বাল্যরোগ চিকিৎসা বোতলে খাওয়ানো শিশুর যত্ন

ফীডারে দুধ খাওয়ানোর বিষয়ে কিছু পরামর্শ

ফীডারে দুধ খাওয়ানোর বিষয়ে কিছু পরামর্শ

দুধ খাওয়ানোর জন্য ব্যবহৃত সরঞ্জাম কেনা:

আপানার কয়েকটি ফীডার বোতল ও নিপল, এবং তার সাথে এগুলোকে জীবাণুমুক্ত করার সরঞ্জাম দরকার হবে। কোন বিশেষ ধরনের বোতল বা নিপল অন্যগুলোর চাইতে ভাল বলে প্রমানিত হয়নি। সব ফীডার বোতলই ফুডগ্রেড প্লাস্টিকের তৈরি, তবে আকৃতির কারণে কিছু বোতল ভালোভাবে পরিষ্কার করতে অসুবিধা হয়। সাধারণ ও ভালোভাবে পরিষ্কার করা যায় এমন বোতল ব্যবহার করাই ভাল।

জীবানুমুক্ত করা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা

ফীডারের বোতল ও নিপল জীবাণুমুক্ত হয়েছে কিনা তা নিশ্চিত হোন। নবজাতককে ফর্মুলা মিল্ক খাওয়ালে দুধ তৈরির সময় প্যাকেটের গায়ে লেখা নির্দেশনা নিখুঁতভাবে মেনে চলুন। ফীডারের বোতল জীবাণুমুক্ত করা সম্পর্কে আরও পড়ুন।

প্রস্তুতি

খাওয়ানো শুরুর আগেই প্রয়োজনীয় সব কিছু প্রস্তুত রাখুন। খাওয়ানোর সময় বাচ্চাকে কোন ভঙ্গীতে ধরবেন তা ঠিক করুন। আপনার হয়ত বাচ্চাকে একটু সময় দিতে হবে। কোন কোন নবজাতক কিছুটা দুধ খাবার পর ঘুমিয়ে পড়ে, তারপর জেগে উঠে আরও খেতে চায়। মনে রাখবেন, দুধ খাওয়ানোটা আপনার বাচ্চার কাছে আসার ও তাদেরকে ভালোভাবে জানার একটি সুযোগ।

ফীডারের নিপল সবসময় ভর্তি রাখুন

বাচ্চাকে যখন খাওয়াবেন তখন ফীডারের নিপলটি সবসময় দুধ দিয়ে ভর্তি করে রাখুন, নইলে আপনার বাচ্চা বাতাস গিলে ফেলবে। যদি দুধ খাওয়ানোর সময় নিপলটি চ্যাপ্টা বা সমান হয়ে যায় তাহলে বাচ্চার মুখের কোনায় আলতো করে চাপ দিয়ে চুপসানো অবস্থা থেকে স্বাভাবিক করে দিন। নিপলটির ছিদ্র বন্ধ হয়ে গেলে সেটি বদলে আরেকটি জীবাণুমুক্ত নিপল লাগিয়ে নিন।

বাচ্চাকে কীভাবে ধরবেন

খাওয়ানোর সময় বাচ্চাকে যথাসম্ভব খাড়াভাবে ধরে রাখার চেষ্টা করুন যাতে সে মাথা রাখার জায়গা পায় এবং নিঃশ্বাস নিতে ও দুধ গিলতে তার সুবিধা হয়।

শিশুদের বায়ু

খাওয়ানোর সময় আপনার শিশুর ছোট ছোট বিরতি নেয়ার এবং ঢেঁকুর তোলার প্রয়োজন পড়তে পারে। যদি আপনার বাচ্চা আর খেতে চায় না, তাহলে তাকে সোজাভাবে ধরে আলতো করে তার পিঠ চাপড়ে দিন বা মালিশ করুন যাতে আটকে যাওয়া বাতাস বেরিয়ে আসে। বাতাসের পরিমান খুবই সামান্য হতে পারে।

বেঁচে যাওয়া দুধ ফেলে দিন

খাওয়ানো হয়ে যাবার পর যদি বুকের দুধ বা ফর্মুলা মিল্ক ফীডারে রয়ে যায় তাহলে তা ফেলে দিতে ভুলবেন না।

বাচ্চার সুবিধামত খাওয়ান

একেক বাচ্চা একেক পরিমানে দুধ খেতে চায়। আপনার বাচ্চাকে কেবল তখনই খাওয়ান যখন তার খিদে পাবে এবং ফীডারের সবটুকু দুধ জোর করে খাইয়ে শেষ করার চেষ্টা করবেন না। দুধ খাওয়ানোর সময় ফীডার মুখে লাগানো অবস্থায় আপনার বাচ্চাকে কখনো একা ছেড়ে যাবেন না,

তাতে তার গলায় দুধ আটকে যেতে পারে।

পরামর্শ চাইতে পারেন

আপনার কোন ধরনের সাহায্য লাগলে বা কোন তথ্য জানার দরকার পড়লে নার্স, ডাক্তার অথবা ফীডারে দুধ খাওয়ানোয় অভ্যস্ত মায়েদের সাথে কথা বলুন। ফীডারে দুধ খাওয়ানোর বিষয়ে সাধারণ প্রশ্নগুলোর জবাব জানতে এই বিষয়ক প্রশ্নোত্তর সম্বলিত পাতা দেখুন।

About the author

Maya Expert Team

Leave a Comment