আইনি সরকারি সহায়তা হেল্পলাইন

হেল্পলাইন সম্পর্কিত কিছু সাধারণ জিজ্ঞাস্য

Women Support number – 01745774487, 01755556644

১) কি ধরণের সমস্যায় এই নাম্বারে সাহায্য পাওয়া যাবে? eve teasing, domestic violence , আর কি কি ধরণের কাজে সাহায্য পাওয়া সম্ভব।

২) ফোন করার পর ঐ নারীকে কি কি ধরণের সাহায্য প্রদানের ব্যবস্থা করা হয়?

৩) যে নারী ফোন করবেন – তার পরিচয় গোপন থাকার কি নিশ্চয়তা দেয়া হয়?

৪) কোন নারী রাতে একা রাস্তায় থাকলে এই নাম্বারে ফোন করলে কি সাহায্য বা নিরাপত্তা পেতে পারেন

উত্তর ১: এখানে নারীকে যেকোন সামাজিক সমস্যায় সহায়তা করা হয়। যেমন- ওপরে উল্লিখিত গুলো ছাড়াও কেউ হারিয়ে গেলে তাকে খুঁজে বের করা, গৃহকর্মী নির্যাতিত হলে ইত্যাদি।

উত্তর ২: ফোন করার পর কোন নারীকে এখানে মূলত আইনী সহায়তা দেয়া হয় তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য। ঐ নারীর নিকটস্থ থানার মাধ্যমে এসব ব্যবস্থা নেয়া হয়।

উত্তর ৩: বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই পরিচয় গোপন রাখান হয় না। কেননা আসামী কে ধরতে এ পরিচয়টা ব্যবহার করা হয়। মূলত এখানে বৈধতার জন্যই নারীর পরিচয় ব্যবহার করা হয়।

উত্তর ৪: হ্যাঁ , নিকটস্থ থানার মাধ্যমে ঐ নারীকে সহায়তা করা হয়।

Cyber Crime Helpline Number – ০১৭৬৬৬৭৮৮৮৮

১) কি কি ধরণের কেইস সাইবার ক্রাইম হিসেবে গণ্য হবে? ছবি বা ভিডিও দেখিয়ে ব্ল্যাকমেইল করা ইত্যাদির পাশাপাশি আর কি কি বিষয়ে সাহায্য পাওয়া সম্ভব?

২) ইমেইলের মাধ্যমে কোন ফ্রডের শিকার হলে কি এই নম্বরে সাহায্য পাওয়া সম্ভব?

৩) কোন সাহায্য পাওয়ার পূর্বে একজন ভিক্টিম নিজে থেকে কি কি বিষয় আগে থেকে সচেতন থাকতে পারেন? আই, পি অ্যাড্রেস বা স্ক্রিনশট ইত্যাদি কোন কাজ কি মানুষ নিজে থেকে প্রমান সংগ্রহে রাখার জন্য করতে পারেন?

উত্তর ১: অনাকাঙ্খিত ইমেল পাঠানো, ইমেল হ্যাক করা, মিথ্যা ফেইসবুক অ্যাকাউন্ট খোলা, বি-ক্যাশ ফ্রড, বি-ক্যাশ ফ্রড এজেন্ট, মোবাইল ফোনে নানা ধরণের প্রলোভন বা হুমকী মূলক কল বা ম্যাসেজ পাঠানো, বুলিং করা ইত্যাদি। মূলত টিনএজরাই এগুলো সৃষ্টি করে এবং এর ফাঁদে পরে।

উত্তর ২: হ্যাঁ, এ নাম্বার থেকে সাহায্য পাওয়া সম্ভব।

উত্তর ৩ : আই. পি অ্যাড্রেস এর মাধ্যমে সত্যিকার অর্থে তেমন কিছু করা সম্ভব হয়না। আর সচেতনাতা হিসেবে বেশ কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে। যেমন- ই- মেইলের পাসওয়ার্ড খুব শক্তিশালী করে রাখা, এটি কারো সাথেই শেয়ার না করা এমনকি খুব আপন জনের (বয়/গার্ল ফ্রেন্ড) সাথেও শেয়ার না করা, ই-মেইলের মাধ্যমে যে ‍স্পাম (Spam)

বা অপ্রত্যাশিত মেইল আসে সেগুলো ওপেন না করা কেননা এতে ভাইরাস আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা থাকে, এধরণের মেইল অবহেলা করা কেনানা এগুলোতে আপনার প্রয়োজনীয় তথ্য চুরি হতে পারে এবং আপনার মো্বাইল ভেরিফিকেশন নাম্বারটা সবসময় সেটা ব্যবহার করা যেটা সচরচর সবার কাছে পরিচিত ন৥য়।

বাল্য বিবাহ helpline – 10921

১) এই সাহায্য কি বাংলাদেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে পাওয়া সম্ভব?

২) যদি কোন প্রতিবেশি কোন বাল্যবিবাহের ব্যাপারে অবগত করেন এই নম্বরে, তাহলে তার পরিচয় কি গোপন রাখা সম্ভব?

৩) এই হেল্পলাইনের সাহায্যে কোন বাল্য বিবাহ রোধ করার পর ঐ মেয়ে শিশুকে কোন নিরাপত্তা দেয়া হয়?

উত্তর ১ : নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ সেন্টারের মাধ্যমে এ সাহায্য বাংলাদেশের যে কোন প্রান্ত থেকেই পাওয়া সম্ভব।

উত্তর ২: হ্যাঁ, গোপন রাখা হয়।

উত্তর ৩ : এখানে প্রথমত উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে বিষয়টি জানানো হয়, তিনি চেয়ারম্যানের সাথে যোগাযোগ করে বিযয়টা থামান। আর সেটা সম্ভব না হলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার থানার ওসি এর মাধ্যমে বিয়েটা থামানোর চেষ্টা করেন। এখানে শিশুর নিরাপত্তা বলেতে তার পিতামাতাকে বিষয়টি সম্পর্কে অবগত করা হয়।

AC(Admin) Women Support and Investigation, DMP – 01713398318

১) এখানে কি কি ধরণের সমস্যায় সাহায্য পাওয়া সম্ভব? ইভ টিজিং কি এ সাহায্য পাওয়া সম্ভব?

২) verbal eve teasing এ কি আইনি সহায়তা পাওয়া সম্ভব?

৩) কোন ইভ টিজিঙের মামলায় – নারীর পরিচয় কি গোপন রাখা হয়?

উত্তর ১ : নারী ও শিশু নির্যাতন সম্পর্কিত যেকোন সমস্যায় সহায়তা করা হয। এখানে ভিকটিমদের ৫ দিনের জন্য নিরাপদ স্থানে রাখবার ব্যবস্থা রয়েছে। ১১০ টি এনজিও এখানে পরামর্শ সেবা দিয়ে থাকে। ভিকটিমের সাথে তার মা-বাবার সাক্ষাত করানোর মাধ্যমে বিষয়গুলো স্বাভিাবিক করার চেষ্টা করা হয়।

উত্তর ২ : না এখানে নির্দিষ্টভাবে ইভটিজিং এ বা ভারবা্ল ইভেটিজিং এ তেমন কোন সাহায্য করা হয়না।

উত্তর ৩ : কোনো কেইস সেনসিটিভ হলে সেক্ষেত্রে নারীদের মিডিয়া থেকে দুরে রাখা হয় এবং সম্ভব হলে পরিচয় গোপন রাখা হয়।

About the author

Maya Expert Team