অস্থিবিদ্যা কাঁধ

কাঁধে ব্যাথার চিকিৎসা

আপনার কাঁধে ব্যাথার কারণ ও উপসর্গগুলোর উপরে ভিত্তিতে বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসা প্রদান করা হয়। মৃদু ব্যথা ও ছোট-খাট আঘাতের চিকিৎসার জন্যে ব্যাথানাশক ওষুধ, সেঁক অথবা বরফ দিয়ে আপনি বাড়িতেই আপনার সমস্যার সমাধান করতে পারেন।

কোন ধরনের আঘাতের কারনে ব্যাথা হলে, বেশি ব্যাথা করলে, বা কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ব্যাথা না কমলে আপনার ডাক্তার দেখানো উচিত।

নিচের সমস্যাগুলো থাকলে ডাক্তার আপনাকে অর্থোপেডিক সার্জন (হাড় ও মাংসপেশি বিশেষজ্ঞ) বা রিউম্যাটোলজিস্ট (মাংসপেশি ও জোড়া বিশেষজ্ঞ)-এর কাছে পাঠাতে পারেনঃ

কাঁধ নাড়াতে ব্যথা বা মাথার উপরে হাত উঠাতে না পারার (frozen shoulder) সমস্যাটি ছয় মাস ধরেও ভাল না হলে

রোটেটোর কাফ(বাহু ও কাঁধের সংযোগকারী বন্ধনী) ডিসঅর্ডার তিন থেকে ছয় মাসের মধ্যে উন্নতি না হলে

তিন মাস পার হয়ে গেলেও এক্রোমাইওক্ল্যাভিকুলার জয়েন্ট ডিজঅর্ডার (acromioclavicular joint disorder) ভাল না হলে

রোটেটোর কাফ (rotator cuff) ছিড়ে গেলে

আপনার বয়স ত্রিশের নিচে হওয়া সত্ত্বেও শোল্ডার ইন্সটেবিলিটিতে (shoulder instability) ভুগলে

চিকিৎসার ধরণসমূহঃ

কাঁধের ব্যাথার চিকিৎসার প্রকারগুলো নিন্মরূপঃ

যে ধরনের কাজ করলে আপনার উপসর্গগুলো, সাধারণতঃ ব্যথা বেড়ে যায় তা পরিহার করা

বরফের পুঁটলি (ice packs) ব্যবহার করা

ব্যাথানাশক ট্যাবলেট (painkillers)

অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি (anti-inflammatories) ওষুধ (প্রদাহ প্রতিরোধকারী ঔষধ)

ফিজিওথেরাপি (physiotherapy)

সার্জারি (অল্প কিছু ক্ষেত্রে)

এগুলোর ব্যাপারে বিস্তারিত নিচে দেয়া হল।

ব্যথার সাথে সাথে আপনার কাঁধ নাড়ানোর ক্ষমতা বা শক্তিও কমে যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে আপনাকে একসঙ্গে কয়েকধরণের চিকিৎসা দেয়া হতে পারে।

নির্দিষ্ট কিছু কাজ বা মুভমেন্ট (অংগ চালনা) এড়িয়ে চলা

কি কারণে আপনার ঘাড়ে ব্যাথা হচ্ছে তা বিবেচনা করে ডাক্তার আপনাকে কিছু কাজ করতে বারন করতে পারেন। যেমনঃ কাঁধ নাড়াতে না পারার (frozen shoulder) প্রাথমিক ব্যথাময় পর্যায়ে আপনাকে মাথার উপরে হাত তুলতে হয় এমন কিছু করতে নিষেধ করা হতে পারে। তবে অন্যান্য কাজের জন্য আপনার কাঁধ ব্যবহার করে যাওয়া উচিত, কারন এটি একদম না নাড়ালে অবস্থা আরও খারাপ হতে পারে।

যদি আপনার শোল্ডার ইন্সটেবিলিটির (shoulder instability-হঠাৎ হঠাৎকাঁধের জোড়া আলগা হওয়া) সমস্যা থাকে তাহলে আপনাকে হয়ত সমস্যাটি বাড়াতে পারে এমন কিছু, যেমন; কোন কিছু হাত উপরে তুলে ছুঁড়ে মারা (overarm throwing), নিষেধ করা হতে পারে।

যদি আপনার এক্রোমাইওক্ল্যাভিকুলার জয়েন্টে (acromioclavicular joint; কাঁধের উপরের জয়েন্ট) চিড় ধরে গিয়ে থাকে তাহলে আপনাকে শরীরের চারপাশে হাত ঘোরাতে নিষেধ করা হতে পারে। এবং আঘাত পাওয়ার পর এক সপ্তাহ ধরে আপনাকে একটি স্লিঙ এ (sling-হাত ঝুলিয়ে রাখার জন্যে বিশেষভাবে ভাঁজ করা কাপড়) হাত ঝুলিয়ে রাখতে হতে পারে।

বরফের পুঁটলি বা আইস প্যাক (Ice packs)

খেলতে গিয়ে বা অন্য কোনভাবে পড়ে কাঁধে ব্যাথা পেলে ব্যাথা এবং ফোলা কমানোর জন্য সেখানে বরফ লাগাতে পারেন।

১০-৩০ মিনিট পর্যন্ত আইস প্যাক লাগানো উচিত। অন্য কোনো ঠাণ্ডা কিছু লাগালেও কাজ হবে। আইস প্যাকটি একটি তোয়ালেতে জড়িয়ে নিন। এতে সেটি সরাসরি চামড়ার সংস্পর্শে এসে ঠাণ্ডা জনিত টিস্যু ইনজুরি যা জ্বলুনি বা ice burn সৃষ্টি করে তা এড়ানো যায়।

ব্যাথানাশক ওষুধ (Painkillers)

আপনার ব্যাথা সহনীয় মাত্রার হলে প্যরাসিটামল বা কোডেইন (codeine) জাতীয় ওষুধে কাজ হওয়ার কথা। কী পরিমানে খাবেন তা জানতে ওষুধের প্যাকেটের গায়ে দেয়া নির্দেশিকা পড়ুন এবং তা মেনে চলুন।

ব্যাথা খুব বেশি হলে ডাক্তার আপনাকে ইবুপ্রোফেন (ibuprofen), ডাইক্লোফেনাক (diclofenac), বা নাপ্রোক্সেন (naproxen)-এর মত নন স্টেরয়েডাল অ্যান্টিি ইনফ্লামেটরীমেটরি ড্রাগ (non-steroidal anti-inflammatory drug) বা NSAID খেতে দিতে পারেন।

ব্যাথা কমানোর সাথে সাথে এগুলো কাঁধের ফোলা কমানোরও কাজ করে। এগুলো শুধু ব্যাথা বেশি হওয়ার সময় খাওয়ার চাইতে নিয়্ম মেনে খেলে বেশি ভাল কাজ করে।

কর্টিকোস্টেরয়েড ট্যাবলেট (Corticosteroid tablets)

কর্টিকোস্টেরয়েড একধরনের ওষুধ যাতে স্টেরয়েড (এক ধরনের হরমোন) থাকে। হরমোন এক ধরনের জীবন রক্ষাকারী রাসায়নিক যৌগ যা শরীরের ব্যাথা বা ফোলা কমানো সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন কাজ করে থাকে।

ফ্রোজেন শোল্ডারের চিকিৎসার জন্য আপনাকে কর্টিকোস্টেরয়েড ট্যাবলেট দেয়া হতে পারে। এতে কয়েক সপ্তাহের জন্য আপনার ব্যথা দূর হতে পারে, তবে এই চিকিৎসা কর্টিকোস্টেরয়েড ইঞ্জেকশনের চাইতে কার্যকরী এমন কোন প্রমান পাওয়া যায়নি। কর্টিকোস্টেরয়েড ট্যাবলেটের কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও রয়েছে।

কর্টিকোস্টেরয়েড ইঞ্জেকশন (Corticosteroid injections)

আপনার কাঁধের ব্যাথা খুব বেশি হলে ব্যাথানাশক ওষুধে কাজ নাও হতে পারে। এসব ক্ষেত্রে আপনার কাঁধের জয়েন্টে বা জয়েন্টের কাছে কর্টিকোস্টেরয়েড ইঞ্জেকশন দেয়া হতে পারে।

