ওজন বাড়ানো সাধারন স্বাস্থ্য

শীতকালে ওজন বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ

Written by Maya Expert Team

শীতকালে ওজন বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ

শীতে ওজন বৃদ্ধি পাওয়া কোনো কাল্পনিক ঘটনা বা শহুরে জনশ্রুতি নয়। গবেষণায় দেখা গেছে যে, শীতের মাসগুলিতে অধিকাংশ ব্যক্তির ওজন প্রায় ১ পাউন্ড (আধা কেজি) বৃদ্ধি পায়। শুনতে পরিমাণটি কম মনে হলেও এক দশক সময়ের মধ্যে এটি বড় মাপের ওজন বৃদ্ধিতে পরিণত হয়। শীতে মানুষের ওজন বৃদ্ধি পায় এ সম্পর্কে ভালো প্রমাণ আছে। আপনি যতটা অতিরিক্ত ওজনের হবেন আপনার ওজন ততই বাড়তে থাকবে। আর মৌসুমি ওজন বৃদ্ধির সবচেয়ে দুশ্চিন্তার বিষয় হচ্ছে এভাবে বেড়ে যাওয়া অতিরিক্ত ওজন স্থায়ী হয়ে যায়। লোকদের অতিরিক্ত ওজন আর কমতে দেখা যায় না। শীতকালে ওজন বেড়ে যাওয়ার তিনটি প্রধান কারণ হচ্ছে শারীরিক কাজকর্মের অভাব, আরামে খাদ্যগ্রহণ এবং বিয়ের অনুষ্ঠানসমূহে অত্যধিক খাদ্য গ্রহণ। ঠান্ডা আবহাওয়া ও ছোট দিন হওয়ার কারণে বাইরে ব্যায়াম বা শরীর চর্চা করা কঠিন হয়ে পড়ে, তাই শীতকালে কোনো রূপ ব্যায়াম না করা সহজ হয়ে যায়। যদি আপনি বাইরে বেশি বের না হন, তাহলে রান্নাঘরে রাখা উচ্চ ক্যালরি সমৃদ্ধ খাবার, যেমন বিস্কুট বা কেক খাওয়ার জন্য অনেক সময় ও অধীর আগ্রহ থাকে। সেই সাথে নতুন বছর উদযাপন ও বড়দিনের মতো উৎসব-অনুষ্ঠান এর খাবার আয়োজন যুক্ত হয়। তাহলে এর সমাধান কী?

শীতকালে কীভাবে ওজন বৃদ্ধি এড়িয়ে যাবেন তার ৪টি সহজ পদ্ধতি এখানে বলা হলো।

১. রান্নাঘরে খাদ্য সংগ্রহ করুন

বিভিন্ন ধরণের মুখ্য খাদ্য, যেমন টমেটোর ক্যান, মশলা, মটরশুটি ও ডাল, শুকনো সম্পূর্ণ গমের পাস্তা, সম্পূর্ণ গমের সেরিয়াল, ন্যুডলস, কুসকুস এবং শুকনো ফল দ্বারা রান্নাঘর পরিপূর্ণ রাখুন। ফ্রিজ জায়গা থাকলে কিছু অতিরিক্ত ব্রেড বা পাউরুটি রেখে দিন। এভাবে, আপনি খুব সহজেই পুষ্টির সমৃদ্ধ সান্ধ্যকালীন খাবার, যেমন ডাল অথবা ভেজিটেবল স্যুপ দ্রুততার সাথে তৈরি করতে পারবেন। টাকাও বাঁচানো যাবে এবং সেই সাথে উচ্চ ক্যালরিযুক্ত খাবার বাসায় আনার আগ্রহও এড়ানো যাবে।

