চোখ সংক্রান্ত সমস্যা চোখের প্রদাহ

কঞ্জাঙ্কটিভাইটিস- উপসর্গসমূহ

উপসর্গসমূহ

কঞ্জাঙ্কটিভাইটিসের বা চোখ ওঠার উপসর্গগুলো কারণের উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন রকমের হয়, তবে সচরাচর নিচের লক্ষণগুলো দেখা যায়ঃ

চোখ লালঃ কঞ্জাঙ্কটিভা’র ক্ষুদ্র রক্তনালীগুলো প্রদাহের কারনে স্ফীত হয়ে এ অবস্থার তৈরী করে।

চোখ থেকে পানি পড়াঃ কঞ্জাঙ্কটিভাতে অসংখ্য কোষ থাকে যেগুলো মিউকাস (mucus) নামক পাতলা তরল নিঃসরণ করে এবং ছোট ছোট গ্রন্থি (gland) থাকে যেগুলো অশ্রু তৈরি করে। প্রদাহের কারণে গ্রন্থিগুলো অস্বাভাবিকভাবে বেশী কাজ করা শুরু করে এবং স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি পরিমাণে অশ্রূ নির্গত করে।

প্রথমে এক চোখ আক্রান্ত হলেও কয়েক ঘণ্টার মধ্যে দুটি চোখেই এই সমস্যাগুলো দেখা দেয়।

সংক্রমণজনিত কঞ্জাঙ্কটিভাইটিস (Infective conjunctivitis)

আপনার সংক্রমণজনিত কঞ্জাঙ্কটিভাইটিস হলে নিচের উপসর্গগুলো দেখা দিতে পারেঃ

চোখ জ্বালা করা

চোখের ভেতর কোন কিছু পড়েছে (যেমন;বালি কণা) এমন অনুভুতি হওয়া

সকালে প্রথম ঘুম ভাঙ্গার পর চোখের পাতায় আঠালো আবরন থাকা যা চোখ খুলতে অসুবিধা তৈরী করতে পারে

কানের সামনের লসিকা গ্রন্থি (lymph node) ফুলে উঠা ।

অ্যালার্জিক কঞ্জাঙ্কটিভাইটিস

অ্যালার্জিক কঞ্জাঙ্কটিভাইটিস হলেও চোখে চুলকানী দেখা দিতে পারে। কোন ধরনের জিনিসে অ্যালার্জি থাকার কারনে কঞ্জাঙ্কটিভাইটিসটি হয়েছে তার উপর নির্ভর করে নির্দিষ্ট রকমের লক্ষন দেখা দেয়। যেমন; ফুলের রেনু বা পরাগের কারনে হলে তা বছরের নির্দিষ্ট কিছু সময়ে দেখা দিতে পারে।

নিচের জিনিসগুলো কারো জন্যে অ্যালার্জিক হতে পারেঃ

গাছের পরাগ বা রেনু, যা বসন্তকালে ছড়ায়

ঘাসের পরাগ বা রেনু, যা বসন্তের শেষে গরম শুরুর সময়ে ছড়ায়

বুনো লতাপাতার রেনু, যা বসন্তের শুরু থেকে হেমন্তের শেষ পর্যন্ত ছড়াতে পারে

পরাগ বা রেনুতে অ্যালার্জি থাকলে হাঁচি ,নাক দিয়ে পানি পড়া ও নাক বন্ধ তৈরী হতে পারে। ময়লা /আবর্জনায় উৎপন্ন ক্ষুদ্র পোকা বা পশুর লোমে অ্যালার্জি থাকলে সারা বছর জুড়েই সমস্যা হতে পারে। এতে দুই চোখই আক্রান্ত হয় এবং সকালের দিকে উপসর্গগুলো প্রবল থাকে।

কোন কোন ব্যক্তির বিভিন্ন চোখের ড্রপে অ্যালার্জি থাকতে পারে। একে কন্টাক্ট ডার্মাটোকঞ্জাঙ্কটিভাইটিস (contact dermatoconjunctivitis) বলে । এটির কারনে আপনার চোখের পাতাও আক্রান্ত হতে পারে যাতে চোখের পাতা শুকিয়ে যাওয়াসহ ক্ষত তৈরী হতে পারে।

কারো কারো কন্টাক্ট লেন্সে অ্যালার্জি থাকে। এই সমস্যাটিকে জায়ান্ট প্যাপিলারি কঞ্জাঙ্কটিভাইটিস বলে। এর উপসর্গগুলো খুব ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পায় এবং আপনার চোখের উপরের পাতার ভেতরে ছোট ছোট দাগ দেখা দিতে পারে। এই ধরনের কঞ্জাঙ্কটিভাইটিসের কারনে খুবই জটিল ধরনের সমস্যা তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে, তাই এমন হলে আপনার ডাক্তার দেখানো উচিত।

কখন ডাক্তারের কাছে যাবেন

বেশীরভাগ কঞ্জাঙ্কটিভাইটিসে কোন ধরনের ভয়ের কারন নেই, তবে অসুখটি হলে, বিশেষ করে কন্টাক্ট লেন্সের কারনে হলে, আপনার ডাক্তার দেখানো উচিত।

ডাক্তার আপনার সমস্যার আরও মারাত্মক কোন কারন রয়েছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখবেন।

কখন তাৎক্ষনিক ভাবে ডাক্তার দেখানো জরুরি

নিচের সমস্যাগুলো চোখের জটিলতর অসুখের লক্ষণ হতে পারেঃ

চোখ ব্যাথা করা

আলোক সংবেদনশীল বা আলোতে দেখতে সমস্যা হওয়া (photophobia)

দেখতে সমস্যা হওয়া (disturbed vision)

এক বা দুই চোখই বেশি রকমের লাল হয়ে যাওয়া

আপনার এই লক্ষণগুলোর কোনটি দেখা দিলে তাৎক্ষনিকভাবে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন। যদি তা সম্ভব না হয় তাহলে নিকটস্থ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে যান।

About the author

Maya Expert Team