারা, কমলা, আঙুর ইত্যাদি ফল ক্ষুদা বাড়াতে সহায়ক। অন্যদিকে টমেটো, ধনেপাতা, ব্রোকোলি ইত্যাদি সবজি হজমে সহায়ক। এই ফল ও সবজিগুলো হজমে সহায়ক এনজাইম নিঃসরণে সহায়তা করে। তাই ক্ষুদা মন্দা দূর করতে খাদ্যতালিকায় প্রচুর সবজি ও ফল রাখা উচিত। পানীয় গ্রহণ কমান: যারা ক্ষুদা মন্দায় ভুগছেন তাদের উচিত খাবার খাওয়ার সময় পানি, চা, কফি বা কোমল পানীয় এড়িয়ে চলা। কারণ অতিরিক্ত পানীয় গ্রহণের ফলে পেট ভরে যাওয়ার অনুভূতি হতে পারে। ফলে খাবারে অরুচি আসতে পারে। নিয়মমাফিক খান: নিয়ম মেনে চললে শরীরকে কার্যক্ষম রাখতে সাহায্য করে। সময় মতো ঘুমানো ও ঘুম থেকে ওঠা, ব্যায়াম করা, সময় মেনে খাওয়া এবং সারা দিনে পর্যাপ্ত পানি পান করা শরীর স্বাভাবিক রাখতে সহায়তা করে। আর এভাবে নিয়ম মেনে চললে অরুচি হওয়ার সমস্যাও কমে আসবে। আর আপনার মনখারাপ, দুসছিন্তা, অস্থিরতা, পড়াশুনায়  মনোযোগ না দিতে পারার ব্যাপারে আমরা আগে যে পরামর্শ দিয়েছি সেগুলো অনুসরন করুন ।  আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে, মায়া আপাকে জানাবেন, রয়েছে পাশে সবসময়, মায়া আপা ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও