বুক ধড়ফড় করা হৃদরোগ সংক্রান্ত

বুক ধড়ফড় করা (palpitations)

বুক ধড়ফড় করা 

আপনার হৃদস্পন্দন যখন বিশেষভাবে বেড়ে যায় তখন আপনার বুক ধড়ফড় করার অনুভূতি হয়। এটা সাধারণত ক্ষতিকারক নয় এবং কয়েক সেকেন্ড থেকে কয়েক মিনিটের মধ্যে থেমে যায়। কয়েক মুহূর্তের জন্য আপনার মনে হতে পারে যে আপনার হৃদপিণ্ড ধক ধক করছে, বা অনিয়মিতভাবে স্পন্দিত হচ্ছে। আপনার গলায় ও ঘাড়েও অস্বস্তিকর অনুভূতি হতে পারে। বুক ধড়ফড় করাটা ভীতিকর হতে পারে, তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এটি আপনার হৃদপিণ্ডের কোন সমস্যার লক্ষন নয়। তবে, বুক ধড়ফড় করার সাথে সাথে মাথা ঘোরা বা বুকে চাপ অনুভূত হলে তা হৃদরোগের উপসর্গ হতে পারে। যদি আপনার বুক ধড়ফড় করার সাথে অন্য কোন উপসর্গ দেখা দেয় তাহলে চিকিৎসকের কাছে যান।

বুক ধড়ফড় কেন করে

  • জীবনযাপনের ধরনের কারণে
    আপনি কোন কারণে ভীত, উদ্বিগ্ন অথবা উত্তেজিত হলে অ্যাড্রেনালিন (adrenaline) নামের একধরনের হরমোন নিঃসৃত হয়, যার প্রভাবে আপনার বুক ধড়ফড় করতে পারে। মশলাযুক্ত ভারি খাবার খেলে, অতিরিক্ত ক্যাফেইনযুক্ত পানীয় বা মদ পান করলে, ধূমপান করলে অথবা মাদক গ্রহন করলে বুক ধড়ফড় করতে পারে। যদি আপনার মনে হয় জীবন যাপনের ধরনের কারনে আপনার বুক ধড়ফড় করছে, তাহলে বিশ্রামের বিভিন্ন উপায়ের মাধ্যমে এবং ব্যায়ামের মাধ্যমে আপনার উপরের চাপ (stress levels) কমানোর চেষ্টা করুন। আপনি কফি এবং অন্যান্য শক্তিবর্ধক পানীয় পান করা ও মাদকদ্রব্য সেবন করাও এড়িয়ে চলুন।
  • হঠাৎ আতঙ্কিত হওয়া (Panic attacks)
    বুক ধড়ফড় করার সাথে সাথে যদি আপনি দুশ্চিন্তা, মানসিক চাপ ও আতঙ্ক বোধ করেন তাহলে আপনি হয়ত প্যানিক অ্যাটাক বা হঠাৎ আতঙ্কে আক্রান্ত হয়েছেন। প্যানিক অ্যাটাকের কারণে আপনি উদ্বেগ, দুশ্চিন্তা বা ভয়ে অভিভুত হয়ে পড়তে পারেন, এবং আপনার বমি, ঘাম কাঁপুনি ও বুক ধড়ফড় হতে পারে। প্যানিক অ্যাটাক খুবই ভীতিকর ও প্রবল হতে পারে, কিন্তু সাধারণত এটি বিপদজনক নয়।

ঔষধ

খুবই কম ক্ষেত্রে কোন ঔষধ (যেমন হাঁপানির চিকিৎসায় ব্যবহৃত ইনহেলার বা গলগণ্ডের চিকিৎসায় ব্যবহৃত ট্যাবলেট)-এর পার্শ্বপতিক্রিয়ার ফলে বুক ধড়ফড় করতে দেখা যায়। যদি মনে হয় যে ঔষধের পার্শ্বপতিক্রিয়ার কারনে আপনার বুক ধড়ফড় করছে তাহলে তা চিকিৎসককে জানান। ডাক্তারের সঙ্গে কথা না বলে আপনার ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী ঔষধ খাওয়া বন্ধ করবেন না।

মাসিক, গর্ভাবস্থা এবং মেনোপোজ (menopause)

নারীদের মাসিক (periods), গর্ভাবস্থা (pregnancy) অথবা মেনোপোজ (menopause) চলাকালীন সময়ে হরমোনের পরিবর্তনের কারনে বুক ধড়ফড় করতে পারে। সাধারনত এগুলো অল্প সময় থাকে, এবং এর জন্য উদ্বিগ্ন হবার দরকার নেই।