ফ্রোজেন শোল্ডারের জন্য ব্যাথা হলে কর্টিকোস্টেরয়েড ইঞ্জেকশন সেটা কমানো এবং কাঁধ নাড়ানোর ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য কাজ করতে পারে। উপসর্গগুলো দেখা দেয়ার প্রাথমিক পর্যায়ে, এটি কয়েক সপ্তাহের জন্য ভাল কাজ করে, তবে এতে আপনার সমস্যাটি সম্পূর্ণ ভাল হয়ে যায় না এবং সেটি আবার ফিরে আসতে পারে।

গবেষণায় দেখা গেছে কর্টিকোস্টেরয়েড ইঞ্জেকশন দিয়ে টেন্ডোনাইটিস (tendonitis)-এর ব্যাথা থেকে ৮ সপ্তাহ পর্যন্ত মুক্তি পাওয়া যায়। এটি আপনার কাঁধ ব্যবহারের ক্ষমতাও বৃদ্ধি করে। তবে এই ওষুধটি NSAID-এর মত কার্যকর নয়।

একটি গবেষণায় দেখা যায় যে টেন্ডোনাইটিসের ব্যাথা শুরুর ১২ সপ্তাহের মধ্যে কর্টিকোস্টেরয়েড ইঞ্জেকশন সবচেয়ে ভাল কাজ করে। তবে কোন কোন বিশেষজ্ঞের মতে কর্টিকোস্টেরয়েড ইঞ্জেকশন যথাসম্ভব দেরিতে ব্যবহার করা ভাল।

সাবধানতা (Cautions)

কর্টিকোস্টেরয়েড ইঞ্জেকশন নিলে ইনজেকশন দেয়া জায়গাটিতে নিম্নোক্ত পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলো দেখা দিতে পারেঃ

সাময়িক ব্যাথা

চামড়া ফ্যাকাসে হয়ে যাওয়া (lightening of your skin)

চামড়া পাতলা হয়ে যাওয়া (thinning of your skin)

অতিমাত্রায় কর্টিকোস্টেরয়েড ইঞ্জেকশন নিলে কাঁধের ক্ষতি হতে পারে। সে কারনে একই কাঁধে আপনি বছরে সর্বোচ্চ তিন বার কর্টিকোস্টেরয়েড ইঞ্জেকশন ব্যবহার করে চিকিৎসা নিতে পারেন।

হায়ালুরোনেট ইঞ্জেকশন (Hyaluronate injections)

কাঁধের ব্যাথার জন্য আপনাকে হায়ালুরোনেট ইঞ্জেকশনও দেয়া হতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে যে এটি ব্যাথা কমানোর জন্য কার্যকরী চিকিৎসা।

ফিজিওথেরাপি (Physiotherapy)

আপনাকে ফিজিওথেরাপিস্টের কাছে পাঠানো হলে তারা কী ধরনের চিকিৎসা দিবেন এবং সেগুলো কীভাবে কাজ করবে তা আপনাকে বুঝিয়ে বলবেন। সম্ভাব্য চিকিৎসাগুলোর মধ্যে রয়েছেঃ

মাসাজ – এতে ফিজিওথেরাপিস্ট আপনার কাঁধে হাত বুলিয়ে বা চাপ দিয়ে চিকিৎসা করবেন

লেজার থেরাপি – আপনার কাঁধের নার্ভাস সিস্টেম উদ্দীপ্ত করা এবং ব্যাথা কমানোর জন্য লেজার রশ্মি ব্যবহার করা হবে

ট্র্যান্সকিউটেনাস ইলেক্ট্রিকাল নার্ভ স্টিমুলেশন (transcutaneous electrical nerve stimulation (TENS))

TENS এমন এক ধরনের ফিজিওথেরাপি যাতে ছোট ছোট ইলেক্ট্রিক প্যাড আপনার কাঁধের চামড়ায় লাগিয়ে চিকিৎসা করা হয়। TENS মেশিন থেকে ছোট ছোট বৈদ্যুতিক তরঙ্গ পাঠিয়ে নার্ভ বা স্নায়ুর প্রান্তগুলো অবশ করে দিয়ে ব্যাথা নিয়ন্ত্রণ করা হয়।

