ত্বকের যত্ন মনোসামাজিক সৌন্দর্য চর্চা

খুশকি থেকে রেহাই পেতে

খুশকি থেকে রেহাই পেতে
শীতকালে খুশকি হওয়া খুবই সাধারণ একটি সমস্যা। মূলত প্রকৃতির রুক্ষতা থেকে আমাদের স্ক্যাপ্ল এর ময়েশ্চার হারায় এবং চুলে খুশকির প্রাদুর্ভাব ঘটে। শীতকালীন এই খুশকি থেকে রেহাই পাওয়ার কিছু উপায় এবং টিপস নিম্নে উল্লেখ করা হল –

• চুল এবং চুলের গোড়া পরিষ্কার রাখা খুশকি দূর করার পূর্ব শর্ত। চুলে খুশকি হলে প্রথমেই আপনার প্রতিদিনকার শ্যাম্পুর পাশাপাশি ব্যবহার করতে হবে খুশকিনাশক শ্যাম্পু। বাজারে যেসব অ্যান্টি ড্যানড্রাফ শ্যাম্পু পাওয়া যায় যেমন – Clear, Head and Shoulder ইত্যাদি শ্যাম্পু অনেক সময় খুশকি দূর করতে পারে না। এক্ষেত্রে মেডিসিনাল অ্যান্টি ড্যানড্রাফ শ্যাম্পু ব্যবহার করতে পারেন। যেকোনো ফার্মেসীতে সিলেক্ট প্লাস, ড্যানসেল নামের মেডিসিনাল অ্যান্টি ড্যানড্রাফ শ্যাম্পু পাবেন। এই শ্যাম্পু গুলি দ্রুত খুশকি দূর করতে সাহায্য করে।

• খুশকি নাশক শ্যাম্পু ব্যবহারের ক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে – শ্যাম্পু আঙ্গুল দিয়ে চুলের গোড়ায় গোড়ায় এবং সিঁথিতে লাগাতে হবে এবং লাগানোর প্রায় ১০ মিনিট পর মাথা পানি দিয়ে ধুতে হবে। আর খুশকি নির্মূল করতে প্রথম তিন দিন টানা খুশকি নাশক শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হবে তারপরের দিন অন্য যেকোনো ময়েশ্চারাইজিং শ্যাম্পু ব্যবহার করে আবার দুই বা একদিন খুশকি নাশক শ্যাম্পু ব্যবহার করতে হবে। টানা তিন থেকে চার দিনের বেশি খুশকি নাশক শ্যাম্পু ব্যবহার করলে চুল সম্পূর্ণ শুষ্ক এবং প্রাণহীন হয়ে যায়।

• কখনোই চুলের গোড়ায় কন্ডিশনার ব্যবহার করবেন না। যেকোনো প্রকার প্রোটিন বা ডিপ ট্রিটমেন্ট ক্রিম ব্যবহারও এই সময়ে বন্ধ রাখুন।

• এক কাপ কুসুম গরম পানিতে ২ টেবিল চামচ লেবুর রস এবং ১ টেবিল চামচ নারিকেল তেল বা অলিভ অয়েল মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করুন। এই মিশ্রণ চুলের গোড়ায় গোড়ায় লাগান এবং ৩০ মিনিট পর চুল শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ২ বার এই মিশ্রণ লাগাতে পারেন।

• একইভাবে এক কাপ কুসুম গরম পানিতে ৩ টেবিল চামচ সাদা ভিনেগার মিশিয়ে উপরোক্ত উপায়ে লাগাতে পারেন।

• মেথি সারারাত ভিজিয়ে রেখে পরদিন সকালে তা চুলের গোড়ায় গোড়ায় লাগান। ১ ঘন্টা রেখে শ্যাম্পু করে ফেলুন।

• নিম পাতা বেটে প্যাক বানিয়ে চুলে লাগাতে পারনে। এটি চুলের উকুন এবং খুশকির সমস্যা দুই – ই দূর করে।

• টক দই এবং মেথি গুড়ো মিশিয়ে প্যাক বানিয়ে চুলের গোড়ায় গোড়ায় লাগান। ৩০ থেকে ৪৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

• মাঝে মাঝে চুলে কুসুম গরম নারিকেল তেল বা অলিভ অয়েল লাগান। লাগানোর পর একটি টাওয়েল গরম পানিতে ভিজিয়ে পুরো চুল মুড়িয়ে রাখুন ৩০ থেকে ৪০ মিনিট। এরপর চুলে যেকোনো ধরণের প্যাক লাগাতে পারেন কিংবা চুল শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলতে পারেন। এই পদ্ধতিতে চুলের গোড়ায় জমে থাকা খুশকি সহজেই পরিষ্কার হয়।

• চুল স্বাভাবিকভাবে বা হালকা রোদে শুকান। মাঝে মাঝে হেয়ার ড্রায়ার ব্যবহার করলেও এর তাপমাত্রা কম রাখার চেষ্টা করুন।

• বাটা মেহেদি এবং আমলার গুড়োও খুশকি দূর করতে উপকারী। তবে শীতকালে মেহেদী এবং আমলা দুটোই চুল শুষ্ক করে ফেলে।

• মাঝে মাঝে শ্যাম্পু করে চুলে গাড় চায়ের লিকার ঢেলে দিন। চায়ের লিকার কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করে এবং খুশকি কমাতে সাহায্য করে।

• অলিভ অয়েল বা নারিকেল তেলে কয়েকটি আমলকী দিয়ে চুলায় ফুটিয়ে নিন। তেল ঠাণ্ডা হলে তা মাথায় লাগান এবং ১ ঘণ্টা রেখে শ্যাম্পু করে ফেলুন।

• সবসময় পরিষ্কার চিরুনি এবং ব্রাশ ব্যবহার করুন।

 

About the author

Maya Expert Team