নারী স্বাস্থ্য- প্রসব এবং পরবর্তী স্বাস্থ্য সংক্রান্ত

সেলাই ,অর্শরোগ ও রক্তপাত

বাচ্চা জন্মের সময় যদি আপনার Episiotomy লেগে থাকে বা কাটার প্রয়োজন হয়ে থাকে তাহলে সেখানকার

সেলাই করা জায়গাটি দ্রুত সাড়িয়ে তোলার জন্য নিয়মিত পরিষ্কার কুশুম গরম পানি দিয়ে জায়গাটি ভালো করে ধুবেন। কুশুম গরম পানি দিয়ে নিয়মিত গোসল করবেন।  গোসল এর পর সাবধানে জায়গাটি মুছে শুষ্ক করে নিবেন।

প্রথম কয়দিন সাবধানে উঠা বসা করবেন। পিঠের উপর সোজা হয়ে না শুয়ে যেকোনো এক সাইড এ কাত হয়ে শুবেন। Pelvic floor exercise এর মাধ্যমেও জায়গাটি  সারিয়ে তোলা সম্ভব। আপনি বিভিন্ন প্রবন্ধেs pelvic floor exercie সম্পর্কে জানতে পারবেন।

যদি সেলাই করা জায়গাটি তে বেশি অস্বস্তিকর বোধ করেন বা ব্যথা অনুভব করেন তাহলে অবশ্যই আপনার ডাক্তার কে জানাবেন এবং ওনার পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা গ্রহন করবেন।  ব্যাথার ঔষধ খেলে আরাম পাবেন। আপনি যদি বাচ্চাকে বুকের দুধ খাওয়ান তাহলে যেকোনো ঔষধ যেমন ibuprofen  বা প্যরাসিটেমল খাওয়ার আগে অবশ্যই আপনার ডাক্তার বা ফার্মাসিস্ট এর পরামর্শ নিয়ে নিবেন। সাধারনত ঘা শুকিয়ে যাওয়ার সাথে সাথে সেলাই ও দ্রবিভুত হয়ে যায়, তবে কিছু ক্ষেত্রে সেলাই কাটা লাগতে পারে।

 

বাথরুমে যাওয়াঃ

অবশ ও ব্যাথা থাকার কারণে প্রথম প্রথম বাথরুমে যাওয়ার চিন্তা করতেও ভয় লাগতে পারে। প্রস্রাব ঠিক মত করার জন্য বেশি করে পানি পান করতে হবে। তবে প্রস্রাব করার সময় যদি বেশি জ্বালাপোড়া বা ব্যাথা হয় তখন অবশ্যই ডাক্তার কে জানাতে হবে।

বাচ্চা জন্মের পর কয়েকদিন হয়তো আপনার পায়খানা নাও  হতে পারে। তবে আপনাকে লক্ষ্য রাখতে হবে যাতে আপনার পায়খানা কষা না হয়ে যায়। এই সময় বেশি করে শাক সবজি ও আঁশ যুক্ত খাবার খেতে হবে এবং প্রচুর পরিমানে পানি খেতে হবে।

অনেক সময় আপনার মনে হতে পারে যে আপনার সেলাই খুলে আসবে, তবে সেই সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। তবে পায়খানা করার সময় সেলাই করা জায়গায় একটি পরিষ্কার টিস্যু চাপা দিয়ে রাখতে পারেন। এতে করে আপনার আরাম লাগবে। পায়খানা করার সময় বেশি চাপ দিবেন না।

অর্শরোগ বা পাইলসঃ

অনেকেরই বাচ্চা জন্মের পর পাইলস বা অর্শরোগ দেখা দিতে  পারে। তবে সাধারনত কয়েক দিনের ভিতর এটি সেরে যায়। এই সময় বেশি করে শাক সবজি ও আঁশ যুক্ত খাবার খেতে হবে এবং প্রচুর পরিমানে পানি খেতে হবে। নিয়মিত ভুসি খেতে হবে।  এতে করে পায়খানা কষা হবেনা এবং পায়খানা করার সময় ব্যাথাও লাগবে না। পায়খানা করার সময় বেশি চাপ দেয়ার চেষ্টা করলে পাইলস বেড়ে যেতে পারে। তবে পায়খানা করার সময় যদি বেশি অস্বস্তি লাগে তাহলে ডাক্তার কে জানাতে হবে এবং ওনার পরামর্শ অনুযায়ী মলম লাগাতে হবে।

 

বাচ্চা জন্মের পর রক্তপাতঃ

বাচ্চা জন্মের পর যোনি পথ দিয়ে রক্তপাত হয় । প্রথম কয় দিন প্রচুর রক্তপাত হয় যার জন্য এই কয়দিন super-absorbent  স্যানেটারি প্যাড ব্যবহার করতে হবে। ডাক্তারের পরামর্শ ছারা এই সময় tampons ব্যবহার করবেন না কেননা এতে করে ইনফেকশন হওয়ার ঝুঁকি থেকে যায়।

বাচ্চা কে বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় জরায়ু সংকুচিত হয় যার কারণে বুকের দুধ খাওয়ানোর সময়  রক্তপাত আরও বেশি এবং গাড় ভাবে হতে পারে। এই সময় আপনি মাসিকের মত ব্যাথাও অনুভব করতে পারেন। একে বলা হয় ‘after pains’।  

ধিরে ধিরে রক্তের রঙ বাদামী হতে শুরু করে এবং পরিমানেও কমতে থাকে। কয়েক সপ্তাহ পর রক্তপাত বন্ধ হয়ে যায়। যদি বেশি পরিমানে রক্ত জমাট বের হতে থাকে তাহলে স্যানেটারি প্যাড এ সেটি সংরক্ষণ করে আপনার ডাক্তার কে দেখাতে হবে এবং তার জন্য  যথাযথ চিকিৎসা নিতে হবে।

 

About the author

Maya Expert Team

Leave a Comment