বাই-পোলার-ডিজঅর্ডার ব্যক্তিত্ব সংক্রান্ত সমস্যা মনোসামাজিক মানসিক স্বাস্থ্য

বাইপোলার রোগের উপসর্গ

বাইপোলার রোগের উপসর্গ
“মেজাজের পর্যায়ক্রমিক চূড়ান্ত পরিবর্তন” (mood swings) – এই বৈশিষ্ট দ্বারা বাইপোলার রোগ সনাক্ত করা হয়। এর ফলে আপনার মন একটি মানসিক চরম অবস্থা উন্মত্ততা (ম্যানিক) থেকে, বিপরীত আরেকটি চরম অবস্থা বিষাদগ্রস্থতায় পর্যায়ক্রমিকভাবে পরিবর্তিত হতে থাকবে। উন্মত্ততা (ম্যানিয়া) এবং বিষাদের পর্বগুলো প্রায়ই কয়েক সপ্তাহ অথবা মাসের জন্য স্থায়ী হতে পারে।


বিষাদ পর্ব
বিষাদ পর্বের সময় আপনার নিচের উপসর্গগুলো হতে পারেঃ

  • নিজেকে খুব দুঃখী এবং আশাহীন মনে হওয়া
  • নির্জীব মনে হওয়া
  • কোন বিষয়ে মনোযোগ দিতে কিংবা কোন কিছু মনে করার ক্ষেত্রে সমস্যা হওয়া
  • দৈনন্দিন কাজে আগ্রহ হারিয়ে ফেলা
  • শূন্যতা বোধ হওয়া এবং নিজেকে অপদার্থ বা অকর্মণ্য মনে করা
  • অপরাধবোধে ভোগা
  • সব কিছুকে বিষাদময় মনে হওয়া
  • নিজের প্রতি সন্দেহ হওয়া
  • ভ্রান্ত হওয়া এবং অলীক অস্তিত্বে বিশ্বাস করা এবং অযৌক্তিক চিন্তা ভাবনা করা
  • ক্ষুধা কমে যাওয়া
  • ঘুমের সমস্যা
  • অনেক আগেই ঘুম থেকে উঠে যাওয়া
  • আত্মহত্যা প্রবনতা


উন্মত্ততা (ম্যানিয়া)
বাইপোলার রোগের উন্মত্ততা (ম্যানিয়া) পর্বে নিম্নলিখিত উপসর্গগুলো থাকতে পারেঃ

  • খুব সুখী অনুভব করা, গর্বিত অথবা অতিরিক্ত আনন্দ অনুভব করা
  • খুব দ্রুত কথা বলা
  • নিজের মধ্যে অতিরিক্ত শক্তি অনুভব করা
  • নিজেকে খুব শক্তিমান মনে করা
  • নিজের মধ্যে ক্রমাগত সৃজনশীল নতুন ভাবনা অনুভব করা
  • খুব সহজেই বিভ্রান্ত হওয়া
  • সহজেই বিরক্ত হওয়া
  • ভ্রান্ত এবং অলীক বিশ্বাসে বিশ্বাস করা, সহজেই বিরক্ত হওয়া
  • ঘুমের ইচ্ছা না হওয়া
  • খেতে ইচ্ছে না করা
  • এমন কিছু করা যা সর্বনাশা অবস্থা সৃষ্টি করে, যেমন প্রচুর পরিমান টাকা খরচ করে ফেলা যা হয়ত সামর্থের বাইরে
  • চরিত্রের বাহিরে কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া এবং এমন কিছু করা যা ক্ষতিকারক হতে পারে।


বিষাদের ধরন এবং ম্যানিয়া

  • যদি আপনার বাইপোলার রোগ থাকে, আপনার বিষাদর পর্ব উন্মত্ততা (ম্যানিয়া) পর্বের চেয়ে ঘন ঘন হতে পারে ।
  • বিষাদ এবং উন্মত্ততা (ম্যানিয়া) পর্বের মাঝে, আপনার এমন কিছুসময় আসতে পারে যখন আপনি স্বাভাবিক অবস্থায় থাকবেন।
  • বিষাদ এবং উন্মত্ততা (ম্যানিয়া) পর্ব গুলোর চক্রাপরিবর্তনের ধরন সবসময় একরকম হয়না এবং কিছু মানুষ অনুভব করতে পারেঃ
  • দ্রুত চক্র – যেখানে বাইপোলার রোগাক্রান্ত একজন মানুষ উন্মত্ততা (ম্যানিক) থেকে, বিপরীত চরম অবস্থা বিষাদগ্রস্থতায় পর্যায়ক্রমিকভাবে ঘন ঘন পরিবর্তিত হতে থাকবে, মাঝে স্বাভাবিক পর্ব নাও থাকতে পারে
  • মিশ্র অবস্থা- যেখানে বাইপোলার আক্রান্ত একজন মানুষ বিষাদ এবং উন্মত্ততার( ম্যানিক) উপসর্গ  একসাথে অনুভব করে থাকে। উদাহরনস্বরূপ, হতাশ মনে অতিরিক্ত কর্মক্ষম থাকা ।


বাইপোলার রোগের সাথে বসবাস
বাইপোলার রোগ একটি মারাত্মক অবস্থা। এই অবস্থায় একজন মানুষ উন্মত্ততা (ম্যানিয়া) পর্বের বিষয়ে অসচেতন থাকতে পারে। এই পর্ব শেষ হবার পর, তারা তাদের আচরনে কষ্ট পেতে পারে। তবে, এই সময়ে তারা বিশ্বাস করতে পারে যে অন্যান্য মানুষগুলো নেতিবাচক এবং সাহায্য করার মত নয়।

বাইপোলার আক্রান্ত কিছু কিছু মানুষের ক্ষেত্রে পর্বগুলো আরো বেশী নিয়মিত এবং গুরুতর হতে পারে । বাইপোলার মারাত্মক রূপে দেখা দিলে কর্মক্ষেত্রে টিকে থাকাটা কঠিন হয়ে পড়ে এবং সম্পর্কগুলো আন্তরিকতাশূন্য ও জটিল হয়ে যায়। এর থেকে আত্মহত্যার প্রবনতা বেড়ে যেতে পারে।

উন্মত্ততা (ম্যানিয়া) এবং বিষাদের সময়, বাইপোলার আক্রান্ত কারো কারো অদ্ভুত চেতনা হতে পারে যেমন, কোন কিছু দেখা, শোনা, অথবা ঘ্রান নেয়া, যার আসলে কোন অস্তীত্ব নেই ( অলীক অস্তীত্বে বিশ্বাস করা)। তারা এমন আরো কিছু বিষয় বিশ্বাস করে যা অন্যান্য মানুষের কাছে অযৌক্তিক। এইরকম উপসর্গ সাইকোসিস বা সাইকোটিক পর্ব নামে পরিচিত।

About the author

Maya Expert Team