এই চিকিৎসাগুলোর সাথে সাথে ফিজিওথেরাপিস্ট আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী কিছু ব্যায়াম করারও পরামর্শ দিতে পারেন। যেমন, আপনার শোল্ডার ইন্সটেবিলিটি থাকলে আপনার কাঁধের শক্তি বাড়ানোর জন্য কিছু ব্যায়াম করতে দেয়া হতে পারে।

কাঁধের ব্যায়াম

আপনার কাঁধের ব্যাথা থাকলে নিয়মিত হালকা ব্যায়ামের মাধ্যমে কাঁধের জয়েন্ট সচল রাখাটা জরুরি। কাঁধ ব্যবহার না করলে সেখানকার পেশী সীমিত হয়ে যেতে পারে এবং সেটি নাড়াতে আরও বেশি সমস্যা হতে পারে।

আপনার কাঁধ খুব বেশি আড়ষ্ট হয়ে থাকলে ব্যায়াম করাটা কষ্টকর হতে পারে। ডাক্তার বা ফিজিওথেরাপিস্ট আপনার কাঁধের আরও ক্ষতি হবে না এমন কিছু ব্যায়াম দেখিয়ে দিতে পারবেন।

আপনাকে নিজে নিজে করার মত ব্যায়াম দেয়া হতে পারে আবার ডাক্তার বা ফিজিথেরাপিস্টের তত্ত্বাবধানে করার জন্যও ব্যায়াম দেয়া হতে পারে। কোন কোন ক্ষেত্রে চিকিৎসক বা কোন পেশাদার সেবা প্রদানকারী আপনার হাত নাড়িয়ে আপনাকে ব্যায়াম করিয়ে দিতে পারেন। এধরনের চিকিৎসায় আপনার কাঁধের নরম টিস্যু ও জয়েন্টগুলো নাড়ানোর জন্য বিশেষ ধরনের টেকনিক ব্যবহার করা হয়।

গবেষণায় দেখা গেছে যে দীর্ঘদিন ফিজিওথেরাপি নিলে তা ইম্পিঞ্জমেন্ট সিনড্রোমের (impingement syndrome; টেন্ডন বা রোটেটর কাফের সমস্যা) ক্ষেত্রে সার্জারির মতই কাজ করে।

ফ্রোজেন শোল্ডারের জন্য সার্জারি

অন্যান্য চিকিৎসায় ফ্রোজেন শোল্ডার ভাল না হলে আপনাকে সার্জারির পরামর্শ দেয়া হতে পারে। দু’ধরনের সার্জারির ব্যাপারে নিচে আলোচনা করা হল।

ম্যানিপুলেশন (Manipulation)

ম্যানিপুলেশন করা হলে আপনাকে এনেস্থেসিয়া দিয়ে অচেতন করে আপনার কাঁধ সরিয়ে জায়গামত বসানো হবে। এই পদ্ধতিতে আপনাকে অচেতন করে আপনার কাঁধ আলতো করে সরিয়ে মেলে দেয়া হবে।

এরপর আপনাকে কাঁধ সচল রাখার জন্য ফিজথেরাপি নিতে হবে। কাঁধের ব্যাথা এবং এর জন্য সৃষ্ট সমস্যা খুব বেশি মনে হলে তখন ম্যানিপুলেশন করা হয়।

আর্থ্রোস্কপিক ক্যাপসুলার রিলিজ (Arthroscopic capsular release)

ম্যানিপুলেশন ছাড়া অপর যে চিকিৎসাটি রয়েছে তা হল আর্থ্রোস্কপিক ক্যাপসুলার রিলিজ। এটি এক ধরনের কি-হোল সার্জারি (keyhole surgery) বা কাটা ছেঁড়া বিহীন সার্জারি। এই পদ্ধতিতে সার্জন আপনার শরীরে একটি ১ সে.মি.-এরও ছোট ছিদ্র করে একটি বিশেষ ধরনের প্রোব (probe) ঢুকিয়ে আপনার সংকুচিত শোল্ডার ক্যাপসুল (contracted shoulder capsule) প্রসারিত করে দিবেন এবং জখম টিস্যুগুলো সরিয়ে দিবেন। এই পদ্ধতিতে সাধারণত খুব ভাল কাজ হয়। ম্যানিপুলেশনের মত এই পদ্ধতিতেও সার্জারির পরে কাঁধ সম্পূর্ণরূপে ব্যবহার করতে পারার জন্য ফিজিওথেরাপি নেয়া লাগবে।

