এসটিআই এসটিডিএস গনোরিয়া

গনোরিয়া রোগ নির্ণয়

যদি আপনার গনোরিয়া থাকে তা সনাক্ত করার একমাত্র উপায় হল পরীক্ষা। যদি আপনি সন্দেহ করে থাকেন যে আপনার গনোরিয়া আছে অথবা যেকোন যৌনবাহিত রোগ (STI) আছে, দেরী না করে পরীক্ষা করা খুবই গুরুত্বপূর্ন।

অনিরাপদ যৌনমিলনের কয়েকদিনের মধ্যেই পরীক্ষা করে গনোরিয়া নির্ণয় করা সম্ভব, যদিও ডাক্তাররা আপনাকে দু সপ্তাহ পর্যন্ত অপেক্ষা করার পরামর্শ দিতে পারেন। অনিরাপদ যৌনমিলন হয়ে থাকলে, কোন উপসর্গ দেখা না দিলেও পরীক্ষা করানো উচিত।

গনোরিয়ার দ্রুত নির্নয় এবং সঠিক চিকিৎসা বিভিন্ন ধরনের জটিলতার হাত থেকে আপনাকে রক্ষা করবে, যেমন পেলভিক ইনফ্লামেটরী ডিজিজ বা অন্ডকোষের সংক্রমন। দীর্ঘমেয়াদী সংক্রমন থেকে সৃষ্ট জটিলতার চিকিৎসা অনেক সময় কঠিন হয়ে পরে।

যাদের পরীক্ষা করানো উচিৎ

আপনাকে পরীক্ষা করার পরামর্শ দেওয়া হবে যদিঃ

আপনি অথবা আপনার যৌনসঙ্গী মনে করে থাকেন আপনার বা তার গনোরিয়ার উপসর্গ আছে

নতুন কোন যৌনসঙ্গীর সাথে অনিরাপদ যৌনমিলন হয়ে থাকলে

আপনি অথবা আপনার যৌনসঙ্গী অন্য কারোর সাথে অনিরাপদ যৌনমিলন করে থাকেন

আপনার যদি অন্য কোন যৌনবাহিত রোগ থাকে

আপনার যৌনসঙ্গী যদি বলে যে তার যৌনবাহিত রোগ আছে

যদি যোনী পরীক্ষার সময় ডাক্তার আপনাকে জানান যে আপনার জরায়ু মুখে প্রদাহ আছে বা নিঃসরন রয়েছে

আপনি গর্ভবতী অথবা গর্ভধারনের পরিকল্পনা করছেন

কোথায় পরীক্ষা করাবেন

আপনি গনোরিয়ার পরীক্ষার জন্য আপনার চিকিৎসকের কাছে যেতে পারেন, চিকিৎসক বলে দিবেন এই পরীক্ষা আপনি কোথায় করাতে পারবেন

গনোরিয়া পরীক্ষা

গনোরিয়া পরীক্ষা করার কিছু উপায় আছে। পুরুষের মুত্রনালীর এবং মহিলাদের যোনিপথের নিঃসরণের নমুনা একটি সোয়াব স্টিক ব্যবহার করে সংগ্রহ করা হবে, যদিও পুরুষদের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র মূত্রের নমুনা দিয়েও পরীক্ষা করা যায়।

একটি সোয়াব স্টিক দেখতে একটি তুলা দিয়ে পেঁচানো কাঠির মত, এটা ছোট এবং গোলাকার। এটা যোনী থেকে নিঃসরনের নমুনা তুলে নিয়ে আসে। সোয়াব স্টিক ব্যবহৃত করে নমুনা সংগ্রহ করতে কয়েক সেকেন্ড সময় লাগে এবং কোন ব্যথা হয় না, তবে কিছুটা অস্বস্থিকর মনে হতে পারে।

পুরুষ এবং মহিলাদের গনোরিয়া সনাক্ত করতে বিভিন্ন পরীক্ষা নিচে বর্ননা করা হলঃ

মহিলাঃ

মহিলাদের ক্ষেত্রে যোনি পরীক্ষার সময় একজন নার্স অথবা চিকিৎসক একটি সোয়াব স্টিক দিয়ে যোনী অথবা জরায়ু মুখ থেকে নিঃসরণের নমুনা সংগ্রহ করবেন। কিছু ক্ষেত্রে, মূত্রনালী (যে নালী মুত্র শরীর থেকে বের হয়ে আসে) থেকেও নমুনা নেওয়া হতে পারে। তবে মহিলাদের মূত্রের নমুনা নেয়া হয়না, কেননা মহিলাদের গনোরিয়া নির্ণয়ের ক্ষেত্রে মুত্রের নমুনা পুরোপুরি কার্যকরী না।

পুরুষঃ

পুরষদের কে সাধারনত একটি মুত্রের নমুনা দিতে বলা হয়। অথবা কাঠি দিয়ে লিঙ্গের মাথায় মুত্রনালির মুখ থেকে নিঃসরন নেওয়া হয়।

যদি আপনাকে মূত্রের নমুনা দিতে বলা হয়, তবে নমুনা সংগ্রহের আগের দুই ঘন্টা প্রস্রাব করা যাবে না, এতে ব্যাকটেরিয়া মূত্রের সাথে চলে যাবে এবং পরীক্ষার ফলাফলকে প্রভাবিত করবে।

মলদ্বার , গলা, এবং চোখের সংক্রামনঃ

যদি আপনার মলদ্বার বা গলা সংক্রমিত হয়ে থাকে, তবে নার্স অথবা চিকিৎসক সেই জায়গা থেকে সোয়াব স্টিক ব্যবহার করে নমুনা সংগ্রহ করবেন। যদি আপনার কনজাংকটিভিটিস অর্থাৎ চোখে সংক্রমনের উপসর্গ থাকে, যেমন চোখ লাল হয়ে ফুলে যাওয়া ও পানি পড়া, তাহলে আপনার চোখ থেকে নিঃসরনের নমুনা সংগ্রহ করা হতে পারে।

ফলাফল

কিছু কিছু হাসপাতাল বা প্যাথোলজি সেন্টারে দ্রুত পরীক্ষার ফলাফল দিয়ে দেয়। প্যাথোলজিস্ট চিকিৎসক মাইক্রোস্কোপের সাহায্যে আপনার প্রদানকৃত নমুনা পরীক্ষা করবেন এবং আপনার ফলাফল সাথে সাথে দিয়ে দিবেন।

তবে কালচার পরীক্ষা করার প্রয়োজন হলে ফলাফল পাওয়ার জন্য দুসপ্তাহ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হতে পারে।

About the author

Maya Expert Team