হৃদরোগ হৃদরোগ সংক্রান্ত

হৃদরোগ

Written by Maya Expert Team

হৃদরোগ বা Coronary heart disease (CHD), যাকে ischaemic heart disease (IHD)-ও বলা হয়ে

থাকে, বাংলাদেশের মানুষের মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ। হৃদযন্ত্রের অসুখের মুল লক্ষণগুলো

হচ্ছে বুকে ব্যাথা (angina) , হার্ট অ্যাটাক, এবং হার্ট ফেইল হওয়া। তবে সবার ক্ষেত্রে একই

রকমের লক্ষন দেখা যায় না, এবং কারো কারো ক্ষেত্রে বিভিন্ন পরিক্ষার মাধ্যমে নির্ণয় করার

আগে CHD-র কোন লক্ষন দেখা নাও দিতে পারে।

হৃদপিণ্ড সম্পর্কিত তথ্য

হৃদপিণ্ড হচ্ছে এক ধরনের মাংসপেশি যা সারা শরীরে রক্তসঞ্চালন করে এবং প্রতি মিনিটে প্রায় ৭০

বার স্পন্দিত হয়। রক্ত হৃদপিণ্ডের ডান অংশ থেকে বেরিয়ে ফুসফুসে গিয়ে অক্সিজেনের সাথে মেশে।

অক্সিজেন মিশ্রিত রক্ত সেখান থেকে আবার হৃদপিণ্ডে ফিরে যায়, এবং সেখান থেকে ধমনির মাধ্যমে

শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে ছড়িয়ে পড়ে। অঙ্গ-প্রত্যঙ্গসমুহ থেকে রক্ত শিরা-উপশিরার

মাধ্যমে আবার হৃদযন্ত্রে ফিরে আসে এবং সেখান থেকে আবার ফুসফুসে যায়। এই পুরো

প্রক্রিয়াটিকে রক্ত সঞ্চালন প্রক্রিয়া বলে। হৃদপিণ্ড তার নিজের জন্য রক্ত সরবরাহ পায় এর

উপরিতলের রক্তনালী (blood vessels) বা হৃদপিণ্ডে রক্ত সরবরাহকারী ধমনিসমুহের জালিকার মত

বিস্তৃত সুক্ষ রক্তনালী (network of coronary arteries)-এর মাধ্যমে।

হৃদরোগ কেন হয়

হৃদপিণ্ডে রক্তসরবরাহকারি ধমনিসমুহে চর্বিযুক্ত পদার্থ জমে যাওয়ার কারনে হৃদপিণ্ডে রক্ত

সরবরাহ ব্যাহত হওয়া বা বন্ধ হয়ে যাওয়াকে CHD বলে। সময়ের সাথে সাথে সাথে আপনার ধমনির

গায় চর্বিজাতীয় পদার্থ জমতে পারে। এই প্রক্রিয়াকে atherosclerosis (অ্যাথেরোস্ক্লেরোসিস)

বলে এবং জমে যাওয়া চর্বিকে বলে atheroma।

হৃদরোগ, এর লক্ষন, চিকিৎসা, এটির প্রতিরোধ এবং সুস্থ জীবন যাপন করার জন্য কি করনীয় সে

সম্পর্কে আরও জানতে আমাদের নিবন্ধগুলো পড়ুন।

About the author

Maya Expert Team

1 Comment

Leave a Comment