এডিএইচডি বিশেষ চাহিদা

ADHD – লক্ষণসমূহ

Written by Maya Expert Team

লক্ষণসমূহ

লক্ষণসমূহকে দুই শ্রেণীর আচরণগত সমস্যায় ভাগ করা যেতে পারে-

শ্রেণীগুলো হচ্ছেঃ

মনোনিবেশের সমস্যা

অতিমাত্রায় সক্রিয়তা (Hyperactivity) ও আবেগপ্রবণতা

অধিকাংশ ADHD আক্তান্ত ব্যক্তির এমন সব সমস্যা থাকে যা উভয় শ্রেণিতেই পড়ে, কিন্তু এমনটা সবসময় নাও হতে পারে।

উদাহরণস্বরুপ, এই রোগে আক্রান্ত কিছু ব্যক্তির অমনোযোগীতার বা মনোনিবেশের সমস্যা থাকে, তবে অতিমাত্রায় সক্রিয়তা বা আবেগপ্রবনতার সমস্যা থাকেনা। এই ধরণের ADHD মনোনিবেশের সমস্যাজনিত (Attention Deficit Disorder-ADD) ADHD নামেও পরিচিত এবং এই উপসর্গগুলো তেমন স্পষ্ট নয় বলে কখনো কখনো তা ধরা পড়ে না।

শিশু কিশোরদের মধ্যে লক্ষণসমূহ

শিশু ও কিশোরদের মধ্যে ADHD এর লক্ষণসমূহ সুনির্দিষ্ট এবং সাধারণত এই উপসর্গগুলো ছয় বছর বয়সের পূর্বে দৃষ্টিগোচর হয়। সমস্যা গুলো যে কোন স্থানে যেমন বাড়িতে এবং স্কুলে প্রকাশিত হতে পারে।

প্রতিটি আচরণগত সমস্যার উপসর্গসমুহ নিচে বর্ণনা করা হলো।

অমনোযোগীতা বা মনোনিবেশের সমস্যা

এর প্রধান লক্ষণগুলো হচ্ছেঃ

কোন কাজের উপর বেশিক্ষন মনযোগ দিতে না পারা (short attention spam) এবং সহজে বিভ্রান্ত হওয়া

বার বার ভুল করা এবং তার জন্য কোন উদ্বেগ বোধ না করা, যেমনঃ স্কুলের কাজ

কোন কিছু মনে রাখতে না পারা এবং জিনিসপত্র হারিয়ে ফেলা

যেসব কাজ ক্লান্তিকর বা সময়সাপেক্ষ, সেগুলোর প্রতি লেগে থাকতে না পারা

নির্দেশনা শুনতে এবং পালন করতে ব্যর্থ হওয়া,

একটু পর পর কাজ পরিবর্তন করা

গুছিয়ে কাজ করতে অসুবিধা হওয়া

অতিমাত্রায় সক্রিয়তা (Hyperactivity) ও আবেগপ্রবণতা

স্থিরভাবে বসে থাকতে না পারা, বিশেষ করে শান্ত ও নিরুপদ্রব পরিবেশে

ক্রমাগত স্নায়বিক অস্থিরতায় ভোগা

কাজের প্রতি মনোযোগ দিতে না পারা

অত্যাধিক শরীর, হাত-পা নাড়াচাড়া করা

অত্যাধিক কথা বলা

কথা বলার সময় তাদের পালার জন্য অপেক্ষা করতে না পারা

চিন্তা না করেই কাজ করা

অন্যর কথোপকথনে বিঘ্ন ঘটানো

বিপদ সম্পর্কে কম ধারণা বা কোনো ধারণা না থাকা

এই উপসর্গগুলো শিশুর জীবনে নানারকম সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে যেমনঃ স্কুলে মান অর্জনে ব্যর্থতা, অন্য শিশু ও বয়স্কদের সাথে দুর্বল সামাজিক মিথস্ক্রিয়া এবং নিয়মানুবর্তিতা নিয়ে সমস্যা।

শিশু কিশোরদের সাথে সম্পর্কযুক্ত পরিস্থিতিমূহ

যদিও সব ক্ষেত্রে নয়, কিছু কিছু ক্ষেত্রে শিশু ও কিশোরদের মধ্যে ADHD এর পাশাপাশি আরো অন্যান্য সমস্যা বা উপসর্গ থাকতে পারে,যেমনঃ

উদ্বেগেজনিত সমস্যা – এর ফলে আপনার শিশু অধিকাংশ সময় ভীত ও আতংকিত থাকে, অনেক সময় এর কারণে বিভিন্ন শারীরিক উপসর্গ দেখা দিতে পারে, যেমনঃ দ্রুত হৃদস্পন্দন, ঘাম ও মাথা ঘোরা।

