মনোসামাজিক মেকআপ টিপস সৌন্দর্য চর্চা

টাইটলাইনিং (ইনভিসিবল আইলাইনিং) টিপস

টাইটলাইনিং (ইনভিসিবল আইলাইনিং) টিপস
বেশিরভাগ মেয়েরই প্রতিদিনকার সাজ আইলাইনার ছাড়া পূর্ণ হয় না। আইলাইনিং লিকুইড, জেল বা পেন্সিল লাইনের দিয়ে করা যায়। প্রায়ই আইলাইনিং করতে গেলে দেখা যায় উপরের ল্যাশলাইনের লাইনিং এবং চোখের পাপড়ির নিচে সামান্য ফাঁক থেকে যায়। এই উপরের ল্যাশ লাইনের এই শুন্য জায়গা ফিল করার পদ্ধতিকে বলা হয় টাইটলাইনিং। টাইটলাইনিং করলে চোখের আকারও বড় দেখায়। চোখের উপরের ল্যাশ লাইনে কালো লাইনার দিয়ে টাইটলাইনিং করা হলে চোখের ডেফিনিশান ভালোভাবে বুঝা যায় কিন্তু কোন লাইনার ব্যবহার করা হয়েছে কিনা টা বুঝা যায় না। এই জন্য টাইটলাইনিং –কে ইনভিসিবল আইলাইনিং ও বলা হয়। তাছাড়া নরমাল থেকে হেভি যেকোনো লুকের জন্য টাইটলাইনিং মানানসই।

টাইটলাইনিং টিউটোরিয়াল

১. চোখের চারপাশে কনসিলার লাগানোর পর টাইটলাইনিং করতে হবে। টাইটলাইনিং করার পর চোখে আইশ্যাডো, কাজল লাগাতে হবে।

২. পরিষ্কার হাতে চোখের উপরের পাতাকে তুলে ধরতে হবে।

৩. একটি শার্প পেন্সিল লাইনার বা ফ্ল্যাট আইলাইনার ব্রাশের সাহায্যে চোখের উপরের পাতার ভেতরের দিকে লাইনিং টানতে হবে।

৪. ব্রাশকে বা পেন্সিলকে সামনে পেছনে করে লাইনিং করতে হবে। চোখের বাইরের দিকের কর্নারে লাইনিং একটু মোটা করে করলে চোখের ডেফিনিশান এবং আকার বড় দেখায়।

৫. লিকুইড লাইনার টাইলাইনিং করতে ব্যবহার করা উচিত নয়। এতে লাইনার চোখের ভেতর চলে যেতে পারে। টাইটলাইনিং –এর জন্য সবথেকে উপযোগী হল জেল লাইনার বা পিগমেন্টেড পেন্সিল লাইনার।

৬. সবসময় কালো কিংবা ডার্ক ব্রাউন লাইনার দিয়ে টাইটলাইনিং করুন।

৭. টাইটলাইনিং করার পর মাসকারা ব্যবহার করতে ভুলবেন না।


প্রোডাক্ট সাজেশানঃ
জেল লাইনার দিয়ে টাইটলাইনিং করতে প্রয়োজন জেল লাইনার এবং ফ্ল্যাট লাইনার ব্রাশের। দেশে বড় বড় কসমেটিক স্টোরে উপরের দু ধরনের প্রোডাক্টই পাওয়া যায়। লরিয়ালের জেল লাইনারের মূল্য প্রায় ৭০০ টাকা। তাছাড়া পিগমেন্টেড পেন্সিল লাইনার হিসেবে আপনি Nior এর পেন্সিল লাইনার ব্যবহার করতে পারেন। তাছাড়া ফ্ল্যাট হেডের এক প্রকারের পেন্সিল লাইনার আছে যা টাইটলাইনিং – এর জন্য উপযোগী। La splash এর ফ্ল্যাট হেড লাইনারের মূল্য প্রায় ২৫০ টাকা।

About the author

Maya Expert Team