বিশেষ স্বাস্থ্য সমস্যা

নিচের অসুখগুলোর কারণে হৃদপিণ্ড দ্রুত, জোরে জোরে বা অনিয়মিতভাবে স্পন্দিত হতে পারেঃ

● Thyroid (থায়রয়েড) গ্রন্থি অত্যধিক সক্রিয় হলে

● রক্তে শর্করার পরিমান কমে গেলে

● রক্তস্বল্পতা (anaemia ) থাকলে

● রক্তচাপ কম হলে

● বেশি জ্বর (১০০º ফারেনহাইট বা ৩৮º সেলসিয়াসের বেশি) হলে

● শরীরে পানিশূন্যতা হলে

● হৃদরোগ হলে

কখন আপনার হৃদরোগ হতে পারে

যদি আপনার ঘন ঘন বুক ধড়ফড় করে, বা এর সাথে মাথা ঘোরা বা বুকে চাপ অনুভব করেন তাহলে আপনার চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন। আপনি হয়ত অনিয়মিত হৃদস্পন্দনের (arrhythmia) সমস্যায় ভুগছেন। চিকিৎসক আপনার হৃদপিণ্ডের স্পন্দনের গতি ও ছন্দ মাপার জন্য ইলেক্ট্রোকার্ডিওগ্রাম (ECG) করবেন। এর দ্বারা আপনার কোন সমস্যা আছে কি না এবং চিকিৎসার প্রয়োজন আছে কি না তা তাৎক্ষনিকভাবে বুঝা যাবে। তবে, পরীক্ষা করার সময় যদি আপনার বুক ধড়ফড় না করে তাহলে ECG-তে পুরোপুরি স্বাভাবিক রিপোর্ট আসবে। আরও পরীক্ষা করার প্রয়োজন হতে পারে যা, আপনার ডাক্তার ঠিক করবে। হৃদস্পন্দনের সবচেয়ে সাধারণ সমস্যাগুলোর একটি হচ্ছে অ্যাট্রিয়াল ফিব্রিলেশন (Atrial fibrillation), এবং এটি মস্তিস্কের রক্তক্ষরণ (stroke)-এর অন্যতম প্রধান কারন, যার ফলে রোগি চিরতরে পঙ্গু হয়ে যেতে পারে। যাদের বয়স ৫৫-এর উপরে তারা সাধারনত অ্যাট্রিয়াল ফিব্রিলেশনে আক্রান্ত হয়। এর ফলে দ্রুত, অনিয়মিত হৃদস্পন্দন হয়, যার ফলে বার বার বুক ধড়ফড় করে। এর সাথে সাথে আপনি মাথা ঘোরা, শ্বাস কষ্ট ও প্রবল ক্লান্তি অনুভব করতে পারেন। অ্যাট্রিয়াল ফিব্রিলেশনের কারণে সাধারণত জীবন সংশয় হয় না তবে, এটি অস্বস্তিকর হতে পারে এবং চিকিৎসা দরকার হতে পারে। অ্যাট্রিয়াল ফিব্রিলেশনের মতই আরেকটি অসুখ হচ্ছে সুপরাভেন্ট্রিকুলার ট্যাকিকার্ডিয়া বা SVT (Supraventricular tachycardia)। এর ফলেও হৃদপিণ্ড মাঝে মাঝে খুব দ্রুত স্পন্দিত হয়, কিন্তু তা সাধারনত একই ছন্দে চলতে থাকে এবং অনিয়মিতভাবে স্পন্দিত হয়না। SVT-এর আক্রমন সাধারণত বিপদজনক নয় এবং এটি কোন রকম চিকিৎসা ছাড়া নিজে নিজেই স্বাভাবিক হয়ে যায়। তবে এটি দীর্ঘ সময় ধরে হলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া উচিত। হৃদস্পন্দনের ছন্দের অন্যান্য সমস্যার কারণেও বুক ধড়ফড় করতে পারে, যা পরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া সম্ভব। যদি আপনার চিকিৎসক আপনার হৃদপিণ্ডের সমস্যাটি সঠিকভাবে নির্ণয় করতে সমর্থ হন তবে সেটি কি ধরনের তা আপনাকে বুঝিয়ে বলতে বলুন। আপনি আমাদেরকেও আপনার পরীক্ষার রিপোর্টগুলো পাঠাতে পারেন এবং মায়া আপার (Maya Apa) পরামর্শ নিতে পারেন।

About the author

Maya Expert Team