বৈরীভাবাপন্ন বেপরোয়া মনোভাবজনিত সমস্যা (oppositional defiant disorder-ODD) – একে নেতিবাচক ও বিঘ্ন সৃষ্টিকারী আচরণ হিসেবে সংজ্ঞায়িত করা হয়, তারা এ ধরনের আচরন করে কর্তৃ্ত্বকারী ব্যক্তিদের প্রতি যেমন-বাবা মা এবং শিক্ষক।

আচার-আচরণজনিত সমস্যা – এর কারনে প্রায়শই অসামাজিক আচরণের প্রতি এক ধরণের ঝোক তৈরি হয়, যেমন- চুরি করা, মারামারি করা, ভাংচুর অথবা মানুষ বা পশুপাখির ক্ষতি করা।

হতাশা

ঘুমের সমস্যা – রাতে ঘুমের সমস্যা হতে পারে এবং ঘুমের ধরণ অনিয়মত হতে পারে।

অটিস্টিক স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডার (autistic spectram disorder-ASD)- এটি সামাজিক মিথস্ক্রিয়া, যোগাযোগ, আগ্রহ ও আচরণকে প্রভাবিত করে।

মৃগীরোগ – এক ধরণের পরিস্থিতি যা মস্তিস্ককে প্রভাবিত করে যার ফলে বারবার খিচুনী হয়।

Tourette’s syndrome – এটি স্নায়ুতন্তের এক ধরণের পরিস্থিতি, যাতে অনিচ্ছাকৃ্ত ভাবে মুখ দিয়ে শন্দ বের হতে থাকে, শরীরের কোন অংশ নড়তে থাকে

শিক্ষণ জটিলতা – যেমনঃ পড়ার অসুবিধা

প্রাপ্তবয়স্কদের উপসর্গসমূহ

প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ADHD এর লক্ষণসমূহকে চিহ্নিত করা অপেক্ষাকৃ্ত কঠিন। এর কারন মূলত ADHD আক্রান্ত বয়স্কদের মধ্যে গবেষনার অভাব।

ADHD এক ধরণের মানসিক বিকাশজনিত সমস্যা। এমনটা মনে করা হয় যে, শৈশবে প্রথমে ADHD দেখা না দিলে, বয়স্কদের মধ্যে এই রোগ বিকাশ লাভ করতে পারেনা। এটা ঠিক, ADHD এর লক্ষণসমূহ প্রায়ক্ষেত্রই শৈশব প্রথম দেখা দেয়, কৈশোরেও অব্যাহত থাকে এবং তারপর পরিণত বয়সেও। ADHD থেকে তৈরি কোন সমস্যা যেমন বিষণ্ণতা বা শিক্ষন জটিলতা যদি শৈশবে থাকে তবে তা পরিণত বয়সেও অব্যাহত থাকতে পারে।

শৈশবে ADHD আছে বলে সণাক্ত করা হয়েছিলো, ২৫ বছর বয়সেে এমন ১৫% ব্যক্তির মধ্যে উপসর্গগুলো পূর্ণমাত্রায় থেকে যায় আর ৬৫% ব্যক্তির মধ্যে কিছু মাত্রায় থেকে যায় যা তাদের দৈনন্দিন জীবনের উপর প্রভাব ফেলে।

শিশু ও কিশোরদের মধ্যকার লক্ষণগুলো যা উপরে বর্ণিত হয়েছে, কখনো কখনো ADHD আক্রান্ত প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। যাইহোক, কিছু বিশেষজ্ঞ বলেন যে, অমনোযোগীতা, অতিমাত্রায় সক্রিয়তা ও আবেগপ্রবনতা যেভাবে বয়স্কদের প্রভাবিত করে তা শিশুদের উপর প্রভাব থেকে সম্পূর্ণ আলাদা।

উদাহরণস্বরুপ, অতিমাত্রায় সক্রিয়তা বড়দের মধ্যে কমতে থাকে আবার পরিণত জীবনের চাপ বৃ্দ্ধি্র সাথে সাথে অমনোযোগীতা আরো খারাপের দিকে ঝুকতে থাকে।

এছাড়া, ADHD এর শৈশব উপসর্গগুলোর চেয়ে বড়দের লক্ষণগুলোর অনেক বেশি সূক্ষ্ম হওয়ার প্রবণতা থাকে।

সেজন্য,কিছু কিছু বিশেষজ্ঞ নিম্নবর্ণিত উপসর্গগুলোর তালিকা প্রস্তাব করেছেন যেগুলো প্রাপ্তবয়স্কদের ADHD এর সাথে সম্পর্কিত।

