বাল্যরোগ চিকিৎসা মাইলফলক শিশুর যত্ন

আপনার শিশুর শ্রবণশক্তি

আপনার শিশুর জন্মের প্রথম কয়েক সপ্তাহের মধ্যে, সে কানে শুনতে পায় কিনা তা পরীক্ষা করে দেখা হবে। এই পরীক্ষায় অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয় এবং এটি জন্মের প্রায় সাথে সাথেই করা যায়। এই পরীক্ষাটি শিশুর জন্য সম্পূর্নভাবে নিরাপদ এবং এতে শিশুর কোন কষ্ট হয় না।

শিশু জন্মের আগে বা পরে আপনাকে পরীক্ষা সম্পর্কিত এবং এই পরীক্ষা কিভাবে কাজ করে, সে বিষয়টি বুঝিয়ে বলা হবে বা এ সম্পর্কিত একটি লিফল্যাট দেয়া হবে।

পরীক্ষার পর আপনাকে দুইটি তালিকা দেয়া হবে (শব্দের প্রতি প্রতিক্রিয়া এবং শব্দ তৈরি করা)। এই তালিকায় আপনার শিশু বেড়ে উঠার সাথে সাথে যে শব্দগুলো শুনে তার প্রতিক্রিয়া দেখানো উচিত এবং কোন শব্দগুলো তার উচ্চারণ করা উচিত তার উল্লেখ থাকবে।

যদি পরীক্ষায় দেখা যায় যে, আপনার শিশুর শুনতে সমস্যা হচ্ছে,; তবে পরবর্তী মূল্যায়নের জন্য আপনাকে আরেকবার ডাক্তারের কাছে যেতে বলা হবে। মাঝে মাঝে ঠান্ডা বা অন্য কোন ধরনের সংক্রমণের কারণে সাময়িকভাবে আপনার শিশুর শ্রবণ ক্ষমতায় সমস্যা হতে পারে।

অন্যদিকে, যদি পরীক্ষায় আপনার শিশুর শ্রবণ ক্ষমতায় কোন সমস্য ধরা না পরে; কিন্তু তারপরও আপনি প্রথম পরীক্ষায় সন্তুষ্ট না হোন, তবে আপনি পুনরায় পরীক্ষার জন্য অনুরোধ করতে পারেন। যদি দ্বিতীয়বার পরীক্ষার সময় আপনার শিশু ঠিকভাবে শুনতে পাচ্ছেনা বলে মনে হয় বা আপনি যদি তখনো আপনার শিশুকে নিয়ে চিন্তিত থাকেন; তবে একজন শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে পারেন।

যদি আপনার শিশুর শ্রবণ ক্ষমতার সমস্যাগুলো তেমন জটিল না হয়, তবে সাধারণত তার কথা বলা শিখতে একটু বাড়তি সহযোগিতার প্রয়োজন হতে পারে। যদি সমস্যাগুলো আরো গুরুতর হয়, তবে তাকে যোগাযোগের অন্য উপায়গুলো শিখতে হতে পারে। যত দ্রুত শ্রবণ সমস্যাগুলো চিহ্নিত করা যায়, কিছু করতে পারার সম্ভাবনা তত বেড়ে যায়।

About the author

Maya Expert Team