রোটেটর কাফ ছিঁড়ে গেলে তার জন্য সার্জারি (Surgery for a rotator cuff tear)

রোটেটর কাফ ছিঁড়ে যাওয়ার চিকিৎসার জন্য সার্জারি করা হতে পারে যদি ক্ষতটি খুব বড় হয় বা অন্যান্য চিকিৎসাগুলোতে তিনমাসের মধ্যেও সমস্যাটি ভাল না হয়। সার্জারিটি আগে আগে করা হলে সমস্যাটি দ্রুত ভাল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তবে এই মুহূর্তে সেটি জোর দিয়ে বলার মত কোন গবেষণালব্ধ প্রমান পাওয়া যায়নি।

এই পদ্ধতিতে আপনার কাঁধের হাড় অল্প পরিমাণে চেঁছে ফেলা হতে পারে। ক্ষতিগ্রস্ত টেন্ডন (tendon) এবং বারসে (bursae; হাড়ের জোড়ের উপরে এবং হাড় ও টেন্ডনের মধ্যে থাকা তরলে ভর্তি কিছু থলে)-ও সরিয়ে ফেলা হতে পারে। এতে আপনার রোটেটর কাফটি নাড়ানোর জন্য আরও বেশি জায়গা পাওয়া যায়।

অপারেশনটি নিম্নোক্ত উপায়ে করা হতে পারেঃ

ওপেন সার্জারি – কাঁধে বড় একটি অংশ কেটে উন্মুক্ত করে

ছোট ওপেন সার্জারি – কাঁধে একটি ছোট ছিদ্র করার মাধ্যমে

আর্থ্রোস্কপিক সার্জারি – এটি এক ধরনের কী-হোল সার্জারি (keyhole surgery) যেটিতে কাঁধে একটি ছোট ছিদ্র করে ক্যামেরা ব্যবহারের মাধ্যমে কাঁধের জয়েন্টের ভেতরটা দেখা হয়।

গবেষণায় দেখা যায় যে যাদের ছোট ওপেন সার্জারি করা হয় তারা যাদের সাধারন ওপেন সার্জারি করা হয় তাদের চাইতে একমাস আগে কর্মক্ষেত্রে ফিরে যেতে পারেন।

এই সার্জারিগুলোর পরেও আপনাকে কাঁধ সম্পূর্ণভাবে ব্যবহারে সক্ষম হওয়ার জন্য ফিজিওথেরাপি নিতে হবে।

শোল্ডার ইন্সটেবিলিটির সার্জারি (Surgery for shoulder instability)

আপনার কাঁধ কিছুদিন পর পর বা কখনো খুব বাজে ভাবে জায়গা থেকে নড়ে গেলে (shoulder dislocate) সেটি ঠিক করার জন্য বা কাঁধের আশেপাশের টিস্যু ও নার্ভ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া থেকে বাঁচানোর জন্য সার্জারি করা লাগতে পারে। আপনার সমস্যাটি কী ধরনের তার ওপর নির্ভর করে সার্জারিতে নিম্নোক্ত জিনিসগুলো করা হতে পারেঃ

ছিঁড়ে যাওয়া বা ঢিলে হয়ে যাওয়া লিগামেন্টগুলোকে (ligament; লিগামেন্ট হচ্ছে একধরনের টিস্যু যেগুলো দুটো হাড়ের মধ্যে সংযোগ রক্ষা করে) টান টান করে দেয়া হতে পারে।

তাপ দিয়ে বা সেলাইয়ের দ্বারা শোল্ডার ক্যাপসুলটিকে টান টান করে দেয়া

কী-হোল সার্জারি বা ওপেন সার্জারির দ্বারা শোল্ডার ইন্সটেবিলিটির চিকিৎসা করা হতে পারে। অপারেশনের পর কয়েক সপ্তাহ একটি বিশেষ ধরনের স্লিং দিয়ে আপনার কাঁধ নাড়ানো বন্ধ করার ব্যবস্থা করা হবে। আপনার শক্তি বৃদ্ধির জন্য আপনাকে ফিজিওথেরাপিও দেয়া হবে। পুরোপুরি ভাল হতে কয়েকমাস সময় লাগতে পারে।

About the author

Maya Expert Team