অসতর্কতা ও বিশদ ঘটনার প্রতি মনোযোগের অভাব,

দুর্বল সাংগঠনিক দক্ষতা,

নিয়মিত জিনিস হারানো বা জায়গামতো না রাখা,

ভুলে যাওয়া,

অস্থিরতা ও উদ্বেগ,

শান্ত থাকতে না পারা এবং কথা বলার সময় পালা আসার জন্য অপেক্ষা করতে না পারা

চিন্তা না করেই প্রতিক্রিয়া জানানো (blurting out responses) এবং অন্যদের বিরক্তি ঘটানো

মেজাজের দ্রুত উঠা নামা, বিরক্তি ও দ্রুত মেজাজ হারানো,

চাপ সামলাতে না পারা,

চরম অধৈর্যতা,

কাজকর্মের সময় ঝুকি নেওয়া, প্রায়ই নিজের বা অন্যদের নিরাপত্তার বিষয়ে কোনো চিন্তা না করা, যেমনঃ বিপদজনকভাবে গাড়ি চালানো,

ADHD আছে এমন প্রাপ্তবয়স্কদের অন্যান্য সমস্যাসমূহ

ADHD এ আক্রান্ত শিশু কিশোরদের মতো বড়দেরও ADHD এর পাশাপাশি আরো অন্যান্য সমস্যা বা উপসর্গ থাকতে পারে।

এদের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে বিষণ্ণতা। ADHD এর পাশাপাশি অন্য যেসকল সমস্যা বড়দের হতে পারে সেগুলো হচ্ছেঃ

ব্যক্তিত্বের সমস্যা (personality disorder) – এক্ষেত্রে আক্রান্ত ব্যক্তি একজন গড় ব্যক্তির চেয়ে তার চিন্তায়, উপলব্ধিতে, অনুভবে এবং অন্যের সাথে যোগাযোগের দক্ষতায় লক্ষণীয়ভাবে আলাদা হয়

বাই পোলার ডিজঅর্ডার (Bipolar Disorder) – এটিএক ধরণের মানসিক ব্যাধি যেখানে উল্লাস ও বিষণ্ণতা পর্যায়ক্রমে আসে, দুটিই তীব্র মাত্রায় হয়। মেজাজ দ্রুত পরিবর্তিত হয়, উল্লাস ও বিষণ্ণতার এক চরম অবস্থা থেকে আরেক চরম অবস্থার মধ্যে দোদুল্যমান থাকে।

অবসেসিব কম্পালসিভ ডিসঅর্ডার বা ওসিডি (Obsessive-Compulsive Disorder-OCD) – এই মানসিক অসুস্থতা আচ্ছন্নকারী চিন্তা ও অনমনীয় আচরণের জন্ম দেয়, অর্থাৎ কোন একটি ভাবনা বা বিশ্বাস মাথায় ঢুকে গেলে, সেটা কোন ভাবেই পরিবর্তন হয় না এবং ক্রমাগত ভাবে মাথার ভিতর ঘুরতেই থাকে।

ADHD এর সাথে সম্পর্কযুক্ত আচরণগত সমস্যার কারণে আরও সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে যেমন-সম্পর্ক, সামাজিক মিথস্ক্রিয়া, মাদক ও অপরাধ জনিত সমস্যা। ADHD এ আক্রান্ত প্রাপ্তবয়স্কদের কারো কারো চাকুরি খুজে পেতে এবং তাতে থাকতে জটিলতা দেখা দিতে পারে।

সাহায্য পাওয়া

অনেক শিশুরই অস্হির এবং অমনোযোগীতার সমস্যা থাকে। এটা প্রায়ক্ষেত্রেই সম্পূর্ণ স্বাভাবিক এবং তার মানে এই নয় যে তাদের ADHD আছে।

যাইহোক, যদি আপনার মনে হয় যে আপনার শিশুর আচরণ তার সমবয়সী বেশিরভাগ শিশুর চেয়ে আলাদা, তাহলে আপনার উচিৎ হবে আপনার সন্তানের শিক্ষক এবং তারপর একজন থেরাপিস্টের সাথে আপনার উদ্বেগ নিয়ে কথা বলা।

যদি আপনি একজন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি হন এবং আপনার ADHD আছে বলে মনে হয়, এবং যদি শৈশবে আপনার রোগ নির্ণয় করা না হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে আপনার চিকিৎসকের সাথে বিষয়টা নিয়ে কথা বলুন।

About the author

Maya Expert Team

Leave a Comment