২. শরীচর্চা বাড়ান

বাইরের তাপমাত্রা কমে গেলে বাইরে ব্যায়াম করার অভ্যাস সহজেই হারিয়ে যায়। শীতকালে, ক্যালরি হ্রাস করা যায় এমন কাজ বাইরের কাজ, যেমন ক্ষুদ্র পরিধিতে হাঁটা বা বাগান করা প্রভৃতি আমরা বন্ধ করে দেই। কিন্তু এই ধরণের কাজ বা শরীচর্চা কমিয়ে দেয়া শীতকালে ওজন বৃদ্ধির জন্য অন্যতমভাবে দায়ী। ঠান্ডা আবহাওয়া ও ক্ষুদ্র দিনের অর্থ এই না যে আপনি সম্পূর্ণরূপে ব্যায়াম করা ছেড়ে দিবেন। তার পরিবর্তে, যে সময়ে ব্যায়াম বা শরীচর্চা করতে পারেন সে অনুযায়ী সময়সূচী বদলে নিন। ক্যালরি কমানোর জন্য আপনাকে নিয়মমাফিক ব্যায়াম করতে হবে না। ঘরের মধ্যে আবদ্ধ থাকার পর অল্প কিছুটা হাঁটা আপনাকে পুনারুজ্জীবিত করে তুলবে এবং সেই সাথে শরীরে রক্ত প্রবাহ বাড়িয়ে দিবে। কিছু গরম কাপড় পরে পার্শ্ববর্তী এলাকায় দৌড়িয়ে বা জগিং করে আসুন। যদি আপনি বাসাতে থাকতে পছন্দ করেন, তাহলে নাচ এবং ব্যায়ামের সিডি কিনে আনুন এবং কর্মক্ষেত্রে লিফট-এর পরিবর্তে সবসময় সিঁড়ি দিয়ে উঠানামা করুন। এই ছোট ছোট কাজগুলো শীতকালে বৃদ্ধি পাওয়া ওজন হ্রাসে অনেক বড় পরিবর্তন নিয়ে আসতে পারে। বিয়ে বাড়িতে নিয়মিত বিরতিতে ভারী খাবার, যেমন রোস্ট, পোলাও গ্রহণের ফলে বৃদ্ধি পাওয়া ওজন কমানো হয়ত কঠিন হতে পারে, তবে ব্যায়াম করে উক্ত অতিরিক্ত ওজন অবশ্যই হ্রাস করতে পারবেন।

৩. বুদ্ধি করে পানীয় গ্রহণ করুন

শীতকালে শরীর গরম রাখার জন্য উষ্ণ পানীয় গ্রহণ প্রয়োজনীয়। তবে, কিছু কিছু উষ্ণ পানীয় উচ্চ ক্যালরি যুক্ত হয়। কফি শপগুলোর দুধযুক্ত, ঘন পানীয় এবং হুইপড ক্রীম মিশ্রিত গরম চকোলেট আপনার খাদ্য তালিকায় প্রচুর পরিমাণ ক্যালরি যোগ করে দিবে। এর বদলে সাধারণ চা বা কফি গ্রহণ করুন অথবা আপনার পানীয় চর্বিমুক্ত (স্কিমড মিল্ক দ্বারা তৈরি) করে পরিবেশন করতে বলুন। গ্লোরিয়া জিনস এবং নর্থ এন্ড এক কাপ উষ্ণ কফি গ্রহণের সুন্দর জায়গা কিন্তু পানীয় গ্রহণের সাথে সাথে অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধির প্রতিও খেয়াল রাখুন।

৪. শীতকালে প্রাপ্ত শাকসবজি গ্রহণ

ভিন্ন ভিন্ন ধরণের খাদ্য গ্রহণ বিভিন্ন ধরণের পুষ্টি যেমন, ভিটামিন ও মিনারেল প্রাপ্তি নিশ্চিত করে। প্রতিদিন একই ধরণের খাবার খাবেন না। মূলা জাতীয় সবজি যেমন গাজর ও শালগম ও শীতকালের সবজি যেমন বাঁধাকপি ও ফুলকপি গ্রহণ করুন। এগুলো ক্ষুধানিবারণকারী ও সেই সাথে পুষ্টিতে পরিপূর্ণ। তাই দ্বিতীয়বার ছোটখাট খাবার গ্রহণের প্রয়োজন পড়ে না। বাইরে খেলে সালাদের অর্ডার দেয়া একটি ভাল আইডিয়া হতে পারে।

মায়া বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে মায়া এন্ড্রয়েড এপ ডাউনলোড করুন এখান থেকে: https://bit.ly/2VVSeZa

About the author

Maya Expert Team

Leave a Comment