নারী স্বাস্থ্য ও দেহতত্ত্ব পিসিওএস

পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রোম – রোগ নির্ণয়

পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রোম – রোগ নির্ণয়
পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রোমের (পিসিওএস) কোন বিশেষ লক্ষণ যদি আপনি অনুভব করে থাকেন, তাহলে আপনার গাইনোকোলোজিস্টের সাথে কথা বলুন ।

আপনার মধ্যে দেখা দেয়া লক্ষণসমূহ নিয়ে ডাক্তার আপনার সাথে কথা বলবেন, অন্যান্য কারণসমূহের সাথে এর কোন সম্পৃক্ততা আছে কি না, সে সম্পর্কে নিশ্চিত  হওয়ার চেষ্টা করবেন এবং আপনার রক্তচাপ পরীক্ষা করবেন ।

পরবর্তীতে গাইনোকোলোজিস্ট আপনাকে আল্ট্রাসাউন্ড পরীক্ষা করানোর কথা বলতে পারেন, কারন এ পরীক্ষা দ্বারা আপনার ডিম্বাশয়ে কি পরিমান সিস্ট (পলিসিস্টিক ওভারি) আছে তা বোঝা যাবে। ফলিকল নামক ডিম্বাশয়ের যে থলিতে ডিম্বাণু উৎপন্ন হয়, সেই ফলিকল বা থলি যখন পূর্ণতা পায় না তখন তাকে সিস্ট বলে।

রক্তে হরমোনের মাত্রা পরিমাপের জন্য এবং ডায়াবেটিস অথবা কোলেস্টেরলের কি মাত্রায় আছে তা নির্ণয়ের জন্য আপনার রক্ত পরীক্ষা করানোও হতে পারে ।


রোগ নির্ণয়ে যা দেখা হয়
পিসিওএস নির্ণয়ের জন্য নির্দিষ্ট পরীক্ষাগুলো আপনার ক্ষেত্রে তখনই করা হবে, যদি একই রকম উপসর্গ সৃষ্টিকারী অন্যান্য কারণসমূহ এক্ষেত্রে দায়ী নয়, সেটি নিশ্চিত হবার পর। একইসাথে নিম্নোক্ত ৩টি অবস্থার মধ্যে অন্তত ২টি অবস্থা যদি আপনার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হতে হবেঃ

আপনার মাসিক যদি অনিয়মিত হয়, যার অর্থ দাঁড়ায় আপনার ডিম্বাশয় নিয়মিত ভাবে ডিম্বানু নির্গত করছে না

রক্ত পরীক্ষাতে যদি দেখা যায় যে আপনার রক্তে উচ্চ মাত্রায় পুরুষ হরমোন (এন্ড্রোজেন), যেমন টেস্টোস্টেরণ আছে। (অথবা কোন কোন সময় রক্ত পরীক্ষাতে উচ্চ মাত্রা না আসা সত্ত্বেও অতিরিক্ত পুরুষ হরমোনের লক্ষণগুলো যদি বিদ্যমান থাকে)

পরীক্ষাতে যদি আপনার পলিসিস্টিক ওভারি ধরা পড়ে

যেহেতু পিসিওএস নির্ণয়ের জন্য উপরোক্ত ৩টির মধ্যে ২টি থাকা বাঞ্চনীয়, তাই পিসিওএস হওয়া সম্পর্কে নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত আলট্রাসাউন্ড পরীক্ষা ও অন্যান্য রক্ত পরীক্ষা করানোর প্রয়োজন পড়ে না ।


বিশেষজ্ঞের পরামর্শ
নেয়া
যদি আপনার পিসিওএস ধরা পড়ে, সেক্ষেত্রে আপনাকে একজন গাইনোকোলোজিস্ট (স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ) বা একজন এন্ডোক্রাইনোলোজিস্টের (হরমোন বিশেষজ্ঞ) কাছে থেকে চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে ।

উপসর্গগুলো কিভাবে নিরাময় করা যায় তার উত্তম পদ্ধতি নিয়ে বিশেষজ্ঞ আপনার সাথে আলোচনা করবেন । জীবন যাপন পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনা সম্পর্কে তারা পরামর্শ দিবেন এবং প্রয়োজনীয় ঔষধ প্রদান করবেন ।


পরবর্তী চিকিৎসা

যদি আপনার পিসিওএস ধরা পড়ে তাহলে বয়স এবং ওজন প্রভৃতি বিষয়ের ওপর ভিওি করে প্রতি বছর একবার রক্ত ও ডায়াবেটিস পরীক্ষা করানোর জন্য আপনাকে বলা হবে।

About the author

Maya Expert Team