অনেকেই ভুল ভঙ্গিতে ঘুমান। যেমন টেবিলের সামনে বসে মাথা দুটো বাহুতে রেখে ঘুমানো। এই অবস্থায় আপনি সহজেই লালা পড়তে পারে। সে জন্য ঘুমের ভঙ্গি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভঙ্গি সঠিক না হলে আপনার মুখ থেকে লালা পড়বে। লালা যাতে না পড়ে সে জন্য আপনার ঘুমের ভঙ্গি ঠিক করতে হবে।মুখগহবরে যে কোনো রোগ কিংবা প্রদাহ থাকার কারণে লালা পড়তে পারে'।দাঁত দিয়ে নখ কাটার বদভ্যাস অনেকেরই আছে। মুখে আঙ্গুল দেওয়া এবং যে কোনো জিনিসের ওপর সরাসরি কামুড় দেওয়ার অভ্যাসও অনেকের রয়েছে। এ ব্যাপারে সাবধান না হলে মুখের তাপমাত্রা ও আদ্রতা কমে গিয়ে মুখের ভেতর সহজেই ব্যাকটেরিয়া সৃষ্টি হওয়া সম্ভব। খাওয়ার পর দাঁতের ফাঁকে ছোট ছোট খাবারকণা জমে থাকার কারণে দাঁতের সুস্থতা নষ্ট হয়। দাঁত অসুস্থ হলে লালা পড়ার সমস্যা দেখা দিতে পারে। আরেকটি কথা, যদি মাউথ আলসার হয়, তাহলে মুখে থুতু বেড়ে যায়। এ কারণেও লালা পড়ে। এ সময় প্রতিরোধক ওষুধ খেলে ভালো। ফলে লালা পড়ার সমস্যাও দ্রুত চলে যাবে।প্রাথমিকভাবে ঘুমের ভঙ্গিমা বদলাতে বলা হয়। যেহেতু অতিরিক্ত লালা বেরিয়ে আসাটাই সমস্যা, তাই এটা কাটাতে লেবুর ছিলকায় খেলে বেশ উপকার মেলে। অনেকে ম্যানডিবুলার ডিভাইস ব্যবহার করেন। এটা এমন এক যন্ত্র যা মুখে লাগিয়ে ঘুমাতে হয়। এটা ঘুমের সময় মুখ বন্ধ রাখে এবং ঘুমকে আরামদায়ক করে। সমস্যাটা স্লিপ অ্যাপনিয়ার কারণে ঘটলে সিপিএপি মেশিন বহুল ব্যবহৃত পদ্ধতি। এই যন্ত্র কেবল লালা ঝরানোই বন্ধ করবে না, ঘুমকে গভীরে নিয়ে যাবে। আপনি সঠিক পদ্ধতিতে এবং সুষ্ঠুভাবে ঘুমাচ্ছেন- তা নিশ্চিত করবে সিপিএপি মেশিন। অনেকেই আরো সাহসী চিকিৎসা নিতে চান। সে ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞ সঠিক মাত্রার বোটোক্স ইঞ্জেকশন দিয়ে থাকেন। আর সমস্যা গুরুতর হলে শেষ পর্যন্ত সার্জারির পথ তো খোলা আছেই।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও