বাল্যরোগ চিকিৎসা শিশুর যত্ন শৈশবকালীন অসুস্থতা শৈশবকালীন অসুস্থতা

শিশুদের মেনিনজাইটিস

মস্তিষ্ক ঘিরে থাকা পাতলা পর্দা (মেমব্রেন) এর প্রদাহকে মেনিনজাইটিস বলে। এটি খুবই জটিল একটি রোগ, তবে প্রাথমিক পর্যায়ে যদি এটি শনাক্ত করে চিকিৎসা করা হয়, তাহলে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই শিশুরা সম্পূর্ণরূপে আরোগ্য লাভ করে।

সাম্প্রতিক বছরে শিশুদের মেনিনজাইটিস নিয়ে অনেক উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। অনেক ধরণের মেনিনজাইটিস রয়েছে, যার মধ্যে কয়েকটি ধরণকে টিকা প্রদানের মাধ্যমে প্রতিরোধ করা যায়। আরো তথ্যের জন্য শিশুদের টিকা সম্পর্কে পড়ুন।

মেনিনজাইটিসের প্রাথমিক লক্ষণগুলো সর্দি বা ফ্লুয়ের মতো হতে পারে, যেমন জ্বর, বমি, বিরক্তি ভাব, বা অস্থিরতা। তবে, শিশু মেনিনজাইটিসে আক্রান্ত হওয়ার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই মারাত্মক অসুস্থ হয়ে যেতে পারে, তাই এই লক্ষণগুলো সঠিকভাবে শনাক্ত করুন।

মেনিনজাইটিসের প্রধান লক্ষণগুলো হলোঃ

  • জ্বর
  • বমি ও ক্ষুধামন্দা
  • হাত-পা ঠান্ডা হয়ে যাওয়া
  • ত্বক বিবর্ণ, কালো দাগযুক্ত বা নীল হয়ে যাওয়া
  • দ্রুত বা অস্বাভাবিক শ্বাস-প্রশ্বাস
  • বিরক্তি ভাব, বিশেষ করে কোলে নিলে। হাত-পা বা পেশীতে ব্যাথার জন্য এরকম হতে পারে।
  • উচ্চস্বরে গোঙানির মতো কান্না
  • কাঁপুনি
  • লাল অথবা বেগুনি দাগ যা চাপ দিলে অদৃশ্য হয়ে যায় না (এর জন্য নিম্নে বর্ণিত গ্লাস পরীক্ষা করুন)
  • হাত-পা শিথীল বা শক্ত হয়ে পড়া, নাড়াচাড়ার সময় ঝাঁকুনি দিয়ে ওঠা
  • শিশুরা তন্দ্রাচ্ছন্ন, প্রতিক্রিয়াহীন হয়ে যেতে পারে ও জেগে থাকা কঠিন হতে পারে
  • শক্ত ঘাড়
  • স্ফীত ফন্টানালি (৬ মাসের কম বয়সী শিশুদের মাথার মধ্যখানের নরম জায়গা)

সব শিশুদের ক্ষেত্রেই উপরোক্ত লক্ষণগুলো প্রকাশ নাও পেতে পারে। যদি শিশুর ক্ষেত্রে উপরোক্ত লক্ষণগুলোর কয়েকটি প্রকাশ পায়, বিশেষ করে লাল বা বেগুনি দাগ দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসার ব্যবস্থা নিন।

যদি আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে না পারেন বা ডাক্তারের সাথে কথা বলার পর আপনি যদি চিন্তিত হয়ে পড়েন তাহলে শিশুকে নিকটস্থ হাসপাতালের জরুরী বিভাগে নিয়ে যান।

গ্লাস পরীক্ষা

যদি শিশুর শরীরে লাল বা বেগুনি দাগ দেখা যায় তাহলে দাগের উপর পরিষ্কার পানি খাওয়ার গ্লাস দিয়ে ধীরে ধীরে চাপ দিন। এমনভাবে চাপ দিন যাতে দাগ বা এর রঙ চাপের ফলে অদৃশ্য হয়ে গেলে আপনি দেখতে পারেন। যদি রঙের কোনো পরিবর্তন না হয়, তাহলে আপনার ডাক্তারের সাথে দ্রুত যোগাযোগ করুন।

গাঢ় বা কালো ত্বকে এই দাগ দেখা কঠিন হয়ে পড়তে পারে, সেক্ষেত্রে শিশুর সারা শরীরে দাগ আছে কিনা দেখুন। হাত বা পায়ের তালু, পেট, চোখের পাতার ভিতর, মুখের তালুর মতো ম্লান বা ফ্যাকাশে জায়গাগুলোতে দাগ দেখা যেতে পারে।

পরামর্শের জন্য আপনার ডাক্তার, কর্তব্যরত নার্স বা স্বাস্থ্য পরিদর্শকের সাথেও কথা বলতে পারেন।

 

About the author

Maya Expert Team