এন্ডোক্রিনোলজি স্বাস্থ্য

হাইপোথাইরয়েডিজম- সনাক্তকরণ

যদি আপনার কম কার্যক্ষমতা সম্পন্ন থাইরয়েড (হাইপোথাইরয়ডিজম) এর লক্ষন সমূহ থাকে বা দেখা যায় তাহলে আপনি ডাক্তারের কাছে যান এবং রক্ত পরীক্ষা করান।

রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে হরমোনের মাত্রা পরিমাপ করাই একমাত্র সঠিক পথ এটা বের করার জন্য যে আপনার কোন সমস্যা আছে কিনা।

থাইরয়েড এর পরীক্ষা যাকে থাইরয়েড ফাংশন টেস্ট বলে, যা আপনার রক্তে থাইরয়েড স্টিমুলেটিং হরমোন (TSH)  এবং থাইরোক্সিন (T4)  এর মাত্রা পরিমাপ করে। এছাড়াও আপনার ডাক্তার আপনার রক্তে এন্টি-থাইরোগ্লোবিউলিন এন্টিবডি (Antithyroglobulin antibody) আছে কিনা তা পরীক্ষার জন্য বলতে পারেন, এটা বের করার জন্য যে আপনার সমস্যাটি শরীরের নিজস্ব রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দ্বারা আক্রান্ত কিনা (Autoimmune)।

আপনার রক্তে স্বাভাবিকের চেয়ে অধিক মাত্রায় TSH এবং কম মাত্রায় T4  থাকলে বুঝতে হবে আপনার হাইপোথাইরয়ডিজম আছে।

যদি আপনার রক্তে স্বাভাবিকের চেয়ে অধিক মাত্রায় TSH এবং স্বাভাবিক মাত্রায় T4  থাকলে বুঝতে হবে আপনার ভবিষ্যতে হাইপোথাইরয়ডিজম হবার ঝুঁকি আছে।

আপনার হাইপোথাইরয়ডিজম হয়েছে কিনা এটা দেখার জন্য আপনার ডাক্তার আপনাকে প্রতি ৬ সপ্তাহ পর পর রক্ত পরীক্ষা করার জন্য উপদেশ দিতে পারেন।

রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে অন্যান্য অনেক কিছুর মাত্রাও নির্ণয় করা যায়, যেমন ট্রাই-আয়োডথাইরোনিন (T3) নামক হরমোন। কিন্তু এটি সাধারনত করা হয় না কারণ T3 এর মাত্রা হাইপোথাইরয়ডিজম থাকা সত্ত্বেও স্বাভাবিক দেখাতে পারে।

রেফারেল

আপনার ডাক্তার আপনাকে একজন হরমোন বিশেষজ্ঞ (Endocrinologist) এর কাছে পাঠাতে পারেন, যদি :

  • আপনার বয়স ১৬ বছরের নিচে হয়।
  • যদি গর্ভবতী হন অথবা গর্ভবতী হবার চেষ্টা করেন।
  • যদি সদ্য বাচ্চা প্রসব করেন
  • আপনার যদি অন্য কোন শারীরিক সমস্যা থেকে থাকে যেমন হৃদরোগ, যা আপনার ঔষধ সেবনে জটিলতা সৃষ্টি করতে পারে।
  • যদি আপনি Amiodarone অথবা Lithium ঔষধ সেবন করেন।  

About the author

Maya Expert Team

Leave a Comment