ঘরে কী করে লোম প্লাক করবেন

বাড়তি চুল সরিয়ে ফেলতে এবং ভ্রুর সঠিক আকৃতি বজায় রাখতে প্লাক করাটাই সবচেয়ে ভাল উপায়। এর জন্য আপনার শুধু একটা চিমটা দরকার হবে। তবে বিভিন্ন ধরনের চিমটার বিষয়ে আপনার ধারনা থাকাটা জরুরি। বিভিন্ন জায়গার জন্য বিভিন্ন ধরনের চিমটা ভাল কাজ করে।

এখানে প্লাকিং এর জন্য ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরনের চিমটার বর্ণনা দেয়া হল –

1. গোল মাথা চিমটা (Round tip Tweezers):

এগুলো ব্যবহার করার সময় ত্বকের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা কম। গাল ও থুঁতনির এবং সাদা চুল তোলার জন্য এই চিমটাগুলো ব্যবহৃত হয়, কারন সেখানে তীক্ষ্ণ চিমটা প্রয়োজন হয় না।

2. তীক্ষ্ণ মাথার চিমটা (Point Tip Tweezers):

সুক্ষ চুল তোলার জন্য এটি ব্যবহার করা হয়। ভ্রুর নিখুঁত আকৃতি দিতে বা উপরের ঠোঁটের উপরের ছোট ছোট চুল তুলতে এটি ব্যবহার করতে পারেন।

3. চারকোনা মাথাওয়ালা চিমটা (Square tip Tweezers):

এগুলো একসাথে কয়েকটি করে চুল তুলতে ব্যবহার করা হয়। একেবারে অগোছালো ভ্রু ঠিক করার জন্য এটি প্লাক করা শুরু করতে পারেন।

 

4. তেরছা মাথার চিমটা (Slanted tips tweezers):

এগুলোই বাজারে সবচেয়ে বেশি পাওয়া যায়। যারা নতুন নতুন প্লাক করা শুরু করছেন তাদের জন্য এটি সবচেয়ে ভাল, কারন এটি দিয়ে একদম ছোট লোমগুলো ছাড়া আর সব ধরনের চুল তুলে ফেলা যায়।

 

বাড়িতে কিভাবে প্লাক করবেন

1. যদি আপনার চিমটাটা দিয়ে ছোট লোমগুলো ভাল করে ধরা না যায় তাহলে ভাল দেখে আরেকটা চিমটা কিনে নিন। রাবারের গ্রিপযুক্ত চিমটা কিনতে পারেন, তাতে ধরে কাজ করতে সুবিধা হবে।

2. ব্যবহারের আগে চিমটাটি অবশ্যই অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল সাবান দিয়ে পরিষ্কার করে নিবেন। ময়লা যন্ত্র ব্যবহার করলে ইনফেকশন হতে পারে।

3. প্লাক করার আগে ত্বক ধুয়ে নিন। লোমকূপগুলো খুলে দেয়ার জন্য সেখানে গরম একটুকরো কাপড় ধরে রাখুন। বেশি গরম তোয়ালে ব্যবহার করবেন না, তাতে চামড়া পুড়ে যেতে পারে।

4. আয়নার যে পাশে সব স্বাভাবিকের চাইতে বড় দেখা যায়, মুখ দেখতে সে দিকটা ব্যবহার করুন।

5. এবার চিমটা ব্যবহার করে লোম যেদিকে বাড়ে সেই দিকে টান দিয়ে সেটি তুলে ফেলুন। এতে চামড়ায় কম গোটা উঠবে।

6. নিখুঁত আকৃতির ভ্রু পেতে বিভিন্ন ধরনের চিমটা ব্যবহার করুন।

7. শেষ হয়ে গেলে, ত্বকে ফেসিয়াল টোনার ব্যবহার করুন। আইস কিউবও ব্যবহার করতে পারেন। এতে খুলে যাওয়া লোমকূপগুলো বন্ধ হয়ে যাবে।

8. প্লাক করার পরপর ময়েসচারাইজার ব্যবহার করবেন না, কারন তাহলে খোলা লোমকুপ দিয়ে সেটি ঢুকে গিয়ে ব্রন তৈরি করবে।